Internet থেকে টাকা আয় করার জন্য, অনেক উপায় বা মাধ্যম আমাদের হাথে রয়েছে। আমি নিজেই, আমার মাসিক ইনকামের অনেক বেশি পরিমান, ইন্টারনেটের থেকেই পাচ্ছি। তবে, Online income করার রাস্তা আপনার জন্যও অবশই খোলা রয়েছে। কেবল প্রয়োজন, আপনার মধ্যে কিছু সাধারণ কৌশল ও দক্ষতা (skills) থাকার। (How To Earn Money From Internet In Babgla).

How to earn money from internet ?

Internet থেকে online earning করার জন্য, আজ বেশিরভাগ ছাত্ররা (students) বিভিন্ন উপায় খুজেঁন। তাছাড়া, কিছু সংখক লোকেরা বা মহিলারা ঘরে বসেই অনলাইন ইনকাম করার উপায় জানার জন্য অনেক উৎসুক।

কিন্তু মনে রাখবেন, অনলাইন ইনকামের যেভাবে অনেক লাভজনক উপায় রয়েছে, ঠিক সেভাবেই, অনেক মিথ্যা (false) বা জালি (fake) মাধ্যমও রয়েছে। এই ধরণের মাধ্যমে, আপনার কেবল সময় নষ্ট হবে।

এবং, টাকা দেয়ার নামে আপনাকে কিছুই দেয়া হয়না।

তাই, আজ ইন্টারনেটে টাকা কমানোর উপায় গুলির মধ্যে সব গুলোই কিন্তু আসল (real) বা জেনুইন (genuine) নয়।

তবে, ইন্টারনেটে টাকা উপার্জনের যেসব নিশ্চিত বা জেনুইন উপায় রয়েছে, সেগুলি যদি আপনারা সঠিক ভাবে ব্যবহার করে লাভ নিতে পারেন, তাহলে বিশ্বাস করুন, আপনি কিছু দিনেই এতো টাকা আয় করতে পারবেন যে অন্য কোনো কাজ করার প্রয়োজন হবেনা।

এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের, ইন্টারনেটের মাধ্যমে টাকা আয় করার এমন ৭ টি উপায়ের ব্যাপারে বলবো, যেগুলি সঠিক ভাবে ব্যবহার করলে আপনারা কিছু দিনের মধ্যেই ভালো পরিমানে টাকা আয় করতে পারবেন।

Online taka income এর এই মাধ্যম গুলি জেকেও ব্যবহার করে কাজ করতে পারবেন।

যেমন, স্কুল বা কলেজে পড়া ছাত্ররা (students), retired মানুষেরা বা housewives এবং আপনি বা আমি জেকেও part-time বা full-time online income এর উদ্দেশ্যে এই নিশ্চিত উপায় গুলি ব্যবহার করতে পারি।

আজ অনেকেই রয়েছেন যারা, online earning কোরে যেকোনো চাকরির থেকে দুগুণ টাকা আয় করছেন। এবং, যত বেশি দিন যাচ্ছে, ততটাই, “internet থেকে টাকা আয়” করার বিভিন্ন নতুন নতুন সুযোগ তৈরি হচ্ছে। (Online taka income করার উপায়)

নিচে, আমি ৫ টি উপায় বলবো যেগুলির মাধ্যমে আজ বিভিন্ন দেশের লোকেরা ঘরে বসেই ভালো পরিমানে টাকা ইনকাম করছেন। কিছু ক্ষেত্রে, লোকেরা মাসে লক্ষ লক্ষ টাকাও আয় করছেন।

Internet থেকে টাকা আয় কেন করবেন ?

আজ জনসংখ্যা বেড়ে যাওয়ার সাথে সাথে যেকোনো চাকরির ক্ষেত্রে প্রতিযোগিতা অনেক বেশি বেড়ে গেছে। এক্ষেত্রে, একটি ভালো চাকরি পাওয়াটা আজ অনেক সমস্যায় বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এখন, ঘরে বসে বসে নিজের খারাপ পরিস্থিতি নিয়ে ভাবার থেকে, ইন্টারনেটে থাকা কিছু লাভজনক টাকা আয়ের উপায় বা মাধ্যম ব্যবহার করাটা একটি ভালো বিচার বলে আমি মনে করি।

এবং, আমার মতোই আপনারাও বিভিন্ন রকমে “part-time online earning” করেও, চাকরির বাইরেও ভালো পরিমানে এক্সট্রা ইনকাম (extra income) করতে পারবেন।

ইন্টারনেট থেকে টাকা আয় করার জন্য, যদি কিছু জেনুইন এবং নিশ্চিত উপায় ব্যাবহার করা হয়, তাহলে এখানে ইনকামের কোনো সীমা নেই।

লোকেরা, বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে, ঘরে বসেই মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করছেন।

তাছাড়া, আপনি যদিওবা লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করতে নাও পারেন, তবুও মাসে অনেক ভালো পরিমানে টাকা ইনকামের সুযোগ থাকবে।

আজ, ইন্টারনেটে এমন কিছু ভালো ভালো মাধ্যম রয়েছে যেমন, blogging, YouTube channel বা affiliate marketing, যেগুলি ব্যবহার করে দেশ বিদেশের বিভিন্ন লোকেরা মাসে ভালো সংখ্যায় টাকা আয় করছেন।

এবং, জেকেও এই blogging, YouTube channel আর affiliate marketing দ্বারা অনলাইন ইনকাম করতে পারবেন।

এই, তিনটি মাধ্যম যেকোনো দেশে, সব থেকে বেশি পরিমানে ব্যবহার করা “অনলাইনে আয় করার নিশ্চিত উপায়” গুলির মধ্যে ধরা হয়।

তাছাড়া, আপনারা যদি Google এ সার্চ করে দেখেন, এই ধরণের অনলাইন টাকা আয়ের উপায় ব্যবহার করে আজ অনেকেই অধিক সফল হয়ে দাঁড়িয়েছেন।

শেষে, এটাই বলবো যে, দিনে দিনে online earning এবং online income এর সুযোগ অধিক বেশি বেড়ে গেছে। এবং, যদি আপনার মধ্যে কিছু বিশেষ দক্ষতা বা কৌশল থাকে, তাহলে অবশই internet থেকে ইনকাম করার সুযোগ আপনার কাছেও থাকবে।

এই সুযোগ কিন্তু হাতছাড়া করবেননা।

জায়গায় জায়গায় চাকরি খুঁজে হতাশ হওয়ার থেকে বা অফিসে নিজের মালিকের গালি ও অসন্তুষ্টি শুনার থেকে, এভাবে ঘরে বসে নিজেই নিজের কাজ করে আয় করতে পারবেন। যেভাবে আমি করছি।

এতে, আপনারা নিজেই নিজের বস (BOSS) বা মালিক হয়ে একটি ব্যবসা হিসেবে কাজ করতে পারবেন।

Online income বা earning করার জন্য কি কি লাগবে ? 

এমনিতে, ইন্টারনেট থেকে উপার্জন করার জন্য আপনাদের কি কি লাগবে, সেটা কেবল আপনি কোন কাজটি করছেন সেটার ওপরেই নির্ভর করবে।

তবে, সাধারণ ভাবে একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ থাকতে হবে এবং তাতে ইন্টারনেট কানেক্শন (internet connection) থাকাটা জরুরি।

তারপর, আপনারা যেকোনো জায়গার থেকে নিজের কাজ ইন্টারনেটের মাধ্যমে করতে পারবেন। একি জায়গায় বসে থাকার কোনো দরকার হবেনা।

তাই, এক্ষেত্রে একটি ল্যাপটপ (laptop) থাকাটা আপনার জন্য অধিক লাভজনক প্রমাণিত হবে।

কিন্তু, আপনারা যদি মোবাইল ব্যবহার করে কাজ করার কথা ভাবছেন, তাহলে আগেই বলে দি, “এভাবে যেকোনো অনলাইন কাজ করাটা সম্ভব না” .

দেখুন, ইন্টারনেট থেকে ভালো পরিমানে টাকা ইনকাম করার জন্য আপনার প্রফেশনালি (professionally) কাজ করতে হবে।

এবং, তার জন্য একটি ল্যাপটপ বা কম্পিউটারের প্রয়োজন।

ইন্টারনেটে টাকা আয় করার ৫ টি নিশ্চিত উপায় – (Online Taka Income)

নিচে, ইন্টারনেট থেকে আয় করার যেগুলি নিশ্চিত উপায় গুলির ব্যাপারে বলবো, সেগুলির ব্যাপারে জেকেও YouTube এ ভিডিও দেখে বা গুগলে সার্চ করে জেনেনিতে পারবেন।

এবং, তারপর এই মাধ্যম গুলি ব্যবহার কোরে online income করতে পারবেন।

নিচে দেয়া এই ৭ উপায় আজ, ২০১৯ এ, অনলাইনে ইনকামের সব থেকে লাভজনক উপায় হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে।

১. পিটিসি (PTC) ওয়েবসাইটের মাধ্যমে 

Earn money from PTC websites.

PTC বা pay to click ওয়েবসাইট গুলির মাধ্যমে আজ অনেকেই ঘরে বসেই বিজ্ঞাপনে ক্লিক করে বা বিজ্ঞাপন দেখে অনলাইনে টাকা আয় করছেন।

পিটিসি (ptc) ওয়েবসাইট গুলি আসলে আপনাদের বিভিন্ন রকমের কাজ দেয়। যেমন, কিছু paid survey র কাজ, বিজ্ঞাপন (advertisements) দেখার কাজ, বিভিন্ন অন্য অফার (offer) ও কাজ করার বদলে, এই পিটিসি ওয়েবসাইট গুলি আমাদের অনলাইন আয়ের সুযোগ দেয়।

সাধারণ, পিটিসি সাইট থেকে টাকা আয় করার সব থেকে সহজ উপায় হলো, “বিজ্ঞাপন দেখা” এবং “পেইড সার্ভে” পুরো করা।

এমনিতে, সব ধরণের পিটিসি সাইট ভরসার যোগ্য নাও হতে পারে।

তবে, “YSENSE.COM” এবং “NEOBUX.COM” পিটিসি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অনেকেই ভিভিন্ন জায়গার থেকে আয় করছেন।

এগুলিতে, যত বেশি পরিমানে আপনাকে কাজ দেয়া হবে এবং যত বেশি সময় লাগিয়ে আপনারা কাজ করবেন, ততটাই বেশি আয়ের সুযোগ রয়েছে।

তাছাড়া, আপনারা গুগলে বিভিন্ন ভালো ভালো পিটিসি ওয়েবসাইটের (PTC websites) ব্যাপারে জেনে তারপর সেগুলি ব্যবহার করে ইনকাম করতে পারবেন।

২. Earn money online through Facebook videos 

Earn money using Facebook .

এখন, ফেসবুক থেকে unlimited টাকা আয় করার সুযোগ আপনার কাছে রয়েছে। Facebook, এখন একটি নতুন function বেড় করেছে যার নাম হলো “Ad breaks”.

Ad Breaks এর মাধ্যমে, আপনারা নিজের ফেসবুক পেজ গুলিতে আপলোড করা ভিডিও গুলিতে বিজ্ঞাপন (advertisements) দেখিয়ে টাকা আয় করতে পারবেন।

এমনিতে, ফেসবুকের এই function কিছু দিন আগেই বের হয়েছে। তাই, এই মাধ্যমে কত টাকা আপনি আয় করতে পারবেন, তার সঠিক সংখ্যা বলাটা বর্তমান সম্ভন না।

তবে, YouTube এর পরে ভিডিও আপলোড করে টাকা আয় করার এই মাধ্যম অনেক বেশি চর্চাতে রয়েছে।

কিন্তু, মনে রাখবেন, Facebook ad breaks এর মাধ্যমে টাকা আয় করার জন্য, আপনাদের কিছু নিয়ম ও রুল (rules) মেনে চলতে হবে।

তাছাড়া, এই মাধ্যমে টাকা আয় করার কিছু সাধারণ প্রয়োজনীয়তা (requirements) রয়েছে।

অধিক জানার জন্য ফেসবুকের এই ওয়েবসাইটে গিয়ে দেখুন – Join Facebook AD-Breaks .

৩. Affiliate marketing করে আয় 

online taka income from affiliate

Affiliate marketing, আজ এমন এক মার্কেটিং এর প্রক্রিয়া হয়ে দাঁড়িয়েছে, যেখানে আপনারা যেকোনো অন্য কোম্পানির পণ্য, প্রোডাক্ট বা সার্ভিসের অনলাইন প্রমোশন (promotion) বা প্রচার করিয়ে টাকা আয় করতে পারবেন।

আপনারা, অন্য কোম্পানির পণ্য (product) বা সার্ভিস (service) বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যম যেমন, নিজের ওয়েবসাইট, ব্লগ, YouTube channel বা Social media পেজের দ্বারা অন্যদের কাছে মার্কেটিং বা প্রমোশন করতে পারবেন।

এবং, যদি আপনার প্রচার করা “affiliate link” এর মাধ্যমে কেও যেকোনো product বা service অনলাইন কিনে নেয়, তখন সেই পণ্যের কোম্পানির তরফ থেকে আপনাকে commission হিসেবে টাকা দেয়া হয়।

Note : affiliate link মানে হলো সেই URL link address যেটা আপনাকে সেই কোম্পানির থেকে দেয়া হয় যেই কোম্পানির products আপনি মার্কেটিং বা প্রচার করবেন। এবং, affiliate link এর মাধ্যমে, আপনার প্রচার করা পণ্য লোকেরা ডাইরেক্ট অনলাইন কিনতে পারবেন।

আজ, একটি ব্লগ বা ইউটিউবের চ্যানেলে আশা ট্রাফিক ও ভিসিটর্স দেড় এই এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে লোকেরা বিভিন্ন কোম্পানির বিভিন্ন পণ্য বিক্রি করে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা কমিশন হিসেবে আয় করে নিচ্ছেন।

এবং, আপনিও একটি ব্লগ, ইউটিউবের চ্যানেল বা অধিক ফলোয়ার / লাইক থাকা পেজ তৈরি করে এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে অনলাইন টাকা কামাতে পারবেন।

Amazon, Flipkart, Snapdeal এর মতো অনেক e-commerce ওয়েবসাইট রয়েছে, যেগুলির পণ্য আপনারা এফিলিয়েট মার্কেটিং প্রোগ্রাম এর মাধ্যমে প্রচার করতে পারবেন।

তাছাড়া, আপনার দেশের local e-commerce এর ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে দেখুন। সেগুলিতেও একটি affiliate program অবশই থাকবে।

E – commerce ওয়েবসাইট ছাড়াও ইন্টারনেটে অনেক ধরণের কোম্পানি রয়েছে। যেমন, Domain & hosting, Website themes, Paid plugins, books এবং ইন্টারনেটের প্রায় ৯০% কোম্পানিরা এফিলিয়াতে প্রোগ্রাম অবশই ব্যবহার করেন।

তাই, আপনি আপনার ব্লগ, ওয়েবসাইট বা ইউটিউবের চ্যানেলের টপিক বা বিষয়ের সাথে জড়িত প্রোডাক্ট (product) খুঁজে তারপর, সেগুলি প্রচার করতে পারবেন ভিডিও বা আর্টিকেলের মাধ্যমে।

Affiliate marketing এর ব্যাপারে অধিক জেনেনেয়ার জন্য এই আর্টিকেলটি পড়ুন – এফিলিয়েট মার্কেটিং কি ? কিভাবে আয় করবেন

৪. Blogging করে আয় 

ব্লগিং এর মাধ্যমে টাকা আয়
Earn money from blogging.

ব্লগিং, internet থেকে টাকা আয় করার আমার সব থেকে প্রিয় উপায় বা নিয়ম। কারণ, আজ থেকে ৬  বছর আগে আমি ব্লগিং শুরু করেছি। এবং, তার ১ বছর পর থেকেই আমি এর মাধ্যমে ভালো পরিমানে ইনকাম করে চলেছি।

আজ আমার অনেক ভালো পরিমানে ইনকাম ব্লগিং ও গুগল এডসেন্স থেকে হচ্ছে। প্রায় এতো টাকা যে প্রত্যেক মাসে আমি একটি নতুন oppo K 3 smartphone কিনে নিতে পারবো।

তবে জেকেও, অনেক সহজেই একটি ব্লগ তৈরি করে তারপর নিজের ব্লগে বিভিন্ন মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

যেমন, affiliate marketing এর মাধ্যমে, Adsense এর মাধ্যমে, অন্য advertisement company থেকে এবং আরো অনেক লাভজনক উপায় রয়েছে একটি ব্লগ থেকে অনলাইন আয় করার।

আজ, বিভিন্ন দেশের লোকেরা, ব্লগিং কে নিজের ক্যারিয়ার হিসেবে নিয়েছেন।  এবং, একটি part-time বা full-time ব্যবসা হিসেবে নিয়ে ব্লগিং করছেন।

আপনি যদি, দিনে কেবল ২ থেকে ৩ ঘন্টা ব্লগিং কে দিয়ে কাজ করতে পারেন, তাহলে সহজেই ১০ থেকে ২০ হাজারের মধ্যে প্রত্যেক মাসে ইনকাম করতে পারবেন।

আমিও, বর্তমানে part-time হিসেবে নিয়ে ব্লগিং করছি। দিনে প্রায়, ২ থেকে ৩ ঘন্টা সময় দিয়ে কাজ করছি।

এবং, কেবল এতটুকু সময়ের কাজেই, full-time job করে যতটুকু আয় হচ্ছে, তার সমান ইনকাম করে নিচ্ছি।

আজ ২০১৯ এ, ব্লগিং (blogging) online taka income করার সব থেকে বেশি জনপ্রিয় এবং লাভজনক উপায় হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে।

ব্লগিং এর ব্যাপারে অধিক জেনেনিন

৫. YouTube channel এর মাধ্যমে 

আপনার মধ্যে যদি ভিডিও বানানোর কৌশল বা দক্ষতা আছে, তাহলে একটি YouTube channel বানিয়েও ভালো পরিমানে টাকা আয় করা যেতে পারে।

ব্লগিং এর পরে, YouTube দ্বিতীয় সব থেকে জনপ্রিয় ও লাভজনক উপায়, ঘরে বসে online income এর জন্য।

আপনারা, যেকোনো ধরণের ভিডিও বানিয়ে নিজের YouTube চ্যানেলে আপলোড দিতে পারবেন। যেমন, টিউটোরিয়াল ভিডিও, educational videos, story, informational এবং লোকেরা যেসব বিষয়ে ভিডিও দেখে ভালো পাবেন, আপনি সেই বিষয় গুলিতে ভিডিও তৈরি করে আপলোড করতে পারবেন।

এমনিতে, ইউটিউবের থেকে টাকা কমানোর উপায় মূলত ৩ টি।

  • Google এডসেন্সের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে। 
  • Affiliate marketing এর মাধ্যমে পণ্য প্রচার কোরে। 
  • Sponsorship করে।

এই সব ধরণের মাধ্যম ব্যবহার করে, আজ হাজার হাজার লোকেরা নিজের বানানো ভিডিওর থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা প্রত্যেক মাসেই কমিয়ে নিচ্ছেন।

তবে, প্রথম ১২ মাসের ভেতরে ১০০০ সাবস্ক্রাইবার এবং ৪০০০ ঘন্টার watch time এর লিমিট পুরো করতে পারলে, এডসেন্স বিজ্ঞাপনের দ্বারা ইউটিউবের থেকে ইনকামের সুযোগ আপনার জন্য তৈরি হয়ে যাবে।

আপনারা যদি, বেশি কষ্ট না করেই, ঘরে বসে সহজে নিশ্চিত অনলাইন ইনকামের উপায় খুঁজছেন, তাহলে যতটা জলদি পারেন, একটি ভালো চ্যানেল আইডিয়া নিয়ে, YouTube channel তৈরি করুন।

এবং, ভালো ভালো ভিডিও বানিয়ে তাতে আপলোড করুন।

এতে, আপনার চ্যানেলে subscriber  এবং views এর সংখ্যা বাড়বে আর তারপর ভালো পরিমানে ইনকাম আপনি করতে পারবেন।

ইউটিউবের থেকে ইনকামের বিষয়ে অধিক জেনেনিন

আমাদের শেষ কথা,,

বন্ধুরা, এমনিতে ইন্টারনেটে টাকা ইনকাম (Earning money from internet) করার আরো অনেক অনেক উপায় বা মাধ্যম রয়েছে। যেমন, Drop shipping, Freelancing বা Data entry মতো কাজ।

কিন্তু, এই অনলাইন উপায় গুলি অনেক অ্যাডভান্সড (advanced) এবং সহজে এগুলির মাধ্যমে আয় করাটা সম্ভন না।

তাই, আপনার মধ্যে যদি বিশেষ দক্ষতা (skills) বা কৌশল না থাকে, তাহলে Drop shipping এবং Freelancing এর কাজ করাটা অনেক কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।

তবে, আপনি চাইলে গুগল বা ইউরিউবে এগুলির বিষয়েও সার্চ করে দেখতে পারেন।

এবং, ওপরে ইন্টারনেট থেকে অনলাইন টাকা আয় করার যেসব উপায় গুলির ব্যাপারে আমি আপনাদের বলেছি সেগুলি জেকেও কিছু সাধারণ জ্ঞানের সাথেই শুরু করতে পারবেন।

শেষে, ভালো ভাবে কাজ করলে, প্রত্যেক মাসেই আপনারা নিশ্চিত ভাবে টাকা আয় করতে পারবেন। যেভাবে আমি করছি।

Related Contents: