এখন, আপনি যদি নিজের মোবাইলে ভিডিও এডিট করতে চান, তাহলে অনেক সহজে করতে পারবেন কিছু এন্ড্রয়েড এপস ব্যবহার করে। আজকাল, বেশিরভাগ লোকেরা ইউটিউবের ভিডিও এডিট করার জন্য এই এডিটিং এপস গুলি ব্যবহার করেন।এবং, apps গুলি ব্যবহার করে আপনি এমন প্রফেশনাল (professional) ভাবে ভিডিও গুলি এডিট করতে পারবেন যেমন এডিটিং কেবল ভালো ভালো কম্পিউটারের সফটওয়্যার করতে পারে।(Edit videos in your mobile phone using android apps).

Best Video Editing apps for android.

আপনি যদি নিজের মোবাইলেই ইউটিউবের জন্য ভিডিও তৈরি করেন, তাহলে বানানো ভিডিও গুলি এডিট করার জন্য আপনার কোনো দামি দামি এডিটিং সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হবেনা। Google play store এ আপনারা এমন অনেক ভালো ভালো ভিডিও এপস পেয়ে যাবেন যেগুলি ব্যবহার করে নিজের ইউটিউব ভিডিও গুলি প্রফেশনাল (professional) এবং আকর্ষিত বানিয়ে নিতে পারবেন।

Also read

ভিডিওতে টেক্সট (text) লিখা, background music দেয়া, thumbnail যোগ করা, headline যোগ করা, বিভিন্ন video effect ব্যবহার করা, ভিডিওর অংশ কাটা এবং আলাদা আলাদা ভিডিও একসাথে যোগ করা। এগুলি সব আপনারা এই video editing সফটওয়্যার গুলি ব্যবহার করে করতে পারবে।

মোবাইলের এই ছোট্ট ছোট্ট ভিডিও এডিটিং এপস গুলি আপনার অনেক কাজের আসবে, যদি আপনি একজন YouTuber এবং একটি android mobile থেকেই এডিটিং এর সব কাজ করতে চান।

এন্ড্রয়েড মোবাইলে ভিডিও এডিটিং করার সেরা ৭ টি এপস

মনে রাখবেন এই এপস গুলি আপনারা Google play store এ পেয়েযাবেন। অবশই, এপস গুলি আপনারা ফ্রীতেই ব্যবহার করতে পারবেন। কিন্তু, এমন কিছু এপস আছে যেগুলি পুরো ভাবে ব্যবহার করার জন্য আপনার কিছু পরিমানে টাকা দিতে লাগতে পারে। কিন্তু, সেটা অনেক কম পরিমানে আপনার খরচ করতে হয়। আপনি যদি নিজের ইউটিউবের চ্যানেল নিয়ে সিরিয়াস (serious) তাহলে এতটুকু তো আপনি দিতেই পারবেন।(Best android video editing apps).

১. FilmoraGo – Free Video Editor

FilmoraGo একটি অনেক শক্তিশালী ভিডিও বানানোর এপ্লিকেশন যাকে ব্যবহার করেন অনেক professional YouTuber রা। সকল ধরণের সাধারণ থেকে advanced functions যেমন, ভিডিওর সাথে music ও effects যোগ করা, title যোগ করা, ভিডিওর জন্য theme বেঁচে নেয়া, video cutting এবং trimming এর মতো সব ধরণের editing options আপনারা পাবেন।

FilmoraGo আপনারা ফ্রীতেই ব্যবহার করে করতে পারবেন। এবং, বেশির ভাগ ফিচারস আপনারা ফ্রি ভার্শনে (free version) এ পেয়ে যাবেন। মনে রাখবেন, filmoraGo app এ ভিডিও বানিয়ে আপনি অনেক সহজে নিজের মোবাইলের গ্যালারিতে ভিডিও সেভ করতে পারবেন।

FilmoraGo র কিছু special features

  • এডিট করা অবস্তাতে real-time ভিডিও প্লে করে দেখতে পারবেন।
  • অনেক বড়ো সংখ্যাতে templates এবং video effects পাবেন।
  • অনেক ধরণের professional editing tools আপনারা পাবেন।
  • বেশিরভাগ ফ্রীতেই পেয়েযাবেন।

FilmoraGo app লোকেদের মধ্যে অনেক প্রচলিত এবং বেশিরভাগ youtuber রা এই application ব্যবহার করেন মোবাইলে ভিডিও এডিট করার জন্য।

Download FilmoraGo app

২. Adobe Premiere Clip

Adobe prime clip আপনাকে আপনার android mobile থেকে video edit করার অনেক ভালো এবং quick service দেয়। এইটা অনেক ফাস্ট এবং ব্যবহার করে আপনার অনেক ভালো লাগবে। Premiere clip editor সম্পূর্ণ ফ্রি এবং এর দ্বারা আপনারা professional quality video তৈরি করতে পারবেন।

এর Automatic video creation ফাঙ্কশনের দ্বারা আপনারা যেকোনো ফটো বা ভিডিও ক্লিপ সিলেক্ট করে automatically ভিডিও এডিট করতে পারবেন। তাছাড়া, এর কিছু advanced এডিটিং টুলস ব্যবহার করে manually নিজের ভিডিও তৈরি করতে পারবেন। Video cutting, trimming, transitions, adding music, filters, effects, photo motion আদি অনেক ধরণের অপশন আপনারা পাবেন।

এই android app ফ্রি এবং আপনারা একে Google play store থেকে download করে নিতে পারবেন। Download Adobe premiere clip

৩. PowerDirector

ওপরে বলা অন্য apps গুলির মতোই PowerDirector আপনার বানানো সাধারণ ভিডিওকে আকর্ষিত এবং প্রফেশনাল ভাবে তৈরি করতে পারবে। কিন্তু, PowerDirector app এ আপনারা অনেক ধরণের আলাদা আলাদা কিছু advanced editing options পাবেন, যেগুলি অন্যখানে পাবেননা।

এর দ্বারা আপনারা ভিডিওর ব্যাকগ্রাউন্ড (video background) বদলানো, ভিডিও কাটা এবং জোড়া লাগানো, স্লো মোশনে এডিট , বিভিন্ন ধরণের প্রফেশনাল টুল, বিভিন্ন ভিডিও এফেক্টস, ফটো দিয়ে ভিডিও বানানো এবং আরো অনেক ধরণের function পেয়ে যাবেন।

Video edit করার পর আপনারা সেই ফাইল ৭২০p, Full HD ১০৮০p এবং 4k format এ নিজের android মোবাইলে সেভ করতে পারবেন। মোবাইলে ভিডিও এডিটিং এর সেরা এপস হিসেবে আপনি PowerDirector কে বলতে পারেন।

Download PowerDirector app

৪. VivaVideo – editor and photo movie

Viva video এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোনে ভিডিও তৈরি করার সেরা app হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে। কিছু, বিখ্যাত android bloggers রা viva video app কে বেস্ট এবং সবচে ভালো video editing app হিসেবে প্রচার করেছেন। এই app ব্যবহার করে আপনারা নিজের মোবাইল থেকেই প্রফেশনাল ভাবে ভিডিও তৈরি করতে পারবেন। কিছু দরকারি এডিটিং ফাঙ্কশন যেমন, ভিডিও কাটা এবং জোড়া দেয়া, trimming, merging, subtitle দেয়া, video effects এবং আরো অনেক এখানে আপনারা পাবেন।

viva video app ২০০ মিলিয়ন থেকে বেশি লোকেরা নিজের মোবাইল ফোনে ব্যবহার করছেন এবং একটি বেস্ট এন্ড্রয়েড ভিডিও এডিটিং এপস হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে।

৫. Quik video editor

Quik android app একটি আলাদা রকমের মাধ্যম নিজের বানানো ভিডিও মোবাইলেই এডিট করার। এইটা অনেক ফাস্ট এবং পুরোটাই ফ্রি। আপনি নিজের মোবাইল গ্যালারি থেকে যেকোনো ফটো বা ভিডিও ক্লিপ বেঁচে নিয়ে তাকে এডিট করতে পারবেন। Quik দ্বারা আপনারা automatically যেকোনো ক্লিপ এডিট করতে পারবেন এর automatic video creation function দ্বারা। কিছু সাধারণ এডিটিং টুল যেমন, ভিডিও ক্রপ করা (crop), এফেক্টস (effects) লাগানো, টেক্সট ব্যবহার করা এবং আরো অনেক টুলস আপনারা এখানে পাবেন।

৬. Kinemaster – Pro

KineMaster এমন একটি application যেটা advanced এবং professional ভিডিও তৈরি করার জন্য সব দিক দিয়ে সক্ষম। এই app ব্যবহার করে আপনারা মোবাইলেই কম্পিউটারের মতো ভিডিও বানাতে বা এডিট করতে পারবেন। এই এন্ড্রয়েড সফটওয়্যার অনেক অনেক শক্তিশালী। সব থেকে ভালো এর user interface. আপনি অনেক সহজেই এর অ্যাডভান্সড ফাঙ্কশন গুলি ব্যবহার করতে পারবেন। অন্য সব ধরণের features এর সাথে কিছু আলাদা এডিটিং অপসন যেমন, ভিডিওর মাঝে মাঝে text লিখা, effects দেয়া, subtitle দেয়া আদি এর দ্বারা সম্ভব।

KineMaster আপনারা ফ্রীতেই ব্যবহার করতে পারবেন। কিন্তু, watermark সরিয়ে ফুল প্রিমিয়াম ফিচারস এর জন্য আপনার এই app প্লে স্টোর থেকে কিনতে হবে। হে, গুগলে সার্চ করলে আপনারা অনেক ওয়েবসাইট পাবেন যেখান থেকে KineMaster pro full version আপনারা ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবেন।

৭. Magisto – editor & slideshow maker

Magisto একটি award winning ফ্রি এডিটর app. এর ব্যবহার করে কেবল ৩ টি স্টেপ এই আপনারা আকর্ষিত প্রফেশনাল ভিডিও বানিয়ে নিতে পারবেন নিজের ইউটিউব চ্যানেলের জন্য। প্রায় ১০০ মিলিয়ন লোকেরা এই app নিজের মোবাইলে ইনস্টল করেছেন। AI ফাঙ্কশন ব্যবহার করে আপনারা automatically কিছু না করেই ভিডিও বানিয়ে নিতে পারবেন। কিন্তু, আগে আপনার একটি ভিডিও বা ফটো নিজের মোবাইল থেকে বেঁচে নিতে হবে। তারপর, একটি ভিডিও স্টাইল (video style) বেছেনিতে হবে। এর পর সবটাই নিজে নিজে হয়ে যাবে।

আমাদের শেষ কথা,

তাহলে বন্ধুরা, আপনারা যদি ইউটিউবের জন্য মোবাইলেই ভিডিও এডিট করতে চান এবং কম্পিউটারের মতো প্রফেশনাল ভিডিও তৈরি করতে চান, তাহলে ওপরে দেয়া ৭ টি এডিটিং এপস ব্যবহার করতে পারেন। এই এপস গুলি ফ্রীতেই ব্যবহার করতে পারবেন এবং এগুলি অনেক শক্তিশালী ভিডিও মেকার এপস।

Also read

 

Related Contents: