জেনেনিন বিটকয়েন আয় করার সহজ উপায় – (বিট কয়েন ইনকাম)

ফ্রীতে বিট কয়েন ইনকাম: ২০০৯ সালে যখন বিটকয়েনকে (Bitcoin) প্রথম ওপেন মার্কেটে ছাড়া হয়েছিল তখন এটি এতো বিপুল জনপ্রিয়তা লাভ করবে তা হয়তো আবিষ্কারক সাটোশি নাকামোটো নিজেও কল্পনা করতে পারেননি।

বিট কয়েন ইনকাম
How to earn bitcoin online free ?

কেননা বর্তমান সময়ে এসে বিটকয়েন ক্রিপ্টোকারেন্সি দুনিয়ার সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় এবং ব্যবহৃত ডিজিটাল মুদ্রায় পরিণত হয়েছে।

তাই আজ প্রত্যেকেই, কিভাবে বিটকয়েন আয় করা যায় ? বিটকয়েন কিভাবে ইনকাম করবো ? এই ধরণের প্রশ্ন গুলো করছেন।

বিশ্বব্যাপী মানুষের মধ্যে লেনদেনের মাধ্যম হিসেবে পরিচিত এই ডিজিটাল মুদ্রাটির মূলত কোন কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক বা দেশীয় প্রশাসক ছাড়াই কাজ করে।

আরো সোজা ভাবে বললে, কোনো মধ্যবর্তী মাধ্যম ছাড়াই ব্যবহারকারীদের মধ্যে সরাসরি সঞ্চালিত হয় বিটকয়েন নেটওয়ার্কিং।

মাইনিং প্রসেসের মাধ্যমে নির্মিত বিটকয়েনকে – দেশীয় লিকুইড কারেন্সি, প্রোডাক্ট এবং বিবিধ পরিষেবা কেনার বিনিময়ে দেশ-বিদেশের বহু মানুষ এখন ব্যবহার করেছেন।

সে যাইহোক, তবে যদি আপনিও বিটকয়েন আয় করার উপায় খুঁজছেন, তাহলে বিটকয়েন উপার্জনের একাধিক সহজ উপায় বিদ্যমান আছে।

যদিও তার মধ্যে কিছু পন্থা খুব ব্যয়বহুল এবং ঝুঁকিপূর্ণও হতে পারে।

তাই আপনি যদি এই বিষয়ে আনকোরা হন এবং নগদ অর্থ খরচ না করেই বিটকয়েন পেতে চান তবে, বিটকয়েনে অর্থ প্রদান করে এমন অনলাইন রিওয়ার্ড সাইট অথবা অ্যাপগুলির সাথে সংযুক্ত হতে পারেন।

যদিও এই প্রক্রিয়া যথেষ্ট সময়সাপেক্ষ, তবে আপনি আরো কম সময়ে বিটকয়েন উপার্জনের উপায় খুঁজে থাকলে, অনলাইনে একাধিক ‘বিট কয়েন আর্নিং’ মোবাইল অ্যাপ আছে।

এগুলির ব্যবহার করার ক্ষেত্রে আপনাকে সারাক্ষন মোবাইল বা কম্পিউটারের মুখ গুঁজে থাকতে হবে না, আপনি অফলাইন থাকাকালীনও বিটকয়েক উপার্জন করতে পারবেন।

তবে এক্ষেত্রে প্রশ্ন হল কোন অ্যাপ ‘জেনুইন’ এবং ব্যবহারে ঝুঁকি নেই? আপনার এই প্রশ্নের উত্তর আমরা দেব।

এই প্রতিবেদনে বিনামূল্যে BTC ক্রিপ্টোকারেন্সি উপার্জনের জন্য সেরা ১১টি অ্যাপের বিশদ দেওয়া হল।

১১টি সেরা বিটকয়েন উপার্জনকারী অ্যাপ – (বিট কয়েন ইনকাম)

প্রথমেই একটা বিষয় পরিষ্কার করে বলে দেওয়া ভালো,

প্রতিবেদনে উল্লেখিত বিনামূল্যের অ্যাপ ব্যবহার করে অগাধ বিটকয়েন উপার্জন করার আশা না রাখাই ভালো।

আর যদি কোনো অ্যাপ দাবি করে যে, “কয়েকটি বাটন ক্লিক করলেই কয়েক শত বিটকয়েন উপার্জন করতে পারবেন”, তবে ভাববেন অ্যাপটি ভুয়ো।

তাই এরূপ অ্যাপ্লিকেশনকে এড়িয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেব আমরা।

তাই, বিটকয়েন কিভাবে ইনকাম করবো, এই প্রশ্নের উত্তরে নিচে দেওয়া এপস গুলো অবশই ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

• ক্রিপ্টোট্যাব (CryptoTab)
• সোয়েটকয়েন (Sweatcoin)
• ব্লকচেইন গেম (Blockchain Game)
• লনমাওয়ার (Lawnmower)
• এলিয়েন রান (Alien Run)
• ক্যাশপাইরেট (CashPirate)
• স্ট্রম প্লে (Storm Play)
• ক্রিপ্টো.কম (Crypto.com)
• ফিচারপয়েন্টস (FeaturePoints)
• হানিগেইন (Honeygain)
• পাওয়ান্স বা আইপিরয়াল (Pawns / IPRoyal)

১) ক্রিপ্টোট্যাব (CryptoTab) :

ক্রিপ্টোট্যাব হল একটি বিটকয়েন মাইনার, যেখানে আপনি কম্পিউটার বা মোবাইল ব্যবহার করে উপার্জন করতে পারবেন।

আপনি এই অ্যাপে প্রোফাইল সেট আপ করার সঙ্গে সঙ্গে এটি ব্যাকগ্রাউন্ডে মাইনিংয়ের কাজ শুরু করে দেবে।

এর দুটি সংস্করণ আছে – প্রো সংস্করণের জন্য আপনাকে ৪.৪৯ ডলার বা ৩৬৫ টাকা খরচ করতে হবে।

আর লাইট সংস্করণটি ফ্রি অ্যাক্সেস অফার করে। উভয় ভার্সন বিটকয়েন মাইন করার সুবিধা দেবে।

তবে প্রো ভার্সনে দ্রুত বিটকয়েন মাইন করার জন্য অধিক সুযোগ-সুবিধা প্রদান করা হয়।

যাইহোক এতে একটি লো পেআউট থ্রেশহোল্ড আছে।

যার দরুন মাত্র ০.০০০১ BTC উপার্জন করলেই ক্রিপ্টো ওয়ালেট থেকে আপনি বিটকয়েন উইথড্র করতে পারবেন।

২) সোয়েটকয়েন (Sweatcoin) :

সোয়েটকয়েন হল একটি অনন্য বিটকয়েন মাইনার প্ল্যাটফর্ম, যা Sweatcoin Ltd দ্বারা ডেভেলপ করা একটি ফিটনেস অ্যাপ।

এক্ষেত্রে, এই অ্যাপ ব্যবহারকারীরা প্রত্যহ ব্যায়াম করার বিনিময়ে ডিজিটাল বিটকয়েন উপার্জন করতে পারবেন।

আরো সোজা ভাবে বললে, অ্যাপটি আপনার দৈনিক অ্যাক্টিভিটি বা কার্যকলাপ ট্র্যাক করবে এবং পারফরম্যান্স অনুসারে কয়েন প্রদান করবে।

তাই, এবার নিজের স্বাস্থ্যের প্রতি নজর দিয়েই ফ্রীতে বিটকয়েন ইনকাম করা যাবে।

৩) ব্লকচেইন গেম (Blockchain Game) :

ব্লকচেইন গেমও একটি মাইনার অ্যাপ, যা বিকাশকর্তা বিটকয়েন এলিয়েনস (Bitcoin Aliens)।

আলোচ্য অ্যাপ্লিকেশনটি আপনাকে আরকেড ভিডিও গেম (মুদ্রা বিনিয়োগ-ভিত্তিক বিবিধ প্রকারের অনলাইন গেম) খেলার মাধ্যমে প্রকৃত বিটকয়েন উপার্জন করতে দেয়।

এখানে আপনার দ্বারা উপার্জিত ডিজিটাল কয়েনকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিটকয়েন ওয়ালেটে পাঠানো হবে।

৪) লনমাওয়ার (Lawnmower) :

লনমাওয়ার হল একটি হাব, যা ব্লকচেইন ডিজিটাল অ্যাসেটে বিনিয়োগে করার অনুমতি দেয়।

এক্ষেত্রে, এই অ্যাপটি আপনাকে ব্লকচেইন ইনভেসমেন্ট মার্কেটে প্রতিনিয়ত কী ঘটছে তা চেক করতে, আপনার নিজস্ব একটি ইনভেসমেন্ট অ্যাকাউন্ট খুলতে এবং আপনার ডিটিজাল কারেন্সি বা মুদ্রা ট্র্যাক ইত্যাদি কার্জকলাপ করতে দেবে।

৫) এলিয়েন রান (Alien Run) :

এলিয়েন রান একটি অ্যাডভেঞ্চার গেম। যেখানে আপনি গেম খেলার মাধ্যমে বিটকয়েন উপার্জন করতে পারবেন।

বিটকয়েন এলিয়েন্স দ্বারা অফার করা এই অ্যাপ্লিকেশনটি অ্যান্ড্রয়েড ৩.০ বা তার অধিক এবং আইওএস ৮.০ (iOS 8.0) বা তার থেকে উর্দ্ধতর সংস্করণের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ৷

৬) ক্যাশপাইরেট (CashPirate) :

ক্যাশপাইরেট হল অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের জন্য নিয়ে আসা একটি ফ্রি ‘বিটকয়েন আর্নিং’ অ্যাপ্লিকেশন।

যা ব্যবহার করে আপনি অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

এটি ব্যবহারকারীদের বিবিধ প্রকারের কাজ সম্পন্ন করার পরিবর্তে রিওয়ার্ড দিয়ে থাকে।

যেমন – একটি ফ্রি অ্যাপ ডাউনলোড করা, কোনো নির্দিষ্ট গেম ট্রায়াল দেওয়া, সার্ভে সম্পূর্ণ করা ইত্যাদি কাজ করতে বলা হবে আপনাকে এই অ্যাপে।

৭) স্ট্রম প্লে (Storm Play) :

স্ট্রম প্লে হল StormX Global SEZC.Inc দ্বারা ডেভেলপ করা একটি ক্রিপ্টোকারেন্সি অ্যাপ।

এই অ্যাপটি আপনাকে বিভিন্ন কোম্পানির পণ্য ব্যবহার করার বিনিময়ে রিওয়ার্ড হিসাবে ক্রিপ্টোকারেন্সি অর্জন করার অনুমতি দেয়।

৮) ক্রিপ্টো.কম (Crypto.com) :

ক্রিপ্টো.কম প্রকৃতপক্ষে একটি ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জ প্ল্যাটফর্ম। কিন্তু এটি বিটকয়েন উপার্জনেরও সুযোগ দেয়।

আলোচ্য প্ল্যাটফর্মটিকে নির্দিষ্ট কয়েক অ্যাপের সাথে সংযুক্ত করেও ব্যবহার করা যাবে।

এখান থেকে অর্থ উপার্জন করার জন্য আপনাকে যা করতে হবে তা হল –

আপনার বিটকয়েন বা অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সিকে এই প্ল্যাটফর্মে সংরক্ষণ করুন।

এক্ষেত্রে ব্যাঙ্কে টাকা রাখার পরিবর্তে যেমন সুদ দেওয়া হয়, তেমনি এখানেও বিটকয়েনের পরিমাণের উপর নির্ভর করে সুদ অফার করা হবে।

সর্বোপরি, ক্রিপ্টো.কম ক্যাশব্যাকও দিয়ে থাকে।

তাই আপনি যদি অনলাইনে কেনাকাটা করতে ভালোবাসেন,

তাহলে আপনি এই ক্যাশব্যাক ব্যবহার করে নিজের মাসিক খরচকে খানিকটা কমাতে পারবেন।

যাইহোক এটি অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএস উভয় ডিভাইসের সাথেই সামঞ্জস্যপূর্ণ।

৯) ফিচারপয়েন্টস (FeaturePoints) :

আরেকটি বিকল্প যেখানে আপনি বিনামূল্যে বিটকয়েন উপার্জন করতে পারেন তা হল ফিচারপয়েন্টস।

এই ‘গেট-পেইড-টু’ অ্যাপটিতে একবিধ বিকল্প অবলম্বনের মাধ্যমে উপার্জনের সুযোগ রয়েছে।

যেমন আপনি সার্ভে বা সমীক্ষায় জিজ্ঞেস করা প্রশ্নের উত্তর দিয়ে অথবা অ্যাপ ডাউনলোড ও ভিডিও দেখার মতো নানাবিধ কাজ করে ডিজিটাল কয়েন উপার্জন করতে পারেন।

ফিচারপয়েন্টস অ্যাপ ব্যবহারের ‘অ্যাডভান্টেজ’ হল এতে একটি লো-পেআউট থ্রেশহোল্ড আছে।

অর্থাৎ, আপনি যা উপার্জন করবেন তা স্বল্প সময়ের মধ্যে উইথড্র করে নিতে পারবেন।

আর আপনি যদি বিটকয়েন উপার্জন করতে না চান, তাহলেও সমস্যা নেই।

অ্যাপটি আপনার দ্বারা অর্জিত রিওয়ার্ডকে নগদ বা গিফট কার্ডে রূপান্তর করে দেবে।

এই অ্যাপটি অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএস উভয় ডিভাইসেই ইনস্টল-যোগ্য।

তবে আপনি চাইলে ল্যাপটপ থেকে এদের ওয়েবসাইটে লগ ইন করেও এই সকল টাস্ক পারফর্ম করতে পারবেন।

১০) হানিগেইন (Honeygain) :

হানিগেইন হল একটি প্যাসিভ ইনকাম অ্যাপ, যার মাধ্যমে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব।

কার্যকারিতার কথা বললে, আলোচ্য অ্যাপটিকে অব্যবহৃত ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ ব্যবহার করতে দিলে বিনিময় আপনাকে কিছু অর্থ অফার করা হবে৷

তবে এই টাকা পাওয়ার জন্য, আপনাকে প্রথমেই হানিগেইন অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল করে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে।

এই অ্যাপ – উইন্ডোজ, ম্যাক ওএস, লিনাক্স, অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএস সিস্টেমের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

প্রসঙ্গত জানিয়ে রাখি, উক্ত অ্যাপটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে কাজ করে। ফলে আপনাকে কোনো শ্রম দিতে হবে না।

হানিগেইন, আপনার দ্বারা শেয়ার করা প্রতি ১০এমবি ট্রাফিকের জন্য ৬টি ক্রেডিট দেবে।

এই বিশেষ সিস্টেমে, ১ডলার বা প্রায় ৮১ টাকা হল ১০০০ ক্রেডিটের সমান।

আপনি এই ক্রেডিট, নগদ বা বিটকয়েনের মতো ক্রিপ্টোকারেন্সিতে রূপান্তর করতে পারবেন।

তবে এর হাই থ্রেশহোল্ড আছে, যাকিনা ২০ডলার বা প্রায় ১,৬২৭ টাকা।

১১) পাওয়ান্স বা আইপিরয়েল (Pawns aka IPRoyal) :

এই অ্যাপটি হানিগেইনের মতো অনুরূপ কনসেপ্ট অফার করে।

বিটকয়েন উপার্জনের জন্য, আপনাকে অ্যাপটি ইনস্টল করে প্রোফাইল বানানো ছাড়া আর কিচ্ছু করতে হবে না।

এই অ্যাপের সুবিধা হল এতে লো পেআউট থ্রেশহোল্ড আছে, যা হল ৫ ডলার বা প্রায় ৪০৬ টাকা।

সুতরাং, হানিগেইনের তুলনায় অপেক্ষাকৃত কম সময়ে ক্রিপ্টো ওয়ালেটের মাধ্যমে অর্থ উইথড্র করতে সক্ষম হবেন আপনি।

অথবা আপনি PayPal -এর মাধ্যমে আপনার রিওয়ার্ডকে নগদেও রূপান্তর করতে পারবেন।

এই অ্যাপ শুধুমাত্র অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

 

আমাদের শেষ কথা,,

তাহলে বন্ধুরা, যদি আপনারাও কিভাবে বিটকয়েন আয় করা যায় এই বিষয়ে ভাবছেন, তাহলে ওপরে বলা ফ্রি বিট কয়েন ইনকাম উপায় গুলো আপনাদের কাজে অবশই আসবে।

আশা করছি, অনলাইনে ফ্রীতে বিটকয়েন আয় করার উপায় গুলো আপনাদের কাজে অবশই লাগবে।

আমাদের আজকের আর্টিকেল আপনাদের ভালো লেগে থাকলে, আর্টিকেলটি সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার অবশই করবেন।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top