ছাএ ছাএীদের জন্য অনলাইনে ইনকাম করার ৯টি উপায়: ২০২৪

আপনি একজন শিক্ষার্থী? অনলাইনে ঘরে বসে টাকা ইনকাম করার নানান উপায় গুলি খুঁজছেন? ছাএ ছাএীদের জন্য ইনকাম করার সেরা এবং ট্রাস্টেড উপায় গুলি কি যেগুলি বিনিয়োগ ছাড়া শুরু করা যাবে? চিন্তা করতে হবেনা, ছাত্রদের জন্য অনলাইনে টাকা ইনকাম করার কিছু সেরা এবং জনপ্রিয় উপায় গুলি নিয়ে আজকের এই আর্টিকেল আমি হাজির হয়েছি।

এই আর্টিকেলে, অনলাইনে অর্থ উপার্জনের কয়েকটি পরীক্ষিত এবং বিভিন্ন লোকেদের দ্বারা চেষ্টা করা নানান উপায় গুলির বিষয়ে আপনারা জানবেন।

মনে রাখবেন, ইন্টারনেট এমন একটি হাতিয়ার যেটিকে কাজে লাগিয়ে শিক্ষার্থীদের থেকে শুরু করে জেকেও নানান মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। তবে এটা সম্পূর্ণভাবে আপনার উপর, আপনি ইন্টারনেটের ব্যবহার কিভাবে করছেন।

আপনি চাইলে, ইন্টারনেটকে কাজে লাগিয়ে অবশই নিজের ছাত্র জীবনেও টাকা আয় করা করতে পারবেন, আবার চাইলে এই একই ইন্টারনেটের মাধ্যমে নিজের মূল্যবান সময় গুলি নষ্ট করতে পারবেন।

এমন অনেকেই আছেন, যারা শুরুতে পার্ট-টাইম হিসেবে অনলাইনে কাজ করে সামান্য ইনকাম করতেন যদিও, বর্তমান সময়ে একটি সফল অনলাইন ক্যারিয়ার গড়তে সক্ষম হয়েছেন।

ইন্টারনেটে খানিকটা ঘেটে দেখলেই বুঝতে পারবেন যে, কিভাবে হাজার হাজার লোকেরা অনলাইনে নানান মাধ্যমে কাজ করে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করছেন। তবে মনে রাখতে হবে যে, এরাও কিন্তু সেই শূন্য থেকেই শুরু করেছিলেন।

আসলে, আপনারা এই আর্টিকেলটি যেই ওয়েবসাইট বা ব্লগে পড়ছেন, আমার এই ব্লগটি প্রতি মাসে আমাকে প্রায় ৫০০ থেকে ৯০০ ডলার ইনকাম করে দিচ্ছে। আমি কিন্তু আমার এই ব্লগ সাইটে প্রতি সপ্তাহে কেবল ২-৩ দিন কাজ করি।

সত্যি বলতে, অনলাইনে ইনকাম করার অফুরন্ত সুযোগ রয়েছে এবং ছাএ ছাএীদের জন্য অনলাইনে ইনকাম করার সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হলো, আপনাকে সঠিক কাজটি খুঁজে বের করতে হবে এবং ঝটপট কাজে নেমে পড়তে হবে।

অবশই পড়ুন: অনলাইনে কোন কাজ শিখে সহজে ইনকাম শুরু করা যাবে?

ছাএ ছাএীদের জন্য টাকা ইনকাম করার সেরা উপায় কোনটি?

ছাএ ছাএীদের জন্য ইনকাম
Best Online income ways to earn money online for students.

শিক্ষার্থীদের জন্য টাকা ইনকামের সেরা উপায় বলতে সে আমার হিসেবে কিছু সেরা অনলাইন ইনকামের উপায় গুলির কথা বলা যেতে পারে। কেননা, যেকোনো অফলাইন কাজ বা চাকরিতে আপনাকে প্রচুর সময় দিতে হবে।

ছাত্রজীবনে পার্ট-টাইম চাকরি করার ক্ষেত্রে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অফলাইন কাজ গুলি পাওয়া যায়না। কেননা, offline jobs গুলি করার ক্ষেত্রে আপনি কলেজ এবং চাকরির মধ্যে সহজে ব্যালান্স করতে পারবেননা।

তবে, কলেজে পড়াশোনা করতে করতে যদি আপনি অনলাইনে একটি ভালো অনলাইন কাজ খুঁজে সেটিকে করতে থাকেন, সেক্ষেত্রে ছাত্রজীবনে টাকা ইনকাম করার পাশাপাশি ভবিষ্যতেও এই মাধ্যমে প্রচুর ইনকাম করতে পারবেন।

স্টুডেন্টদের জন্য অনলাইনে পার্ট-টাইম জব করার প্রচুর লাভ রয়েছে, যেমন –

  • প্রচুর বিকল্প রয়েছে: অনলাইনে টাকা ইনকাম করার ক্ষেত্রে আপনারা প্রচুর উপায়, বিকল্প, প্লাটফর্ম এবং ধারণা গুলি পাবেন।
  • খালি সময়ে কাজ: বেশিরভাগ অনলাইন কাজ গুলি আপনি নিজের খালি সময়ে করতে পারবেন।
  • যেকোনো জায়গা থেকে কাজ: আপনি নিজের ঘরে বসে বা অন্য যেকোনো জায়গাটা থেকে কাজ করার সুবিধা পাবেন।
  • প্রচুর ইনকামের সুযোগ: এমন নানান অনলাইন ইনকামের উপায় রয়েছে যেগুলির থেকে আনলিমিটেড ইনকাম করার সুযোগ পাওয়া যায়।

তাই দেখতেই পারছেন, ছাএ ছাএীদের জন্য অনলাইনে টাকা ইনকাম করার উপায়গুলি কেন লাভজনক ও সুবিধাজনক।

ছাএ ছাএীদের জন্য টাকা ইনকাম করার সেরা অনলাইন কাজ কোনটি?

একজন কলেজ ছাত্র হিসাবে অনলাইনে কাজ করে পার্ট টাইম টাকা উপার্জন করার ক্ষেত্রে আপনাকে কোনোভাবেই একজন বিশেষজ্ঞ বা এক্সপার্ট হতে হবে না। এছাড়া, বেশিরভাগ কাজ গুলিতেই আপনাকে কোনো রকমের টাকা বিনিয়োগ করতে হয়না।

তাই এই উপায় গুলিকে কাজে লাগিয়ে, কোনো বিনিয়োগ ছাড়া অনলাইনে টাকা আয় করা যেতে পারে।

একজন শিক্ষার্থী হিসেবে অনলাইনে ইনকাম করাটা কোনো রকেট সাইন্স না বললেও চলে।

এছাড়া, অনলাইনে ইনকাম করাটা বর্তমান সময়ে একটি স্কিল বা দক্ষতা হিসেবে দেখা হচ্ছে। আর একবার এই দক্ষতা বা স্কিল আপনার মধ্যে চলে আসলে, কলেজ জীবনের পর ভবিষ্যৎ জীবনেও প্রচুর কাজে লাগবে।

আমাকেই দেখুন, নিজের কলেজ জীবনে অনলাইনে ব্লগিং (blogging) করতে শুরু করেছিলাম, বর্তমান সময়ে এই দক্ষতা বা স্কিলকে কাজে লাগিয়ে নিজের খুশি মত কাজ করছি এবং full-time blogging করে অনলাইন থেকে নিয়মিত ইনকামও করছি।

এমনিতে, ব্লগ থেকে টাকা আয় কিভাবে করবেন? এই বিষয়েও আমি আপনাদের বিস্তারিত বলেছি।

ছাত্রজীবনে এই ৯টি অনলাইন মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারবেন:

অনলাইন কাজ:সুবিধা:কাজের ধরণ:
১. অনলাইন টিউটরিংকোনো টাকা না লাগিয়ে ইনকামঅনলাইনে টিউশনি করতে হয়।
২. অনলাইনে ছবি বিক্রিআনলিমিটেড কমিশন ইনকামছবি বিক্রি করতে হয়।
৩. GPT ওয়েবসাইটসাধারণ এবং সহজ কাজনানান ছোট ছোট কাজ করতে হয়।
৪. Google থেকে ইনকামপ্রচুর টাকা ইনকাম করা যায়টাকা উপার্জন করার একাধিক উপায়।
৫. পেইড সার্ভে সম্পূর্ণদিনে ২-৩ ঘন্টা কাজ করলে হয়সার্ভে সম্পূর্ণ করলে ইনকাম হয়।
৬. ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্মনিজের সুবিধামতো কাজ করা যায়দক্ষতা অনুজাই কাজ করতে হবে।
৭. কনটেন্ট রাইটিং কাজসহজে কাজ পাওয়া যাবেআর্টিকেল/কনটেন্ট লিখতে হয়।
৮. YouTube চ্যানেল তৈরিফ্রি টাইমে কাজ করা যাবেভিডিও বানিয়ে ছাড়তে হয়।
৯. Bloggingঅনলাইন ইনকামের বিশ্বস্ত উপায়ব্লগ বানিয়ে আর্টিকেল পাবলিশ করা।

১. অনলাইন টিউটরিং:

আপনি কি অন্যদের পড়াশোনা বা অন্যান্য কৌশল গুলি শেখাতে আগ্রহী? তাহলে অবশই অনলাইনে পড়াশোনা শেখানোর কাজ শুরু করতে পারেন। এর দ্বারা আপনি কোনো অতিরিক্ত টাকা বিনিয়োগ না করেই ঘরে বসে নিজের খালি সময়ে পার্ট-টাইম ইনকাম শুরু করতে পারবেন।

মনে রাখতে হবে, আপনি নিজের স্মার্টফোন বা একটি ল্যাপটপ দিয়েই অনলাইন ক্লাস করাতে পারবেন। কিভাবে অনলাইন ক্লাস শুরু করবেন, এই বিষয়ে এমনিতে আমি আগেই আপনাদের বলেছি।

এছাড়া, মনে রাখতে হবে যে অনলাইনে টিউশন ক্লাস করানোর জন্য আপনার মধ্যে যেকোনো একটি বা একাধিক বিশেষ বিষয়ের ভালো অভিজ্ঞতা, জ্ঞান ও দক্ষতা থাকতে হবে। যেমন, গিটার, তব্লা, গান, গণিত, বিজ্ঞান বা অন্যান্য।

অনলাইন টিউটর হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা:

  • ল্যাপটপ এবং ইন্টারনেটের সাধারণ ব্যবহার জানতে হবে।
  • কোনো বিশেষ বিষয়ে দক্ষ হতে হবে।
  • অন্যদের শেখানোর আবেগ বা রুচি থাকতে হবে।

আপনি চাইলে, Tutors.com-এর মতো ওয়েবসাইট গুলিতে গিয়ে online tutor jobs গুলি খুঁজতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে, ইংরেজি ভাষা আপনাকে অবশই জানতে হবে।

২. অনলাইনে ছবি বিক্রি করে ইনকাম:

ছাত্রদের টাকা ইনকাম করার নানান উপায় গুলির মধ্যে অনলাইনে ছবি বিক্রি করে ইনকাম করার এই উপায়টি সব থেকে অধিক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। কেননা, এক্ষেত্রে আপনাকে কেবল ভালো ভালো HD quality images গুলি তুলতে হয় এবং অনলাইনে বিক্রি করতে হয়।

তাই, যদি আপনার সাধারণ ছবি তোলার কৌশল গুলি জানা আছে এবং ছবি তুলতে আপনি পছন্দ করেন, তাহলে এই কাজ শুরু করতে পারবেন।

আপনি চাইলে নিজের স্মার্টফোন দিয়েও ছবি তুলে সেগুলি বিক্রি করতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে, আপনার স্মার্টফোনের ক্যামেরা কোয়ালিটি ভালো হতে হবে এবং মোবাইল দিয়ে ভালো ছবি তোলার নিয়ম ও কৌশল গুলি জানতে হবে।

অনলাইনে ছবি বিক্রি করার ক্ষেত্রে আপনাকে ব্যবহার করতে হবে, অনলাইনে ছবি বিক্রি করার ওয়েবসাইট গুলি। এই ধরণের ওয়েবসাইট গুলিকে Stock Image Website বলেও বলা হয়।

অনলাইনে ছবি বিক্রি করার সেরা কিছু ওয়েবসাইট গুলি হলো, Getty Images, Alamy, 500px, Foap, Adobe Stock, এবং আরো আছে।

ছবি বিক্রির জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা:

  • ছবি তোলার সাধারণ নিয়ম ও কৌশল জানতে হবে।
  • ক্রিয়েটিভ হয়ে ইউনিক ছবি তুলতে হবে।
  • হাই কোয়ালিটি ছবি তুলতে হয়।
  • একটি বা একাধিক ছবি বিক্রির সাইটে একাউন্ট তৈরি করতে হবে।

আমার হিসেবে, ছাএ ছাএীদের জন্য সহজে টাকা ইনকাম করার এটা একটি অনেক দারুন, কার্যকর এবং বিশ্বস্ত উপায় গুলির মধ্যে একটি।

৩. GPT ওয়েবসাইট থেকে ইনসিমে:

ইন্টারনেটে এমন প্রচুর GPT (Get Paid To) ওয়েবসাইট গুলি আছে যেগুলিকে কাজে লাগিয়ে খুব সহজে অনলাইনে ইন্টারনেট থেকে টাকা ইনকাম করা যেতে পারে। এই ধরণের টাকা ইনকাম করার সাইট গুলিতে নানান মাধ্যমে ইনকাম করা যেতে পারে।

যেমন ধরুন, গেম এবং অ্যাপস ডাউনলোড বা ব্যবহার করা, ভিডিও দেখা, বিজ্ঞাপন দেখা, পেইড সার্ভে সম্পূর্ণ করা, এমনকি রেফার করেও টাকা ইনকাম করা যেতে পারে।

মনে রাখা দরকার, এই ধরণের Get Paid To Website গুলির মধ্যে কাজ করে বেশি টাকা ইনকাম করতে পারবেননা। সাধারণ পকেট মানি আয় করার ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারবেন এই সাইট গুলি।

কিছু সেরা এবং জনপ্রিয় GPT (Get Paid To) website গুলি হলো, InboxDollars, Swagbucks, PrizeRebel, ySense, QuickRewards, এবং আরো আছে।

এই ধরণের বিদেশি ইনকাম সাইট গুলির থেকে ইনকাম করা টাকা তুলার জন্য আপনারা Gift cards এবং PayPal এর মতো উপলব্ধ অপসন গুলি ব্যবহার করতে পারবেন।

GPT সাইট থেকে ইনকামের জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা:

  • সাধারণ ইন্টারনেটের ব্যবহার জানা থাকতে হবে।
  • PayPal একাউন্ট থাকলে টাকা তুলতে সুবিধা হয়।
  • একটি বা একাধিক GPT website-এ একাউন্ট তৈরি করতে হবে।

৪. Google থেকে ইনকাম করুন:

Google থেকে টাকা ইনকাম করার এমন নানান উপায় গুলি রয়েছে যেগুলি সম্পূর্ণ ভাবে বিস্বস্ত এবং যেগুলি ব্যবহার করে অনলাইনে প্রচুর টাকা ইনকাম করা যেতে পারে।

এক্ষেত্রে, ছাএ ছাএীদের জন্য ইনকাম শুরু করার সব থেকে অধিক কার্যকর ও দারুন উপায় গুলির মধ্যে কিছু হলো, Blogger.com, YouTube, Google AdSense এবং AdMob, PlayStore-এর মতো Google-এর platform গুলি।

এই উপায় গুলি ব্যবহার করে টাকা আয় করতে খানিকটা সময় এবং অনেক স্মার্ট ওয়ার্ক এর প্রয়োজন আছে যদিও, নিজের কলেজ এবং পড়াশোনার পাশাপাশি যেকোনো একটি প্লাটফর্ম সিলেক্ট করে আরামে কাজ শুরু করা যাবে।

এমনিতে, কিভাবে ইউটিউব থেকে টাকা আয় করা যায় এবং AdMob থেকে ইনকাম করার উপায় কি, সবটা আগেই আপনাদের বলেছি।

এছাড়া ছাত্র ছাত্রীরা, Google-এর blogger.com ওয়েবসাইট বিল্ডার প্লাটফর্মটি ব্যবহার করে সম্পূর্ণ ফ্রীতে নিজের একটি ব্লগ সাইট তৈরি করে সেখানে Google AdSense-এর বিজ্ঞাপন দেখিয়ে অনলাইনে নিয়মিত ইনকাম করার সুযোগ পেতে পারবেন।

গুগল থেকে ইনকাম করার লাভ ও সুবিধা:

  • ট্রাস্টেড এবং সেফ অনলাইন ইনকামের উপায়।
  • অনলাইনে আনলিমিটেড টাকা ইনকামের সুযোগ পাওয়া যায়।
  • কাজ গুলি পার্ট-টাইম হিসেবে শুরু করা যাবে।
  • ছাএ ছাএীদের জন্য অনলাইনে ইনকাম শুরু করার সেরা উপায়।

৫. পেইড সার্ভে সম্পূর্ণ করুন:

যদি আপনি একজন স্টুডেন্ট এবং নিজের মোবাইলকে কাজে লাগিয়ে পাসরত-টাইম টাকা ইনকাম করতে চাইছেন, তাহলে এই পেইড সার্ভে সম্পূর্ণ করার কাজটি অবশই করতে পারেন।

এক্ষেত্রে আপনাকে নানান প্রতিদিন একটি বা একাধিক সার্ভে সম্পূর্ণ করার ওয়েবসাইট গুলিতে গিয়ে ১ থেকে ২ ঘন্টা কাজ করতে হবে। আপনাকে মূলত নানান সার্ভে গুলিকে ওপেন করে সেগুলিকে সঠিক ভাবে জমা দিতে হয়।

আমরা আগেই, এই পেইড সার্ভে সম্পূর্ণ করে টাকা ইনকাম করার উপায়টি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

তাই, এখানে কেবল এতটুকু জেনে রাখুন যে সার্ভে গুলিতে আপনাকে নানান কোম্পানি, ব্র্যান্ড বা পণ্যের বিষয়ে কিছু প্রশ্ন করা হবে। আপনাকে নিজের মতামত, উত্তর এবং পরামর্শ গুলি জমা দিতে হয়।

সেরা কিছু পেইড সার্ভে করে ইনকাম করার ওয়েবসাইট গুলি হলো, Survey Junkie, Swagbucks, ySense, Surveytime – Earn Cash Rewards, এবং আরো আছে।

ইনকাম করার জন্য কি কি করতে হবে?

  • একটি বা একাধিক ভালো ও বিশ্বস্ত সার্ভে সাইটে একাউন্ট তৈরি করুন।
  • প্রতিদিন ওয়েবসাইটে ভিসিট করুন।
  • চলে আসা নতুন নতুন সার্ভে গুলি সম্পূর্ণ করুন।
  • ইনকাম করা রিওয়ার্ড/টাকা গুলি পেপাল বা অন্যান্য মাধ্যমে রেডিম করুন।

৬. ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম:

ইন্টারনেটে এমন প্রচুর ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম/ওয়েবসাইট গুলি আছে যেগুলিতে গিয়ে জেকেও নিজের পছন্দ মতো কাজ গুলি খুঁজতে পারবেন এবং সেগুলিকে সময় মতো সম্পূর্ণ করে নিয়মিত ইনকাম করার সুযোগ পাবেন।

আমার হিসেবে, ফ্রিল্যান্সিং হল একজন ছাত্র হিসাবে টাকা উপার্জন করার সেরা উপায়। যখনই অনলাইনে রিয়েল কাজ করে রিয়েল টাকা ইনকাম করার কথা চলে আসবে, তখন সবচেয়ে প্রথমে freelancing-এর বিষয়টা প্রত্যেকের নজরে চলে আসে।

এই সেরা ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস বা সাইট গুলিতে আপনারা নানান বিষয়ক কাজ গুলি পেয়ে যাবেন। যেমন, Programming, Web development, Design, কনটেন্ট রাইটিং, ডাটা এন্ট্রির কাজ, ইত্যাদি নানান কাজ গুলি পাবেন।

Freelancing-এর মাধ্যমে ইনকাম শুরু হতে কিছুটা সময় অবশই লাগবে। তবে, নিজের একটি ভালো পরিচয় এবং পোর্টফোলিও তৈরি করতে পারলে, ধীরে ধীরে প্রচুর কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা থাকছে।

কিছু সেরা ফ্রীল্যান্কিং মার্কেটপ্লেস গুলি হলো, Fiverr, Freelancer, Upwork, Guru, এবং আরো আছে। যদি ছাএ ছাএীরা Freelancing করে টাকা ইনকাম করতে চান, তাহলে Fiverr কি এবং কিভাবে ইনকাম করবেন, এই বিষয়ে অবশই জেনে রাখুন।

অবশই পড়ুন:

৭. কনটেন্ট রাইটিং কাজ:

একজন কনটেন্ট রাইটার হিসেবে আপনাকে নানান websites, blogs, articles, social media বা অন্যান্য online platform গুলির জন্য লিখিত উপাদান (কনটেন্ট) তৈরি করতে হয়।

আলাদা আলাদা ওয়েবসাইট, ব্লগ বা কোম্পানির জন্য আপনাকে হয়তো আলাদা আলাদা ধরণের কনটেন্ট বা আর্টিকেল লিখতে হতে পারে। যেমন, তথ্যপূর্ণ, প্রচারমূলক, বা বিনোদনমূলক কনটেন্ট।

যদি আপনি একজন ছাত্র এবং পড়াশোনার পাশাপাশি পার্ট-টাইম ইনকাম করার কথা ভাবছেন, এক্ষেত্রে একজন কনটেন্ট রাইটার হিসেবে কাজ করতে পারবেন। দিনে কেবল ১ থেকে ২ ঘন্টা কাজ করলেই যথেষ্ট।

যেকোনো ওয়েবসাইট বা কোম্পানির জন্য কনটেন্ট লিখার জন্য আপনার মধ্যে আর্টিকেল লিখার সাধারণ জ্ঞান এবং কৌশল অবশই থাকতে হবে। তবে, ইউটিউবের মাধ্যমে ফ্রীতে কনটেন্ট রাইটিং স্কিল গুলি শিখে নিতে পারবেন।

পড়াশোনার সাথে সাথে অনলাইনে প্রতিদিন ৪০০ ৫০০ টাকা ইনকাম করার এটা অনেক কার্যকর একটি উপায়। এক্ষেত্রে, কাজ পেতে আপনারা নানান অনলাইন প্লাটফর্ম গুলির সাহায্য নিতে পারবেন।

যেমন ধরুন, LinkedIn, Facebook, Blog contact page এবং নানান freelancing marketplace গুলি ব্যবহার করে কাজ পাওয়া যায়।

কনটেন্ট রাইটিং এর কাজের জন্য কিসের প্রয়োজন?

  • হাই কোয়ালিটি আর্টিকেল লেখার দক্ষতা,
  • তথ্য সংগ্রহ করার ক্ষমতা থাকতে হবে,
  • আসল এবং আকর্ষক বিষয়বস্তু তৈরির ক্ষমতা,
  • সময় মতো আর্টিকেল লিখে ক্লায়েন্টদের জমা দেওয়া।

৮. YouTube চ্যানেল:

বর্তমান সময়ে জেকেও নিজের একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে রাতারাতি ধনী হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। কিন্তু মনে রাখা দরকার যে, ২০২৪ সালে ইউটিউবে চ্যানেল তৈরি করে এতটা সহজে subscribers, views এবং AdSense income পাওয়াটা সম্ভব না।

তবে, ইউটিউবের থেকে ইনকাম করাটা অসম্ভব না। দিনে ২ থেকে ৩ ঘন্টা সময় যদি আপনার হাতে আছে, সেক্ষেত্রে আপনি একটি ভালো এবং ইউনিক বিষয় নিয়ে নিজের একটি চ্যানেল তৈরি করতে পারেন।

নিজের চ্যানেলে নিয়মিত ভিডিও আপলোড করে ভালো ভাবে কাজ করতে পারলে, অবশই আপনিও এখানে ইনকাম করার সুযোগ পেতে পারবেন।

যখন ছাত্রদের জন্য অনলাইনে পার্ট-টাইম ইনকামের সেরা উপায় গুলির কথা বলা হয়ে থাকে, তখন ইউটিউব চ্যানেলের বিষয়টা অবহেলা করলে চলেনা। কেন ইউটিউব ঘরে বসে অনলাইনে টাকা ইনকামের সেরা উপায়? আমার এই আর্টিকেলটি পড়লে ভালো ভাবে বিষয়টা বুঝতে পারবেন।

ইউটিউব থেকে ইনকাম করার জন্য কিসের প্রয়োজন?

  • একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে হবে।
  • কোন বিষয়ে চ্যানেল এবং ভিডিও বানাবেন সেটা নিশ্চিত করা জরুরি।
  • দিনে অন্তত ২-৩ ঘন্টা বের করতে হবে এবং ভিডিও তৈরি করতে হবে।
  • চ্যানেলে প্রতি মাসে কমেও ১০ থেকে ১২ ভিডিও আপলোড করতে হবে।
  • ইন্টারনেট এবং একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ থাকতে হবে।

অবশই পড়ুন:

৯. Blogging:

ছাত্রদের জন্য ব্লগিং হতে পারে একটি অনেক কার্যকর এবং লাভজনক অনলাইন ইনকাম পদ্ধতি। একটি ব্লগ তৈরি করে একজন ছাত্র নিজের ধারণা, অভিজ্ঞতা এবং দক্ষতা গুলি শেয়ার করার পাশাপাশি একাধিক মাধ্যমে নিজের ব্লগ সাইট থেকে ইনকামও করতে পারবেন।

একটি ব্লগ সাইট শুরু করার খরচ অনেক কম, এছাড়া কোনো টাকা না লাগিয়েও ব্লগ তৈরি করার একাধিক উপায় গুলি রয়েছে।

ব্লগ সাইট কিছুটা জনপ্রিয়তা লাভ করলেই সেখানে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে, এফিলিয়েট মার্কেটিং করে, পণ্য প্রচার করে এবং অন্যান্য নানান মাধ্যমে ইনকাম করা যেতে পারে।

বেশিরভাগ ছাত্ররাই কলেজে পড়াকালীন নিজের একটি ব্লগ সাইট তৈরি করে কাজ শুরু করেন। এভাবে প্রায় ৬ মাস থেকে ১ বছর নিয়মিত কাজ করার পর তারা কিছুটা টাকা আয় করার সুযোগ পেয়ে থাকেন।

ছাত্ররা ব্লগিং করে কিভাবে ইনকাম করবেন?

  • একটি ব্লগ সাইট তৈরি করতে হবে।
  • কোন বিষয়ে লিখতে আপনি উত্সাহী সেটা বুঝুন।
  • SEO কি? বেসিক এসইও স্কিল গুলির বিষয়ে জানুন।
  • নিজের পছন্দের বিষয়ে নিয়মিত আর্টিকেল লিখে ব্লগে পাবলিশ করুন।
  • ব্লগে নিয়মিত ট্রাফিক/ভিসিটর্স আসতে শুরু করলে এডসেন্সের মাধ্যমে ইনকাম করুন।

FAQ: ছাত্রদের জন্য ইনকাম টিপস:

১. একজন ছাত্র হিসেবে আমি কিভাবে ইনকাম করবো?

আপনি, freelancing, অনলাইন টিউশনি করানো, ব্লগিং, অনলাইনে সার্ভে সম্পূর্ণ করে, অনলাইনে ছবি বিক্রি করে, ক্লায়েন্টদের জন্য আর্টিকেল লিখে, ইত্যাদি নানান মাধ্যমে ইন্টারনেট থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।

২. ছাত্র ছাত্রীরা কি ফ্রিল্যান্সিং করে ইনকাম করতে পারবেন?

অবশই পারবেন, সত্যি বলতে বর্তমান সময়ে বিশ্বজুড়ে হাজার হাজার ছাত্রছাত্রীরা ফ্রিল্যান্সিং করেই নিয়মিত অনলাইন পার্ট-টাইম ইনকাম করছেন। আমার হিসেবে, ফ্রিল্যান্সিং হল এমন একটি সেরা পেশা যেটা সত্যি কার্যকর ও ট্রাস্টেড।

৩. ছাত্র ছাত্রীদের জন্য ব্লগিং কি একটি ভাল ক্যারিয়ার?

অবশই হ্যা, ব্লগিং অনলাইনে পার্ট-টাইম এবং ফুল-টাইম ইনকামের একটি প্রমাণিত এবং কার্যকর উপায় গুলির মধ্যে আরেকটি।

4 thoughts on “ছাএ ছাএীদের জন্য অনলাইনে ইনকাম করার ৯টি উপায়: ২০২৪”

  1. Avatar

    আমি বাংলা ভাষায় ভালো লিখতে এবং পড়তে পারি এবং আপনার ব্লগে ভিজিটর কেমন আসে? এবং ইনকাম কেমন হয়? সবকিছু নিয়ে একটা ধারণা দিলে ভালো হতো

    1. Avatar

      বাংলা ব্লগ নিয়ে কাজ করতে পারেন, তবে বাংলা ব্লগ থেকে ইনকাম করার জন্য finance, banking, loan, apps, mobile, এই ধরণের niche গুলিতে কাজ করলে ভালো। আপনাকে শুধুমাত্র একটি বিশেষ বিষয়ে ফোকাস রেখে ব্লগ তৈরি করতে হবে। এছাড়া, বাংলা ব্লগেও ভালো পরিমানে ট্রাফিক আসে। ইনকাম তেমন বেশি হয়না যদিও কম্পেটিশন কম।

  2. Avatar

    আমি ব্লগিং শুরু করবো কোন ভাষায় ব্লগিং করা উচিত হবে

    1. Avatar

      যেকোনো ভাষায় blogging শুরু করে ইনকাম করা যায়। তবে, আপনি যেই ভাষায় ভালো ভাবে লিখতে ও পড়তে জানেন, সেই ভাষাতেই ব্লগ তৈরি করার পরামর্শ দিবো।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top