একটি নতুন স্মার্ট টিভি কেনার আগে কোন কোন বিষয়ে যাচাই করবেন ?

একটি স্মার্ট টিভি কেনার আগে কোন কোন বিষয়ে যাচাই করাটা জরুরি ? কি কি দেখতে হবে ? প্রত্যেকটি বিষয়ে নিচে আমরা আলোচনা করতে চলেছি।

Smart tv buying guide in Bangla

বর্তমান সময়ে প্রায় প্রত্যেকের ঘরেই একটি স্মার্ট টিভি রয়েছে।

আর যারা যারা বর্তমানে একটি নতুন টিভি কেনার কথা ভাবছেন তারা অবশই একটি স্মার্ট টিভি কিনে নিচ্ছেন।

এখনের সময়ে প্রায় প্রচুর কোম্পানির স্মার্ট টিভি গুলো বাজারে রয়েছে।

প্রত্যেক কোম্পানির আলাদা আলাদা স্মার্ট টিভির মডেল রয়েছে এবং প্রত্যেক মডেলে আলাদা আলাদা ফিচার, ফাঙ্কশন এবং সুবিধা রয়েছে।

তাই, কোন কোম্পানির স্মার্ট টিভি ভালো ? কোনটা নিবেন ? ইত্যাদি বিভিন্ন ধরণের প্রশ্ন আপনার মাথায় চলে আসতেই পারে।

এক্ষেত্রে, যখন আপনি একটি নতুন স্মার্ট টিভি কিনতে যাচ্ছেন, তার আগেই আপনাকে কিছু সাধারণ জিনিসের বিষয়ে জেনে রাখাটা দরকার।

এনাহলে, একটি ভালো স্মার্ট টিভি কেনার ক্ষেত্রে আপনি লাভবান কখনোই হতে পারবেননা।

মনে রাখবেন, দোকানে টিভি কিনতে গেলে দোকানের মালিক তার নিজের লাভ দেখেই আপনার কাছে টিভি বিক্রি করার চেষ্টা করবেন।

তাই, সঠিক দামের মধ্যে একটি ভালো স্মার্ট টিভি কোনটি সেটা যাচাই করার নিয়ম গুলো আপনার জেনে রাখা দরকার।

তাহলে চলুন, নিচে আমরা সরাসরি সেই প্রত্যেকটি টিপস এবং নিয়ম গুলো জেনেনি যেগুলো একটি স্মার্ট টিভি কিনে নেওয়ার আগে আপনার জেনে রাখাটা জরুরি।

স্মার্ট টিভি কেনার আগে কোন বিষয়ে ধ্যান রাখবেন ?

যদি আপনি বাজারে একটি নতুন ও ভালো smart tv খুঁজছেন তবে নতুন প্রযুক্তি নিয়ে যদি আপনার কোনো ধরণের জ্ঞান নেই, তাহলে টিভি কেনার ক্ষেত্রে আপনার প্রচুর সমস্যা হতে পারে।

তাই, আজকের এই আর্টিকেল ভালো করে পড়লে একটি smart tv কেনার ক্ষেত্রে আপনারা সঠিক নির্ণয় নিতে পারবেন।

স্মার্ট টিভি তো বিভিন্ন দামে এবং বিভিন্ন features এর সাথে আপনারা বাজারে পেয়ে যাবেন।

তবে, সঠিক দামে একটি সেরা টিভি কেনার ক্ষেত্রে আপনাকে অনেক কিছুই যাচাই করে দেখতে হবে।

এখনের সময়ে স্মার্ট টিভি নিয়ে প্রত্যেক কোম্পানি গুলোর মধ্যে দারুন প্রতিযোগিতার (competition) সৃষ্টি হয়েছে।

আর এটাই কারণ, যার জন্য আলাদা আলাদা কোম্পানি গুলো অনেক কম দামের মধ্যে ভালো মানের টিভি বাজারে নিয়ে এসেছে।

তাই, আপনার কাছে বিভিন্ন স্মার্ট টিভি কোম্পানি এবং মডেল গুলোর বিকল্প অবশই রয়েছে।

১. কোন ব্র্যান্ডের টিভি ভালো

দেখুন, বাজারে আপনারা প্রচুর আলাদা আলাদা ব্র্যান্ড এর টিভি দেখতে পাবেন।

তবে, কোন ব্র্যান্ড এর টিভি ভালো বা কোনটা খারাপ সেটা সরাসরি বলা সম্ভব না।

তবে, আমি পরামর্শ দিবো কিছু জনপ্রিয় টিভি ব্র্যান্ড গুলোর থেকেই যাতে আপনি টিভি কিনে থাকেন।

কারণ, যেকোনো ব্র্যান্ড কেবল তখন অধিক জনপ্রিয়তা পেয়ে থাকে যখন সেই ব্র্যান্ড এর সার্ভিস, প্রোডাক্ট কোয়ালিটি এবং ফীচার অনেক ভালো থেকে থাকে।

তাই বাজারে এরকম অনেক জনপ্রিয় টিভি কোম্পানি রয়েছে যেগুলোর সাথে আপনি যেতে পারেন।

যেমন, Samsung, LG, Panasonic, MI, Redmi, Nokia, Sony ইত্যাদি।

এছাড়া, ইন্টারনেটে আলাদা আলাদা কোম্পানি গুলোর রিভিউ (review) দেখেও আপনি কোম্পানিটি ভালো না খারাপ সেটা জেনেনিতে পারবেন।

এমনিতে বর্তমান সময়ে প্রচুর নতুন নতুন কোম্পানি গুলো চলে আসছেন যারা অনেক কম দামেই LED smart TV লঞ্চ করছেন।

তবে, কোনো নতুন কোম্পানির থেকে টিভি নেওয়ার আগে অবশই অনলাইন রিভিউ দেখবেন এবং আপনার শহরে সেই কোম্পানির সার্ভিস সেন্টার আছে কি না সেটাও আপনাকে দেখতে হবে।

২. ডিসপ্লে

একটি টিভি নিয়ে যখন কথা বলা হচ্ছে তখন তাতে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস বা অংশটি হলো ডিসপ্লে (display).

আপনার টিভির ডিসপ্লে কেবল এই জিনিস টির ওপরেই নির্ভর করছে যে আপনি কিরকম ডিসপ্লে থাকা টিভি কিনেছেন।

মনে রাখবেন, আলাদা আলাদা রকমের টিভি গুলোতে ডিসপ্লে আলাদা আলাদা রকমের হতে পারে।

ডিসপ্লে টাইপ (display type) সেই প্রযুক্তির সাথে জড়িত যার মাধ্যমে টিভি স্ক্রিনে পিকচার প্রডিউস হয়ে থাকে।

তাই, আপনার টিভির ডিসপ্লে কোয়ালিটি যতটাই ভালো থাকবে, ততটাই স্পষ্ট, পরিষ্কার এবং আকর্ষণীয় ভাবে পিকচার গুলো দেখানো হবে।

বর্তমান সময়ে ৩ টি আলাদা আলাদা রকমের ডিসপ্লে টাইপ গুলো রয়েছে।

  • LED
  • OLED
  • QLED

এই তিনটি ক্ষেত্রেই LED টেকনিক এর ব্যবহার হয়ে থাকে তবে এদের মাধ্যমে তৈরি হওয়া পিকচার এবং ইমেজ কোয়ালিটি আলাদা আলাদা হয়ে থাকে।

তবে, LED, OLED বা QLED কোন কোয়ালিটির ডিসপ্লে রয়েছে সেই হিসেবেই টিভির দাম কম বেশি হয়ে থাকে।

বেশিরভাগ LED টিভি গুলো বাজেট এর মধ্যে থেকে ভালো পিকচার কোয়ালিটি প্রদান করে থাকে।

তবে, যদি আপনি হাই কোয়ালিটির সিনেমাটিক পিকচার কোয়ালিটি চাইছেন তাহলে OLED বা QLED টিভির সাথে যেতে পারেন।

কেননা, picture quality, higher brightness, best viewing angle এর ক্ষেত্রে LED display র তুলনায় QLED এবং OLED সেরা।

তাই, টিভি কেনার আগেই আপনার টিভিতে কোন display type রয়েছে সেটা দেখে নিবেন।

৩. IPS vs non-IPS display

IPS display এমনিতে একটু অধিক দামী হয়ে থাকে যদিও এর display quality, viewing angles, colors অধিক ভালো।

এমনিতে IPS display গুলো দেখতেও অনেক আকর্ষণীয় এবং স্পষ্ট ডিসপ্লে দিয়ে থাকে।

যদি আপনি টিভির viewing angel নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন তাহলে IPS display আপনার জন্য ভালো হবে।

কেননা, এক্ষেত্রে আপনি ভালো viewing angel এর সাথে সাথে অধিক ভালো কালার ডেলিভারির সুবিধা পাবেন।

তবে, non-IPS display panel গুলোকে টিভির দাম কম রাখার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়।

তাই, বেসিরভাগ বাজেট স্মার্ট টিভি গুলোতেই non-IPS display panel আপনারা দেখতে পাবেন।

আর মনে রাখবেন, IPS display panel এর তুলনায় non-IPS display panel গুলো তুলনামূলক ভাবে তেমন ভালো কালার ডেলিভারি এবং viewing angel দিয়ে থাকতে পারেনা।

তাই, স্মার্ট টিভি যদি কেনার কথা ভাবছেন, তাহলে IPS display থাকা টিভি কেনার পরামর্শ আমি আপনাকে দিবো।

৪. Display view angle

এমনিতে Display view angle এর বিষয়ে ওপরে কিছুটা আমি আপনাদের বলেছি।

দেখুন, যখন বাজেট এর মধ্যে একটি ভালো স্মার্ট টিভি কেনার কথা চলে আসে তখন বাজারে আপনাকে বিভিন্ন টিভির মডেল গুলো দেখানো হয়।

তবে, প্রত্যেক বাজেট স্মার্ট টিভি গুলোর মধ্যে আলাদা আলাদা features, functions এবং options রয়েছে।

এবং এরকম একটি জরুরি feature এর নাম হলো Display view angle.

যদি আপনার টিভির viewing angle কম থাকবে বা উচ্চ মানের থাকবেনা তখন কিন্তু টিভির প্রত্যেক সাইড থেকে দেখলে আপনারা স্পষ্ট ভাবে image বা picture গুলো দেখতে পারবেননা।

অন্ধকার অন্ধকার ভাব হবে যখন আপনি দান বা বাম পাশ থেকে কোনাকুনি ভাবে টিভি দেখবেন।

মূলত, একেবারে টিভির সোজা সোজি বসে টিভি দেখলেই স্পষ্ট ভাবে picture brightness এবং image color গুলো দেখতে পারবেন।

তাই, অধিক কম বা খারাপ মানের viewing angel থাকলে আপনি কোনাকুনি থেকে টিভি দেখলে অন্ধকার দেখতে পাবেন।

এক্ষেত্রে, যখনি টিভি কিনতে যাবেন তখন সেই টিভিটির মডেলটি চালিয়ে কোনাকুনি ভাবে প্রথমেই দেখে নিন।

যদি ওপর-নিচ এবং দান-বাম প্রত্যেক কোনা থেকে টিভির picture, brightness এবং image স্পষ্ট ভাবে দেখা ও বোঝা যাচ্ছে, তাহলে সেই টিভিতে ভালো মানের viewing angel রয়েছে।

৫. Android smart Tv

এখন স্মার্ট টিভি বলতে বাজারে আপনারা মূলত দুধরণের স্মার্ট টিভি দেখতে পাবেন।

যেমন, একটি সাধারণ smart tv এবং একটি Android smart tv.

সাধারণ স্মার্ট টিভি গুলো লিনাক্স এর অপারেটিং সিস্টেম দ্বারা কাজ করে থাকে এবং এগুলোতে কেবল কিছু সিলেক্টেড এপস ইনস্টল করে দেওয়া হয়।

কোম্পানির দ্বারা দিয়ে দেওয়া এপস এবং সেবা গুলো ছাড়া আপনারা এই সাধারণ টিভি গুলোতে অন্যান্য কোনো ধরণের এপস বাইরের থেকে ইনস্টল করতে পারবেননা।

তবে, একটি এন্ড্রয়েড স্মার্ট টিভি সম্পূর্ণ ভাবে একটি এন্ড্রয়েড মোবাইলের মতোই কাজ করে থাকে।

এই ধরণের এলইডি স্মার্ট টিভি গুলোতে আপনারা নিজের থেকে Google play store এর মাধ্যমে যেকোনো এপস (apps) গুলো ডাউনলোড করে ইনস্টল করতে পারবেন।

টিভি দেখার সাথে সাথে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া এপস, অনলাইন স্ট্রিমিং এপস ইত্যাদি ডাউনলোড করে সেগুলোর আনন্দ নিতে পারবেন।

তাই, আজকাল প্রত্যেকেই স্মার্ট টিভি বলতে এন্ড্রয়েড স্মার্ট টিভি অধিক পছন্দ করে থাকেন। কেননা এর সুবিধা প্রচুর রয়েছে।

আপনি যখন দোকানে টিভি কিনতে যাবেন তখন অবশ্যই দোকানদার কে এন্ড্রয়েড স্মার্ট টিভি দেখানোর কথাটা স্পষ্ট করে বলে দিবেন।

এনাহলে, আপনাকে অধিক দাম নিয়ে একটি সাধারণ স্মার্ট টিভি দিয়ে দেওয়া হবে।

৬. ফিচার (features)

একটি স্মার্ট টিভির মধ্যে কিছু জরুরি ফিচার (features) গুলো থাকা অনেক জরুরি এবং একটি বাজেট স্মার্ট টিভিতে এগুলো থাকবে।

আপনার টিভিতে HDMI পোর্ট আছে কি না সেটা দেখুন এবং যদিও আছে তাহলে কয়টা।

HDMI পর এর মাধ্যমে আপনি আপনার টিভির সাথে multiple screen connect করতে পারবেন।

এছাড়া, যদি আপনি কখনো টিভিটি নিজের কম্পিউটার (PC) এর সাথে সংযুক্ত করে মনিটর হিসেবে ব্যবহার করতে চান, তাহলেও HDMI port এর প্রয়োজন হবে।

টিভিতে Pen-drive বা external hard drive connect করার জন্য slots রয়েছে কি না সেটা দেখুন।

এতে, আপনি নিজের pen-drive বা external hard disk এর মাধ্যমে চিনেমা বা গান গুলো নিজের টিভিতে দেখতে পারবেন।

এছাড়া, যদি আপনার টিভিতে Bluetooth এর feature দেওয়া রয়েছে তাহলে সেটাও আপনার কাজে আসবে বিভিন্ন ব্লুটুথ ডিভাইস গুলো টিভির সাথে কানেক্ট করার ক্ষেত্রে।

এছাড়া, cable বা DTH connection ছাড়া যাতে আপনারা প্রচুর movies, series, videos ইত্যাদি দেখতে পারেন তার জন্য কিছু জরুরি inbuild apps রয়েছে কি না সেটা দেখুন।

যেমন, Netflix, Prime Video, Disney+Hotstar, Zee5, Jio Cinema, Youtube ইত্যাদি।

এছাড়া অন্যান্য কিছু features যেমন,

  • Thin Bezels
  • Bluetooth Remote
  • Voice search with Google Assistant
  • Headphone Jack
  • Analog Audio Input
  • Built In Wi-Fi
  • Ethernet
  • Stereo Sound

ইত্যাদি এই ধরণের কিছু basic features গুলো থাকলে ভালো।

৭. সাউন্ড কোয়ালিটি

যেকোনো স্মার্ট টিভিতেই একটি সাউন্ড সিস্টেম থাকে যাতে ছবির সাথে সাথে সাউন্ড সেই টিভির থেকেই শোনা যেতে পারে।

এক্ষত্রে, আপনি যেই স্মার্ট টিভি কেনার কথা ভাবছেন সেই টিভির সাউন্ড কোয়ালিটি আগের থেকেই আপনাকে দেখতে হবে।

যদি টিভির মধ্যে থাকা স্পিকার পেছনের দিকে আছে তাহলে অবশই সেই টিভি থেকে ভালো সাউন্ড পাওয়া যাবেনা।

এছাড়া, অনেক স্মার্ট টিভি গুলোর মধ্যে speaker গুলো টিভির নিচের ভাগে তবে সামনের দিকে থাকে আর যার জন্য এই ধরণের টিভি গুলোর থেকে ভালো সাউন্ড পাওয়া যায়।

মনে রাখবেন, speaker এর watts যত বেশি থাকবে ততটাই অধিক বেশি এবং ভালো সাউন্ড সেই স্পিকার থেকে পাওয়া যাবে।

তাই এমন একটি টিভি কেনার চেষ্টা করবেন যেখানে কমেও 20 থেকে 30 watts এর speaker output রয়েছে।

এর সাথে সাথে stereo surround Sound থাকলে সেটা আরো ভালো অনুভব আপনাকে দিয়ে থাকবে।

৮. অনলাইন রিসার্চ

যখনি দোকানদার আপনাকে কোনো স্মার্ট টিভির মডেল দেখাবেন তখনি আপনাকে সেই টিভির অনলাইন রিভিউ দেখে নিতে হবে।

কেননা, অনলাইনে আপনারা সেই টিভির সাথে জড়িত প্রত্যেকটি features এবং function গুলোর বিষয়ে জেনেনিতে পারবেন।

এছাড়া, টিভির ডিসপ্লে কোয়ালিটি এবং সাউন্ড নিয়ে লোকেদের দেওয়া রিভিউ বা মতামত গুলো দেখেই আপনি বুঝে যাবেন যে দোকানদার আপনাকে ভালো টিভির মডেল দেখাচ্ছেন নাকি খারাপ।

এছাড়া, বিভিন্ন অনলাইন ই-কমার্স ওয়েবসাইট গুলোতে গিয়ে টিভির বর্তমান দাম দেখে নিতে পারবেন।

এভাবে অনলাইনে টিভির মডেলের দাম দেখে নিলে আপনি বুঝতে পারবেন যে দোকানদার আপনার থেকে অধিক দাম নিয়ে আপনাকে ঠকাচ্ছেন না তো।

আজকাল প্রচুর অনলাইন রিভিউ ওয়েবসাইট এবং ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে যেগুলোতে গিয়ে যেকোনো টিভির রিভিউ দাম ইত্যাদি সাথে সাথে দেখে নিতে পারবেন।

তাই, দোকানদার যেই যেই টিভির মডেল আপনাকে দেখাচ্ছেন সেগুলোর রিভিউ, গ্রাহকের মতামত এবং দাম অনলাইনে অবশই দেখে নিবেন।

 

আমাদের শেষ কথা,,

তাহলে বন্ধুরা, একটি ভালো স্মার্ট টিভি কেনার আগে আপনাকে কি কি দেখা দরকার ? কোন বিষয় গুলো জেনে রাখা দরকার ? সেই প্রত্যেকটি বিষয়ে আমি আপনাকে বললাম।

দেখুন, মাজারে বিভিন্ন কোম্পানির বিভিন্ন রকমের ভালো খারাপ টিভি উপলব্ধ রয়েছে।

তাই, দোকানদার সব সময় তার লাভ যেটাতে অধিক বেশি থাকবে সেটাই বিক্রি করানোর চেষ্টায় থাকবেন।

এক্ষত্রে, আপনাকে নিজে অল্প যাচাই করে খুঁটি নাটি গুলো দেখে একটি সেরা টিভি কেনার চেষ্টা করা দরকার।

কারণ, এতো টাকা দিয়ে টিভি আপনি সব সময় তো কিনতে যাবেননা।

তাই, আমাদের আজকের আর্টিকেল যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে, তাহলে আর্টিকেলটি অবশই শেয়ার করবেন।

এছাড়া, আর্টিকেলের সাথে জড়িত কোনো ধরণের প্রশ্ন বা পরামর্শ থাকলে নিচে কমেন্ট করে অবশই জানিয়ে দিবেন।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error:
Scroll to Top
Copy link
Powered by Social Snap