আমরা সবাই জানি যখন ব্লগে আর্টিকেল লেখা হয় তখন তাতে “অন পেজ এস ই ও (On page SEO)” করাটা অনেকটাই জরুরি। ব্লগের আর্টিকেল লেখার সময় তাতে SEO না করলে আপনার লেখা আর্টিকেল Google বা অন্য search engine গুলিতে প্রথম পেজে দেখানো হবেনা। এতে, আপার ব্লগে search engine থেকে ফ্রি অসংখক ট্রাফিক বা ভিসিটর্স আসার সুযোগ আপনি হারিয়ে ফেলবেন। অবশই আমি আপনাদের আমার আগের আর্টিকেলে “SEO মানে কি এবং কিভাবে করবেন” এ বেপারে ভালোকরে বুঝিয়ে দিয়েছি। কিন্তু তবুও এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের ব্লগে আর্টিকেল লেখার সময় তাতে ON PAGE SEO র ব্যবহার কিভাবে করবেন এ বেপারে ভালো করে বুঝিয়ে দেব। (On page SEO bangla tutorial step by step).

ব্লগের আর্টিকেলে search engine optimization করাটা বিশেষকরে keywords এবং এর ব্যবহারের কৌশলের ওপরে নির্ভর করে। এবং তাই, আর্টিকেলে সঠিক ভাবে on page seo করার আগে আপনাদের কিছু কথা জেনে নিতে হবে।

SEO কি ?

SEO বা সার্চ ইঞ্জিন optimization এমন একটি প্রক্রিয়া বা কৌশল যার ব্যবহার করে আমরা নিজের ব্লগ বা ব্লগে লেখা আর্টিকেল Google search এর প্রথম সার্চ রেজাল্ট পেজে নিয়ে আনতে পারি। এতে, যখন কোনো মানুষ আপনার ব্লগের সাথে জড়িত কিছু Google এ সার্চ করবেন, তখন Google আপনার ব্লগের আর্টিকেল তাদের নিজের রেজাল্ট পেজে দেখিয়ে দিবে।এতে, আপনি Google সার্চ থেকে অসংখক ট্রাফিক বা ভিসিটর্স পাওয়ার সুযোগ হবে। কেবল Google সার্চ এ নয়, আপনি Yahoo বা Bing সার্চ ইঞ্জিনের জন্য ও Seo করতে পারেন।

Keywords কি ?

Keywords একটি ব্লগ বা ব্লগের আর্টিকেলের টপিক (topic) বা বিষয়ের সাথে জড়িত শব্দ গুলিকে বলা হয়। সোজা ভাবে বললে, আপনি যে বিষয়ে আর্টিকেল লিখছেন সেই বিষয় এবং বিষয়ের সাথে জড়িত শব্দ গুলিকে keywords বলা হয়। মনে রাখবেন, আমরা সব সময় নিজের লেখা আর্টিকেল keywords এর ওপর নির্ভর করে Google বা যেকোনো অন্য সার্চ ইঞ্জিনে rank করার চেষ্টা করি।

এতে যখন আপনার লেখা আর্টিকেলের সাথে জড়িত কোনো keyword লোকেরা Google বা অন্য সার্চ ইঞ্জিনে type বা সার্চ করবেন তখন search engine আপনার লেখা আর্টিকেল তাদের search result এ দেখাবে।

এতে আপনার লেখা আর্টিকেলে Google বা অন্য সার্চ ইঞ্জিন থেকে ফ্রিতে traffic বা visitors আসবেন। তাই অবশই মনে রাখবেন যে, একটি ব্লগে লেখা আর্টিকেলে keywords এবং keywords এর ব্যবহার অনেকটাই জরুরি যদি আপনি search engine থেকে ফ্রীতে ট্রাফিক পেতে চান।

Keyword density কি ?

আমি ওপরে আপনাদের keyword কি তা ভালো করে বললাম। চলেন এখন আমরা keyword density কি তা জেনেনেই।

Keyword density এমন একটি সংখ্যা বা পরিমান যার ওপরে নির্ভর করে আমরা আর্টিকেলে keywords এর ব্যবহার করি।

উদাহরণ স্বরূপে, যদি আপনি “SEO BANGLA TUTORIAL” এর ওপরে আর্টিকেল লিখছেন এবং আপনার বেঁচে নেয়া keywords গুলি হলো “SEO IN BANGLA“, “SEO কিভাবে করবেন” বা “SEO করার নিয়ম“.

এখন, আপনার বেঁচে নেয়া KEYWORDS গুলি আর্টিকেলে কতবার উল্লেখ করবেন বা আর্টিকেলে KEYWORDS গুলি কতবার লিখবেন সেই সংখ্যা বা পরিমান টাকেই KEYWORD DENSITY বলা হয়।

Keywords density মেনে আর্টিকেলে keywords ব্যবহার করাটা অনেকটাই জরুরি। কারণ আপনি যদি নিজের মনমতো আর্টিকেলে keywords ব্যবহার করতে থাকেন তাহলে Google search algorithm আপনার ব্লগ বা আর্টিকেল কে panalize করেদিতে পারে। এতে, আপনার আর্টিকেল Google search এ আর দেখানো হবেনা।

তাহলে, মনে রাখবেন আর্টিকেলে keywords যতটুকু জরুরি ততটাই ব্যবহার করবেন এবং keywords density মিনিমাম ১% থেকে ম্যাক্সিমাম ১.৫% অব্দি রেখে keywords ব্যবহার করবেন।

ব্লগের আর্টিকেলে SEO র ব্যবহার কিভাবে করবেন ?

আমি আগেই বলেছি, On page Seo বা নিজের ব্লগে আর্টিকেল লেখার সময় করা SEO র সবথেকে জরুরি এবং গুরুত্বপূর্ণ জিনিস হলো keyword এবং তার ব্যবহার।

আপনি যদি সঠিক ভাবে আর্টিকেল লেখার সময় SEO র ব্যবহার করেন তাহলে আপনার ৭০% on page seo বা SEO ব্যবহার এখানেই হয়ে যাবে।

তাহলে চলেন, নিচে আমরা keywords এর দ্বারা নিজের আর্টিকেলে SEO র ব্যবহার এবং keywords এর বাইরে আর্টিকেলে আর কিকি SEO করতে হবে তা জেনেনেই।

১. আর্টিকেলের টাইটেল (Title) এ keyword ব্যবহার।

অবশই মনে রাখবেন আপনি যা আর্টিকেল লিখছেন সেই পুরো বিষয়টা যাতে আপনার আর্টিকেলের টাইটেল (title) পড়েই বুঝা যায়। সহজ সরল এবং আর্টিকেলের বিষয় বুঝিয়ে দেয়ার মতো টাইটেল দিবেন।

এর বাইরেও, আর্টিকেলের টাইটেল এ আপনার target করা keywords গুলি একবার করে নিশ্চয় দিবেন। এতে গুগল সার্চ এবং ভিসিটর্সরা আপনার টাইটেল পড়েই বুঝতে পারবেন যে আপনি কিসের বিষয়ে আর্টিকেল লিখেছেন।

আপনি আমার এই আর্টিকেলের টাইটেল পড়ে দেখবেন আমি শেষে “SEO bangla tutorial” শব্দটি লিখেছি। কারণ, এই শব্দটি আমার একটি টার্গেট করা keyword তাই আমি title এ শব্দটি লিখেছি।

২. আর্টিকেলের URL Address এ keyword ব্যবহার।

আপনি wordpress ব্যবহার করছেন বা blogger, আর্টিকেল লেখার সময় আপনি আর্টিকেলের URL Address এডিট (edit) করার option পাবেন।

সোজাসোজি আর্টিকেলের URL address সবসময় ছোট্ট দিবেন এবং তাতে নিজের target করা keyword ব্যবহার করবেন।

৩. টার্গেট করা keyword এর সঠিক ব্যবহার।

আমি আগেই বলেছি on page seo বা আর্টিকেল লেখার সময় করা seo র জন্য keywords এর সঠিক ব্যবহার করার প্রয়োজন অনেক জরুরি।

মনে রাখবেন, আপনি যা যা keywords টার্গেট করে আর্টিকেল লিখছেন সেগুলি “আর্টিকেলের প্রথম প্যারাগ্রাফ (paragraph), আর্টিকেলের শেষ প্যারাগ্রাফ এবং আর্টিকেলের মাঝে মাঝে” এক দুইবার অবশই ব্যবহার করবেন।

এতে, গুগল সার্চ এবং অন্য সার্চ ইঞ্জিন গুলি সহজে আপনার আর্টিকেলের বিষয়টি বুঝতে পারবেন এবং আর্টিকেলটি সঠিক ভাবে সার্চ রেজাল্টে rank করতে পারবেন।

৪. আর্টিকেল কমেও ১৫০০ শব্দের (words) ভিতরে লিখবেন।

মনে রাখবেন, নিজের ব্লগে লেখা আর্টিকেল সব সময় বরো এবং minimum ১৫০০ সবেদ ভেতরে লিখবেন। যদি পারেন, ২০০০ থেকে ৩০০০ শব্দের ভেতরে লেখার চেষ্টা করবেন।

কারণ, আপনি কোনো একটি বিষয়ে যতটা detailed এবং গভীর ভাবে আর্টিকেল লেখবেন ততটাই আপনার লেখা আর্টিকেল Google এবং অন্য সার্চ ইঞ্জিন ভালো পাবেন।

তাই, লম্বা এবং বেশি শব্দের গভীরভাবে আর্টিকেল লিখলে সেই আর্টিকেল অন্যদের লেখা আর্টিকেল থেকে বেশি মান (value) পায় এবং সেই আর্টিকলে Google সার্চ থেকে বেশি চে বেশি ট্রাফিক বা ভিসিটর্স পাওয়া যায়।

তাই, যদি আপনি নিজের আর্টিকেলে সার্চ ইঞ্জিন থেকে ট্রাফিক পেতে চান তাহলে আর্টিকেল লম্বা এবং গভীর ভাবে লিখবেন minimum ১৫০০ শব্দের।

৫. আর্টিকেলে ছবি (Image) ব্যবহার করবেন।

মনে রাখবেন নিজের লেখা আর্টিকেলে minimum একটি হলেও ছবির ব্যবহার অবশই করবেন। এ seo র দিকদিয়ে অনেক জরুরি এবং লাভজনক।

ছবি বা ইমেজ আপলোড করার পর তার “ALT TAG” এ আপনার টার্গেট করা keyword অবশই দিবেন।

৬. H tag আর্টিকেলে অবশই ব্যবহার করবেন।

আপনারা কি জানেন H ট্যাগ যেমন H1, H2, H3 এবং H4 এস ই ও দিকদিয়ে কতোটা জরুরি ? মনেহয় জানেননা। তাহলে জেনেনিন, নিজের আর্টিকেলে একটি H1 TAG একটি H2 TAG এবং কয়েকটি H3 আর H4 TAG ব্যবহার করা অনেক জরুরি।

H TAG আমাদের আর্টিকেল ভিসিটর্স এবং সার্চ ইঞ্জিন এর জন্য পড়তে অনেক সহজ করে দেয় এবং এতে আপনার আর্টিকেল দেখতে স্পষ্ট এবং সহজ হয়ে ওঠে।

মনে রাখবেন, নিজের আর্টিকেলে ব্যবহার করা minimum একটি h tag এ নিজের টার্গেট করা keyword অবশই ব্যবহার করবেন। এতে সার্চ ইঞ্জিন আপনার আর্টিকেলের বিষয়টি সহজে বুঝতে পারবে।

৭. Inter linking অবশই করবেন।

আপনি কি জানেন inter linking কি এবং এ seo র জন্য কতটুকু জরুরি ? না ? তাহলে জেনেনিন।

Interlinking Seo র জন্য অনেক অনেক জরুরি এবং ৭০% লোকেরা এর ব্যবহার করেনা যার জন্য তাদের আর্টিকেল Google এবং অন্য search engine রেজাল্ট এ rank করতে পারেনা।

তাই, আপনি যদি নিজের ব্লগে লেখা আর্টিকেল সঠিক ভাবে search engine optimize (seo) করতে চান তাহলে আর্টিকেলে interlinking অবশই করবেন।

Inter linking কি ? কিভাবে করবেন ?

Interlinking এমন একটি art বা কলা যার দ্বারা আমরা আমাদের ব্লগের একটি আর্টিকেল আরেকটি আর্টিকেলে URL link এর মাধ্যমে যোগ বা connect করতে পারি।

যেমন, আপনারা আমার এই আর্টিকেলের ওপরে দেখতে পারবেন আমি দুইটা লিংক (link) দিয়েছি। সেই দেয়া লিংক গুলো আমার ব্লগেই লেখা অন্য আর্টিকেলের লিংক।

আপনি যে বিষয়ে ব্লগে আর্টিকেল লিখছেন সেই বিষয়ে যদি অন্য কোনো আর্টিকেল ব্লগে লিখেছেন তাহলে সেই আর্টিকেল গুলির লিংক (link) লেখা আর্টিকেলে অবশই দিবেন। এটাই হলো inter linking এবং এ SEO র জন্য অনেক জরুরি।

 

তাহলে, আপনারা এখন আমাদের seo bangla tutorial থেকে অবশই বুঝেগেছেন যে ব্লগে আর্টিকেল লেখার সময় seo (এস ই ও) কিভাবে করবেন বা on page seo র নিয়ম কি। আপনারা যদি আমি বলা মতো seo ব্যবহার করে আর্টিকেল লিখেন তাহলে অবশই আপনাদের আর্টিকেল Google সার্চ রেজাল্টে top ৫ এর লিস্টে rank করবে।

যদি কোনো প্রশ্ন থাকে seo র সাথে জড়িত তাহলে আমাকে নিচে অবশই comment করবেন। আমি আপনাদের ওপরে যা যা seo র নিয়মের কথা বলেছি সেগুলি আমি নিজে ব্যবহার করে আর্টিকেল লিখি। তাই, আপনাদের অবশই এই নিয়ম গুলি কামে আসবে।