আউটসোর্সিং কি ? এর মাধ্যমে আয় কিভাবে করব

আউটসোর্সিং কি (What Is Outsourcing In Bangla): অনলাইন ইন্টারনেট থেকে টাকা আয় করার এমনিতে অনেক উপায় ও মাধ্যম আমি আপনাদের বলেছি

আউটসোর্সিং কি
আউটসোর্সিং মানে কি

তাদের মধ্যে, অনলাইনে ছবি বিক্রি করে আয় করাটাই হোক বা অনলাইন আর্টিকেল লিখে আয়, সবটাই কিন্তু অনেক লাভজনক এবং প্রমাণিত ইনকামের মাধ্যম।

তবে, আজকের আমাদের বিষয় হলো “আউটসোর্সিং” (outsourcing).

এমনিতে, আউটসোর্সিং এর কাজটি কেবল “অনলাইন কাজ” (online work) বলে বলা যেতে পারেনা।

হে, অনলাইনে এই ধরণের কাজের চাহিদা প্রচুর যদিও, অফলাইন মার্কেটেও আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে প্রচুর কাজ পাওয়া যাচ্ছে।

অনলাইন বলুন বা অফলাইনে, দুটো ক্ষেত্রেই আউটসোর্সিং এর চাহিদা প্রচুর।

এমনিতে, শিক্ষা গ্রহণ করার পর ক্যারিয়ার তৈরি করার ক্ষেত্রে আমাদের কাছে কেবল দুটি চয়েস (choice) বা অপসন (option) রয়েছে।

কেও হয়তো, যেকোনো ভালো একটি কোম্পানিতে চাকরি করার সিদ্ধান্ত নেন।

আবার কেও, পছন্দের ব্যবসা বাণিজ্য নিয়ে কাজ করেন।

কিন্তু, চাকরি এবং ব্যবসা ছাড়াও এখনের সময়ে, একটি নতুন ক্যারিয়ার অপসন (career option) অনেকেই বেঁছে নিচ্ছেন।

এবং, সেটা হলো “আউটসোর্সিং ক্যারিয়ার.

ভালো করে ক্যারিয়ার যদি তৈরি করতে পারেন, তাহলে আউটসোর্সিং দ্বারা ইনকাম প্রচুর।

তাই, যদি আপনি একটি ভালো চাকরি পাচ্ছেননা, তাহলে আউটসোর্সিং এর বিষয়টি নিয়ে কাজ অবশই শুরু করতে পারবেন।

এই ক্ষেত্রে জেকেও কাজ  করতে পারেন।

তবে, আপনার কিছু দক্ষতা (skills), বিভিন্ন বিষয়ে বিশেষ জ্ঞান (knowledge) এবং অভিজ্ঞতা (experience) থাকতেই হবে।

সোজা ভাবে বললে, আউটসোর্সিং এর কাজ করার জন্য, আপনার কাছে এমন একটি বিশেষ দক্ষতা (skills), অভিজ্ঞতা বা কাজ জানা থাকতে লাগবে, যেটা আপনি অন্যদের বিক্রি করতে পারবেন।

এবং, আপনার করা কাজের বিনিময়ে আপনি টাকা দাবি করতে পারবেন।

অবশই পড়ুনফ্রিল্যান্সিং কি ? কিভাবে শুরু করব

বিষয়টি বুঝতে অল্প অসুবিধে হচ্ছে তো ?

চলুন, নিচে আমরা স্পষ্ট করে জেনেনেই যে, “আউটসোর্সিং কাকে বলে” বা “আউটসোর্সিং কি“.

এবং, তারপর “আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে ইনকাম কিভাবে করবেন” সেই বিষয়েও আমরা জানবো।

আউটসোর্সিং কি ? (What Is Outsourcing In Bangla)

Outsourcing মানে হলো এমন একটি প্রক্রিয়া, যেখানে একজন “ব্যাক্তি“, “সংগঠন” বা “কোম্পানি” তার নির্দিষ্ট একটি কাজ করানোর উদ্দেশ্যে, অন্যান্য কোনো “ফ্রীলান্সার“, “ব্যক্তি“, “সংগঠন” বা “কোম্পানির” সাথে চুক্তি (contract) করে।

ইংরেজির “Outsourcing শব্দটি” আনা হয়েছিল “outside resourcing” বাক্য টির থেকে।

Out (বাইরের) + Sourcing (উৎস) = Outsourcing.

মানে, সংগঠন বা কোম্পানির বাইরের যেগুলি উৎস ব্যবহার করে কাজ করানো হয়, সেই প্রক্রিয়াটিকেই বলা হয় “আউটসোর্সিং“.

এবং, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই কাজ গুলি অন্তরীণ ভাবে (internally) করা হয়, যার খবর সাধারণ ভাবে প্রকাশ পায়না।

তাছাড়া, এভাবে যেকোনো কাজ বা কাজের চুক্তির বিনিময়ে কত টাকা নেওয়া বা দেওয়া হবে, সেটা আগের থেকেই নির্ধারিত করে নেওয়া হয়।

উদাহরণ স্বরূপে,

আমার একটি ওয়েবসাইট রয়েছে, যেখানে প্রত্যেকদিন একটি করে আর্টিকেল লিখা ও পাবলিশ করা হয়।

এখন, আসল কথাটা হলো যে, আমি সেই ওয়েবসাইটে নিজে কোন সময় আর্টিকেল লিখিনাই।

কারণ, আমার কাছে সময়ের প্রচুর অভাব এবং সেই ওয়েবসাইটির জন্য আর্টিকেল লিখার সময় একেবারেই নেই।

তবে, এখন আমি কি করতে পারি ?

আমি, অনেক সহজেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে, কিছু কনটেন্ট রাইটার (content writer) এর সাথে চুক্তি করে নেই।

এবং এরপর, তারা আমার সেই ব্লগ বা ওয়েবসাইটের জন্য আর্টিকেল লিখছেন।

মনে রাখবেন, আমার ব্লগের visitors বা readers রা এই বেপারে জানেননা।

তারা ভাবছেন যে প্রত্যেক আর্টিকেল আমি নিজেই লিখছি।

কিন্তু, ভেতরে ভেতরে সময়ের অভাবের ফলে, ব্লগে কনটেন্ট লেখার কাজটি আমি অন্য content writer বা content writing agency কে দিয়ে রেখেছি।

এতে, কিছু টাকা দিয়ে আমার কাজ সহজেই হয়ে গেলো এবং সময় ও নষ্ট হলোনা।

এক্ষেত্রে, যেহেতু আমি আমার কোম্পানির কাজের জন্য বাইরের থেকে কিছু উৎস বা সাধন ব্যবহার করছি, তাই আমার ক্ষেত্রে প্রক্রিয়াটিকে বলা হবে “আউটসোর্স (outsource) করা.

এবং, যারা আমার সাথে করা চুক্তি হিসেবে আমার blog এর জন্য content লিখছেন, তাদের ক্ষেত্রে কিন্তু তারা ফ্রীলান্সার (freelancer) হিসেবে, আউটসোর্সিং এর মাধ্যমেই টাকা আয় করছেন।

তাহলে, এখন বুঝলেন তো যে “আউটসোর্সিং বলতে কি বুঝায়” ?

আউটসোর্সিং কত প্রকারের ও কি কি ? (Types Of Outsourcing)

এমনিতে আউটসোর্সিং এর অন্য অন্য প্রকার বা প্রকারভেদ কিন্তু অবশই রয়েছে।

বিভিন্ন রকমের কাজ গুলিকে আজ বিভিন্ন কোম্পানি গুলি আউটসোর্স (outsource) এর মাধ্যমে করিয়ে নেন।

তবে, বর্তমানে এরকম অনেক “আউটসোর্সিং কাজ” রয়েছে, যেগুলি remotely বা internet এর মাধ্যমে ঘর থেকেও করানো যেতে পারে।

নিচে, যেগুলি আউটসোর্সিং এর প্রকারের কথা বলবো, সেগুলির বিষয়ে জানার পর, আপনারা বুঝতে পারবেন যে, কোন কোন কাজে কম্পানি গুলি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আউটসোর্সিং এর সাহায্য নেয়।

বা, সোজা ভাবে বললে, আউটসোর্সিং এর কাজ গুলি কি কি, সেবিষয়ে বুঝতে পারবেন।

The 4 Types of outsourcing – 

  1. Professional outsourcing
  2. IT Outsourcing
  3. Manufacturing Outsourcing
  4. Project Outsourcing

 মূলত, আউটসোর্সিং এর এই ৪ প্রকারভেদ রয়েছে।

এবং, আউটসোর্সিং এর সাথে জড়িত যেকোনো ধরণের কাজ গুলি, এই ৪ টি প্রকারের ভেতরেই এসে পরে।

১. Professional outsourcing কি ?

এই ধরণের আউটসোর্সিং এর প্রকার অনেক প্রচলিত ও জনপ্রিয়।

এই ক্ষেত্রে, individual specialists বা professionals দেড় সাথে চুক্তি (contract) করে কাজ গুলি করানো হয়।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, remotely ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে ফ্রীলান্সার (freelancer) দেড় সাহায্যে কাজ গুলি করা হয়।

Professional outsourcing এর উদ্দেশ্য এটাই যে, এখানে একাধিক কার্য (multitask) বা ছোট কাজ (small task) গুলি করানোর জন্য একটি সম্পূর্ণ সংগঠন বা কোম্পানির সাথে চুক্তি করা হবেনা।

যেকোনো বিষয়ের বিশেষজ্ঞ (specialized) এবং পেশাগত (professional) সার্ভিস বা কাজ গুলিকে এর ভেতরে ধরা যেতে পারে।

ধরুন, একটি কোম্পানি রয়েছে যে নিজের পণ্য (product) এবং সার্ভিস নিয়ে একটি ওয়েবসাইট (website) তৈরি করতে চাচ্ছেন।

এখন, কোম্পানিটি প্রচুর টাকা খরচ করে কেবল একটি ওয়েবসাইট তৈরির উদ্দেশ্যে, নতুন কর্মচারী (employee) রাখার কথা কখনোই ভাববেন।

তবে, এর বিপরীতে কোম্পানিটি একজন “professional web developer” এর সাথে চুক্তি করে কম খরচে ওয়েবসাইট বানানোর কাজটি করিয়ে নিতে পারবে।

এখন ভাবুন, যদি আপনি একজন পেশাগত ওয়েব ডিসাইনার (professional web designer) হয়ে থাকেন, তাহলে এই ধরণের আউটসোর্সিং এর কাজ আপনিও করতে পারবেন।

এবং, এটাকেই বলা হয়, “প্রফেশনাল আউটসোর্সিং“.

এভাবে, আরো অনেক রকমের পেশাগত কাজ রয়েছে যেমন, IT, accounting, digital marketing, graphic designing, app developer, website management যেগুলি professional outsourcing এর ক্ষেত্রে ধরা যেতে পারে।

অনলাইনে, Professional outsourcing platform গুলির মধ্যে সব থেকে সেরা হলো : Remote Work Hub এবং Upwork.

এখানে, আপনারা অনলাইনে remotely কাজ করানোর জন্য professional talent এবং নিজে কাজ করার জন্য বিভিন্ন professional work পেয়ে যাবেন।

২. Manufacturing outsourcing কি ?

ধরুন, আপনার একটি smartphone কোম্পানি রয়েছে।

এবং, আপনি দেখছেন যে মোবাইল গুলি নিজের দেশে manufacture বা design করলে, আপনার আর্থিক ভাবে প্রচুর ক্ষতি হচ্ছে।

তাই, আপনি smartphone গুলি ডিজাইন ও উৎপাদন (manufacture) করার কাজটি china র একটি উৎপাদন কোম্পানি (manufacture company) কে দায়িত্ব দিলেন।

কারণ, এতে আপনার মোবাইল উৎপাদন এর কাজ অনেক কম খরচেই হয়ে যাচ্ছে।

তাছাড়া, মোবাইলের বিভিন্ন অংশ রয়েছে যেমন, camera , display panel, speaker, UI, mobile case যেগুলিকে আর্থিক সুবিধা অনুযায়ী আলাদা আলাদা জায়গার থেকে উৎপাদন করতে দেয়া হয়।

যেহেতু আপনি আপনার কোম্পানির মোবাইল গুলি ডিজাইন এবং উৎপাদন করার জন্য বিভিন্ন ক্ষেত্রে, অন্য কোম্পানি বা সংগঠন এর সাথে চুক্তি (contract) করছেন, তাই এটাকে বলা হবে “outsourcing manufacturing“.

এই ধরণের আউটসোর্সিং কেবল পণ্য উৎপাদন এর কাজের সাথে জড়িত ও সীমিত থাকবে।

৩. Operational outsourcing কি ?

ভাবুন আপনার একটি বেকারি (bakery) রয়েছে, যেখান থেকে আপনি বিভিন্ন বেকারির খাওয়ার (biscuits, snacks, samosa, petis) অন্যান্য অনেক দোকানে সাপ্লাই (supply) করতে হয়।

এখন, বেকারির খাওয়ার গুলি সাপ্লাই দেওয়ার জন্য আপনার কেবল ২ থেকে ৩ ঘন্টা সময় লাগবে।

এক্ষেত্রে, আপনি যদি একটি full-time delivery staff কে চাকরি হিসেবে কাজ দেন, তবে এতে আপনার আর্থিক ভাবে অনেক ক্ষতি হবে।

তার ওপরেও, কেবল খাওয়ার delivery করার জন্য আপনার কেবল কিছু সময় লাগবে।

তাই, এই ক্ষেত্রে আপনি যেকোনো একটি local agency র সাথে চুক্তি (contract) করতে পারবেন।

এতে, তারা কেবল আপনার বেকারির খাওয়ার গুলি দোকানে দোকানে দিয়ে আসার কাজটি করে দিবে।

এবং, এর বিনিময়ে আপনাকে তাদের অনেক কম পরিমানের টাকা দিতে হবে।

এই ধরণের ছোট ছোট পরিচালনাগত কাজ গুলি যখন অন্যদের দ্বারা করানো হবে, তখন সেটাকে “operational outsourcing” বলে বলা হয়।

পরিচালনাগত আউটসোর্সিং, বিশেষ ভাবে উৎপাদন শিল্প গুলির সাথে সংযুক্ত থাকে।

কারণ, উৎপাদন শিল্প (manufacturing industry) র ক্ষেত্রে বিভিন্ন রকমের প্রচুর পরিচালনাগত কাজ এবং স্টেপ গুলি নেওয়াটা অধিক প্রয়োজন হয়ে দাঁড়ায়।

যেমন, repairing operations, equipment maintenance, delivery, এবং আরো অনেক ধরণের পরিচালনাগত কাজ রয়েছে।

৪. Project-based outsourcing কি ?

এই ধরণের আউটসোর্সিং এর ক্ষেত্রে একটি কোম্পানি বা সংগঠন তার যেকোনো একটি নির্ধারিত কাজ অন্য একটি আউটসোর্সিং কোম্পানি, সংগঠন, specialist বা professional কে প্রকল্প (project) হিসেবে দেয়

প্রকল্পটির (project) সম্পূর্ণ দায়িত্ব আউটসোর্সিং কোম্পানির বা সংগঠিনটির নিতে হবে, যতদিন না প্রজেক্টটি শেষ হচ্ছে।

সোজা ভাবে বললে, জেকোনো কাজ প্রজেক্ট (project), হিসেবে কোনো আউটসোর্সিং কোম্পানিকে দেওয়া হলে, সেটাকে বলা হয় project-based outsourcing.

উদাহরণ স্বরূপে, 

ধরুন, আপনার দপ্তরে (office) থাকা সম্পূর্ণ কম্পিউটার গুলিতে “ভাইরাস থেকে সুরক্ষার (virus protection) কাজ”, একটি IT company কে project হিসেবে দিলেন।

এখন সেই IT company টি, যতক্ষণ না অব্দি প্রত্যেকটি কম্পিউটারে সম্পূর্ণ ভাবে ভাইরাস থেকে সুরক্ষা দেওয়ার কাজ শেষ না করছে, তার প্রজেক্ট সম্পূর্ণ হবেনা।

তবে, একবার কম্পিউটার গুলিকে ভাইরাস থেকে সুরক্ষা দেওয়ার কাজ সম্পূর্ণ হলেই তার প্রজেক্ট (project) সম্পূর্ণ হয়ে যাবে।

তারপর, IT company টিকে প্রজেক্ট সম্পূর্ণ করার বিনিময়ে, চুক্তি হিসেবে পাওনা টাকা দিয়ে দেয়া হয়।

Project-based outsourcing এর ক্ষেত্রেও বিভিন্ন কাজ remotely এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে করা যেতে পারে।

যেমন, Digital marketing, SEO optimization, article writing projects, web designing, logo designing, photo-shoot, video editing এবং আরো অন্যান্য কাজ রয়েছে, যেগুলি আপনি প্রজেক্ট হিসেবে নিয়ে যেকোনো কোম্পানি বা সংগঠনের জন্য করতে পারবেন।

তাহলে, আশা করছি যে, আপনারা আউটসোর্সিং এর প্রকার গুলি ভালো করে বুঝতে পারলেন এবং “আউটসোর্সিং এর কাজ গুলি কি কি” সেটাও বুঝতে পারলেন।

আউটসোর্সিং কোর্স কিভাবে করব ?

আমি আগেই বলেছি, আউটসোর্সিং হলো একটি প্রক্রিয়া যেখানে আপনি অন্যান্য company, organization এবং ব্যাক্তির জন্য কাজ করতে পারবেন এবং কাজের বিনিময়ে ইনকাম করতে পারবেন।

এবং, এর জন্য আপনার মধ্যে যেকোনো বিষয়ের অভিজ্ঞতা, দক্ষতা (skills) এবং জ্ঞান (knowledge) থাকতে হবে।

আর মনে রাখবেন, আউটসোর্সিং এর কোর্স বলে তেমন কিছুই নেই।

তবে, আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে আয় করার জন্য বা আউটসোর্সিং এর কাজ শুরু করার জন্য, আপনি বিভিন্ন অন্যান্য বিষয়ে কোর্স করতে পারেন।

যেমন ধরুন, আপনি web designing এর কোর্স করলেন।

এবং, আপনি অনেক ভালো করে professional website design করতে পারেন।

এই ক্ষেত্রে, বিভিন্ন কোম্পানি বা অন্যান্য সংগঠন গুলি আপনাকে ওয়েবসাইট তৈরি করার কাজ দিতে পারে।

আর এভাবে, websites design করে outsourcing এর মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন।

এভাবেই, আরো অন্যান্য বিষয়ে কোর্স করতে পারেন বা নিজেকে এক্সপার্ট হিসেবে তৈরি করতে পারেন।

Remotely ইন্টারনেটের মাধ্যমে আউটসোর্সিং এর কাজ করে ইনকাম করার জন্য কিছু লাভজনক বিষয় বা কোর্স রয়েছে।

  • Professional digital marketing
  • Video editing 
  • App development 
  • SEO expert 
  • Professional Graphic designer
  • Web designing
  • Article & content creator
  • Logo designer

এবং আরো অন্যান্য লাভজনক বিষয় বা সাবজেক্ট রয়েছে, যেগুলি নিয়ে ভালো পরিমানে ইনকাম করতে পারবেন।

তাই, যদি আউটসোর্সিং দ্বারা ইনকাম করতে চাচ্ছেন, তাহলে নিজেকে এমন একটি বিষয়ে expert বা professional হিসেবে তৈরি করুন যেটার চাহিদা প্রচুর।

আপনি চাইলে, বিষয় গুলি নিয়ে প্রফেশনাল কোর্স (professional course) বা Google ও YouTube এর মাধ্যমে অনেক কিছুই শিখে নিতে পারবেন।

কোন কোন দক্ষতা (skills) এবং বিষয় নিয়ে, সব থেকে বেশি আউটসোর্সিং এর কাজ পাওয়া যাচ্ছে সেটা, Fiverr, Upwork, Freelancer এবং Guru, এই ওয়েবসাইট গুলিতে গিয়ে আপনারা জেনেযাবেন।

আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে আয় কিভাবে করব ?

আউটসোর্সিং দ্বারা ইনকাম করাটা আজকাল অনেক সাধারণ একটি ব্যাপার।

এমনিতে, professional outsourcing এবং project based outsourcing এই দুই প্রকার আপনার কাজে আসবে।

কারণ, দুটি ক্ষেত্রেই আপনি ঘরে বসে দূরবর্তী অবস্থান থেকে (remotely) ইন্টারনেটের সাহায্যে কাজ করতে পারবেন।

তবে তখন, যদি আপনি সঠিক প্রক্রিয়া জানেন এবং তার সাথে আপনার নিজের কোনো একটি পেশাগত দক্ষতা (professional skills) রয়েছে।

এখানে আপনি নিজের অভিজ্ঞতা, দক্ষতা এবং কাজ বিক্রি করে ইনকাম করতে হবে।

অনেক freelancer রা এই ধরণের বিভিন্ন কাজ অনলাইনে ফুল-টাইম হিসেবে করে আজ ফুল-টাইম চাকরির থেকেও বেশি টাকা ইনকাম করছেন।

বর্তমানে, India এবং Bangladesh কে নিয়েই কিছু এশিয়ান দেশ (Asian country) গুলিতে তরুণ প্রজন্মরা (young generation), ফ্রিল্যান্সিং এবং আউটসোর্সিং কে ক্যারিয়ার হিসেবে নিয়ে বেঁছে নিচ্ছেন।

এখন, যদি আপনিও আউটসোর্সিং থেকে ইনকাম করতে চাচ্ছেন, তাহলে নিচে দেওয়া বিষয় গুলিতে মন দিতে হবে।

আউটসোর্সিং থেকে আয় করবেন যেভাবে 

  1. প্রথমেই, নিজেকে যেকোনো একটি বিষয়ে পারফেক্ট (perfect) হিসেবে তৈরি করতে হবে। সেটা, web designing হতে পারে, digital marketing হতে পারে বা অন্য যেকোনো একটি লাভজনক সাবজেক্ট যেটার চাহিদা প্রচুর।
  2. আপনার কিছু আউটসোর্সিং ওয়েবসাইট গুলিতে গিয়ে নিজের একটি একাউন্ট তৈরি করতে হবে। আপনি, upwork, Fiverr এবং Guru এই ওয়েবসাইট গুলিতে গিয়ে একাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।
  3. একাউন্ট তৈরি করার পর, নিজের একটি আকর্ষণীয় পোর্টফোলিও (portfolio) তৈরি করতে হবে। নিজের নাম, কাজের অভিজ্ঞতা, দক্ষতা এবং কি কি কাজ পারবেন সেই বিষয়ে সম্পূর্ণ ভালো করে বুঝিয়ে লিখতে হবে।
  4. এখন, আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট গুলিতে আপনি বিভিন্ন রকমের কাজ দেখতে পাবেন।
  5. আপনি যেই কাজ জানেন সেই হিসাবে কাজ খুজুন এবং কাজ গুলি করে টাকা ইনকাম করুন।
  6. যতটা সঠিক এবং যতটা সময় মতো কাজ করে দিতে পারবেন, আপনার কাজের চাহিদা এবং গুরুত্ব ততটাই বেশি বাড়বে।

তাহলে আশা করি আপনি ভালো করে বুঝে গেছেন, যে কিভাবে আউটসোর্সিং করে ইনকাম করতে পারবেন।

আমাদের শেষ কথা,

তাহলে বন্ধুরা, আশা করছি “outsourcing কি” (about outsourcing in Bangla), “এর বিভিন্ন প্রকার” এবং এর সাথে জড়িত বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর গুলি আমি আপনাদের দিতে পারলাম।

তবে, আপনার যদি এই বিষয় নিয়ে কোনো প্রশ্ন বা সমস্যা রয়েছে, তাহলে আমাকে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে জিগেশ করুন।

Related Contents:

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top