ফিক্সড ডিপোজিট কি – (What Is Fixed Deposit in Bangla)

ফিক্সড ডিপোজিট কি (What Is Fixed Deposit in Bangla)আমরা সবাই কিন্তু সব সময় সফলভাবে টাকা সঞ্চয় করতে পারি না। 

অথচ, অর্থ সঞ্চয় কিন্তু সম্পদ তৈরী বা জমানোর সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলোর মধ্যে অন্যতম। 

অন্যদিকে, আমাদের রোজগারের ছোট অংশ সঞ্চয় করাই, কিন্তু ভবিষ্যতে আমাদেরকে একটা উচ্চমানের জীবন উপভোগ করতে সাহায্য করে। 

যেসব ব্যক্তিরা জলের মতো অর্থ ব্যয় না করে সঞ্চয় করার অভ্যাস গড়ে তোলেন, তারা দ্রুত সম্পদ বৃদ্ধি বা নির্মাণ করতে অনেকটাই বেশি সফল হন। 

বর্তমানে, অর্থ সঞ্চয়ের নানান রকমের উপায় আছে। 

এই উপায়গুলোর মধ্যে অন্যতম হল ফিক্সড ডিপোজিট (fixed deposit) বা স্থায়ী আমানত 

এমনকি, ভারতের মতো দেশে, এখনও এই ফিক্সড ডিপোজিটই (FD) হল অর্থ সঞ্চয়ের একটা বিশ্বাসযোগ্য মাধ্যম।

আজকে আমাদের আর্টিকেলের আলোচনার বিষয়ই হল, Fixed deposit কি, এর বৈশিষ্ট্যসুবিধাগুলো কি কি ? 

এর থেকে আপনারা সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন যে, একটি এফডি (FD) আপনার জীবনে ঠিক কতটা পরিবর্তন আনতে পারে। 

স্থায়ী আমানত বা ফিক্সড ডিপোজিট কি ?

ফিক্সড ডিপোজিট কি
ফিক্সড ডিপোজিট কাকে বলে ?

একটি স্থায়ী আমানত বা ফিক্সড ডিপোজিট হল এক ধরণের বিনিয়োগের উপকরণ।

যেকোনো ব্যাঙ্ক ও নন-ব্যাঙ্কিং আর্থিক সংস্থা (NBFC), এই এফডি বা ফিক্সড ডিপোজিটের মাধ্যমে তাদের গ্রাহকদের অর্থ সঞ্চয় করতে সাহায্য করে। 

একটা স্থায়ী আমানত অ্যাকাউন্টের সাহায্যে, যেকোনো ব্যক্তি একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য পূর্ব-নির্ধারিত সুদের হারে একটা উল্লেখযোগ্য পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করতে পারেন। 

এই স্থায়ী আমানতকে টার্ম ডিপোজিটও বলা হয়ে থাকে।

Fixed deposit আপনারা যেকোনো bank বা non-banking financial companies (NBFC) থেকে করিয়ে নিতে পারবেন।

একটি ফিক্সড ডিপোজিট এর মাধ্যমে আপনারা নিজের সঞ্চয় করা টাকার ওপরে অধিক পরিমানের ইন্টারেস্ট পেয়ে থাকেন।

বিশেষ করে সেভিংস একাউন্ট থেকে অধিক ইন্টারেস্ট পাওয়া সম্ভব এই ফিক্সড ডিপোজিট নামের আর্থিক উপকরণ থেকে।

তাহলে আশা করছি, ফিক্সড ডিপোজিট বলতে কি বুঝায়, (about fixed deposit in Bengali) এটা আপনারা ভালো করে বুঝেই গেছেন। 

ফিক্সড ডিপোজিটের খুঁটিনাটি তথ্য:

  • এফডি হল সম্পূর্ণ নিরাপদ বিনিয়োগের মাধ্যম। 
  • এই ফিক্সড ডিপোজিট করাও অনেকটাই সহজ। 
  • এখান থেকে আপনি ভালো রিটার্ন পাবেন ও মেয়াদ শেষে সুদ-সমেত আপনার বিনিয়োগ করা সম্পূর্ণ টাকাও পেয়ে যাবেন। 
  • এছাড়াও, আপনি পেয়ে যেতে পারেন আপনার মতো ভালো অর্থ-সঞ্চয়কারী পরিকল্পনা। 
  • আর, এই স্থায়ী আমানত অ্যাকাউন্টের জন্য ব্যাঙ্কগুলো নানান রকমের সুদের হার প্রদান করে থাকে।
  • এই সুদের হার মার্কেটের ওঠানামার দ্বারা কোনোভাবেই প্রভাবিত হয় না। 
  • আর, এফডির মেয়াদ পূরণ করার পর অর্থাৎ লক-ইন পিরিয়ড পেরোনোর পরই, আপনি আপনার সুদ-সমেত টাকাটা রিটার্ন পান।
  • আপনি পর্যায়ক্রমিক ভিত্তিতে বা মেয়াদপূর্তির সময়ে, আপনার বিনিয়োগের আগ্রহ বেছে নিতে পারেন। 
  • মূলত, এফডি-এর ক্ষেত্রে, আপনি মেয়াদপূর্তির আগে টাকা প্রত্যাহার করতে পারবেন না। 
  • আর, সময়ের আগে সেই অর্থ তুলতে চাইলে, আপনাকে জরিমানা দিয়ে তবেই সেই টাকা প্রত্যাহার করতে হবে।

ফিক্সড ডিপোজিটের বৈশিষ্ট্য:

স্থায়ী আমানত সম্পর্কে স্পষ্টভাবে বুঝতে হলে, সবার আগে এর বৈশিষ্ট্যগুলো জানাটা জরুরি। 

১. সুদের হার:

আপনি যখন ডিপোজিট করবেন, তখন ফিক্সড ডিপোজিটে যে সুদের হার, আপনি যতটা মেয়াদের জন্যে টাকা বিনিয়োগ করতে চান – তার উপর নির্ভর করে। তবে, সেই সুদের হার মেয়াদপূর্তি অবধি সমানই থাকবে।

২. নিশ্চিত রিটার্ন:

স্থায়ী আমানতে রিটার্ন পাওয়ার ব্যাপারটা একেবারেই নিশ্চিত।

যেহেতু, এটি মার্কেট-নেতৃত্বাধীন বিনিয়োগের জায়গা নয়, তাই মার্কেটে সুদের হারের ওঠানামার উপর ভিত্তি করে এখানে রিটার্ন দেওয়া হয় না। 

এই কারণেই, স্থায়ী আমানতের ক্ষেত্রে, শুরুতে যে সুদের হার নির্বাচন করেছেন, সেই সুদের হারের হিসেবেই মেয়াদপূর্তিতে টাকা পাবেন।

এই জন্যেই এফডি হল যেকোনো বিনিয়োগের তুলনায় অনেকটাই বেশি সুরক্ষিত। 

কিংবা, ইক্যুইটির মতো অন্যান্য সম্পদে বিনিয়োগের তুলনায় এই আমানতগুলো অনেকটাই নিরাপদ। 

আপনার বিনিয়োগের উপর রিটার্ন গণনা করে, বিভিন্ন ব্যাঙ্কের সুদের হারগুলো দেখতে পারেন। 

বয়স্ক নাগরিকেরা ভারতীয় ব্যাঙ্কগুলোতে সাধারণ মানুষের তুলনায় অনেকটা বেশি সুদের হার পেয়ে থাকেন।

তবে, এনবিএফসি-এর থেকে প্রদত্ত ফিক্সড ডিপোজিটে সুদের হার ব্যাঙ্কের তুলনায় বেশি হয়ে থাকে।

৩. এফডির বদলে ঋণের সুবিধা:

এফডিগুলো একটা নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য স্থির করা হলেও, যখন আপনার তহবিলের প্রয়োজন হবে, তখন আপনি আপনার স্থায়ী আমানতের বদলে ঋণ পেতে পারেন।

বিবিধ ব্যাঙ্ক, ওভারড্রাফ্টের আকারে এফডির বদলে ঋণ দিয়ে থাকে। 

এমনকি, আপনি আপনার স্থায়ী আমানতের পরিমাণের উপর ৯০% (শর্তাবলী প্রযোজ্য) পর্যন্ত ঋণ পেতে পারেন।

এটার সুবিধা হল এই যে, আপনি এফডির সুদ অর্জন করতে থাকবেন, কিন্তু প্রয়োজনের সময়ে আপনাকে সময়ের আগে ফিক্সড ডিপোজিট প্রত্যাহার করতে হবে না আর কোনো পেনাল্টিও দিতে হবে না।

৪. নমনীয় মেয়াদ:

যেকোনো ব্যাঙ্কেই কম-বেশি ৭-১৪ দিন থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১০ বছর পর্যন্ত স্থায়ী আমানতের মেয়াদ নির্বাচন করা যায়।

এমনকি, আপনি সুদের মাসিক বা ত্রৈমাসিক পে-আউট বা পুনর্বিনিয়োগের অপশন নির্বাচন করে চক্রবৃদ্ধির হারে ফিক্সড ডিপোজিট করতে পারেন। 

এই নমনীয় মেয়াদের ফলে, এই এফডি অনেক মানুষের কাছেই সঞ্চয়ের সেরা মাধ্যম হয়ে ওঠে।

এফডি-এর সুবিধা এবং লাভ:

ফিক্সড ডিপোজিট যুগ যুগ ধরে অসংখ্য মানুষের বিনিয়োগের সেরা মাধ্যম হয়ে রয়েছে – এর পিছনেও রয়েছে বেশ কতগুলো ভালো কারণ। 

এই কারণের মধ্যে অন্যতম হল এই যে, এফডিগুলো বছরের পর বছর ধরে অত্যন্ত বহুমুখী ও নমনীয় আর্থিক বিনিয়োগের মাধ্যমে বিকশিত হয়ে নানান ধরণের সুবিধা দিতে থাকছে;

সেগুলো হল –

১. একেবারেই নিশ্চিত রিটার্ন:

ফিক্সড ডিপোজিটে আপনার সুদের হার সম্পূর্ণ মেয়াদ জুড়েই একই থাকে। 

তাই, মার্কেটে যাই-ই ওঠানামা হোক, আপনার রিটার্ন অর্থের পরিমাণ সব সময় আপনার নেওয়া সুদের হারেই থাকবে।

২. ঝামেলাবিহীন বিনিয়োগ:

একটা সেভিংস অ্যাকাউন্ট থাকলেই অনলাইনেই মাত্র কয়েকটি ক্লিকে কিংবা আপনার ব্যাংক শাখায় গিয়ে ফিক্সড ডিপোজিট করা সম্ভব। 

আপনি একবার এফডি করলে মেয়াদ পূরণ না হওয়া পর্যন্ত এটি নিয়ে আপনাকে মাথাব্যথা করতে হবে না।

আপনি নিজে থেকেই ডিপোজিট পুনর্নবীকরণ বা মেয়াদপূর্তির পর আয় আপনার অ্যাকাউন্টে পেতে ম্যাচুরিটির সময়ের নির্দেশাবলী সেট করে নিতে পারেন।

৩. চক্রবৃদ্ধি হারের সুবিধা:

আপনি যদি এফডি করার সময় পুনঃবিনিয়োগের বিকল্প নির্বাচন করেন, সেক্ষেত্রে আপনি চক্রবৃদ্ধি সুদের হার থেকে উপকৃত হবেন। 

অর্থাৎ, আপনি কেবলমাত্র মোট অর্থের পরিমাণের উপর নয়, বরং আপনার উপার্জিত সুদের উপরও আলাদা করে সুদ পেয়ে যাবেন।

৪. নিয়মিত আয়ের সুবিধা:

নিয়মিত আয় পেতে চাইলে, আপনার ফিক্সড ডিপোজিটের উপর আপনি মাসিক বা ত্রৈমাসিক সুদের পে-আউটও নির্বাচন করে নিতে পারেন।

৫. মেয়াদ নির্বাচনের নমনীয়তা:

একটি ফিক্সড ডিপোজিটের মেয়াদ যথেষ্ট নমনীয় আর তা আমানত ধারকের উপর সরাসরি নির্ভর করে। 

সব ব্যাঙ্কেরই একটা করে নিজস্ব ন্যূনতম মেয়াদের নিয়ম আছে।

কিন্তু, এখানে একজন আমানত ধারকের সিদ্ধান্তকেই চূড়ান্ত বলে মনে করা হয়। 

এই ডিপোজিট তুলে নেওয়া কিংবা একই সময়ের জন্য বাড়ানোর সিদ্ধান্তও আপনার উপরই নির্ভর করে।

৬. কর-সঞ্চয় প্রকল্প:

ট্যাক্স বাঁচানোর তাগিদে যদি ফিক্সড ডিপোজিট করতে চান, তাহলে পাঁচ বছরের ট্যাক্স-সেভিং স্থায়ী আমানতের পরিকল্পনা বেছে নিতে পারে। 

এর ফলে, আপনি আয়কর আইনের ধারা 80C-এর অধীনে কর ছাড়ের সুবিধা পেতে পারেন।

৭. সহজ তরলকরণ:

ফিক্সড ডিপোজিট লিকুইডেট করা অনেকটাই সহজ।

অনলাইনে বুক করা স্থায়ী আমানতের জন্যে নেট ব্যাঙ্কিংয়ের মাধ্যমেও অনলাইনে বাতিল করা সম্ভব। 

অন্যদিকে, বেশিরভাগ ব্যাঙ্কের শাখাতাই এই এফডি বাতিল করার একটা ফর্ম থাকেই।

 

আমাদের শেষ কথা,,

আমাদের আজকের ফিক্সড ডিপোজিট নিয়ে লেখা আর্টিকেলটি এখানেই শেষ হল। 

আশা করছি, ফিক্সড ডিপোজিট কি, ফিক্সড ডিপোজিট এর বৈশিষ্ট্য, সুবিধা এবং লাভ গুলো আপনারা সম্পূর্ণ স্পষ্ট ভাবে বুঝতে পেরেছেন। 

লেখাটি পছন্দ হলে অবশ্যই তা কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন।

শেষে, আর্টিকেলটি সোশ্যাল মিডিয়া নেটওয়ার্ক গুলোতে শেয়ার করার অনুরোধ থাকলো।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top
Copy link
Powered by Social Snap