অফ পেজ এসইও (off page SEO) কি ? কিভাবে করবেন

off page SEO কি ? যেকোনো ওয়েবসাইটের সার্চ ইঞ্জিন ট্রাফিক (search engine traffic) বৃদ্ধি করার কেবল একটাই কার্যকর উপায় বা নিয়ম রয়েছে।

অফ পেজ এসইও কি
About off-page SEO in Bangla.

সেটা হলো SEO (Search engine optimization).

SEO করার ফলে, আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগের আর্টিকেল গুলি google search বা অন্যান্য search engine গুলিতে রেজাল্টের প্রথম পাতায় আনা যেতে পারে।

সোজা ভাবে বললে, সঠিক ভাবে SEO করার ফলে, আমাদের ব্লগ বা ওয়েবসাইটের ranking গুগল বা অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনে অনেক ভালো হয়ে যায়।

এতে, আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটে প্রচুর পরিমানে “organic search engine traffic” আসার প্রচুর সম্ভাবনা হয়ে দাঁড়াবে।

SEO মানে কি ? এর কাজ কি এবং কিভাবে করতে হয়, এই বিষয়ে আমি আগেই আপনাদের বলেছি।

এমনিতে, “সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন” বা SEO, দু প্রকারের।

  • On-page SEO
  • Off-page SEO.

অন পেজ এসইও কি , এই বিষয়ে আমি আগেই আমার আগের আর্টিকেলে লিখেছি।

তাই, এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের কেবল “off-page SEO র বিষয়ে বলবো“. (What Is Off Page SEO in Bangla).

আমরা আজকের আর্টিকেলে জানবো যে “অফ পেজ এসইও কি” এবং “কিভাবে অফ পেজ এসইও করতে হয়” এই দুই ব্যাপারে।

তাছাড়া, অফ পেজ এসইও র বিভিন্ন প্রকার গুলির ব্যাপারেও আপনারা এখানে জেনেযাবেন।

অফ পেজ এসইও (off-page SEO) কি ?

যদি আমরা “অন পেজ এসইও” র কথা বলি, তাহলে এখানে আমরা আমাদের ব্লগের কনটেন্ট বা আর্টিকেলটি সেরা এবং সবচেয়ে ভালো বানানোর চেষ্টা করি, যাতে সার্চ ইঞ্জিন গুলি আমাদের কনটেন্ট পছন্দ করে।

On page SEO র ক্ষেত্রে, নিজের ওয়েবসাইট বা ব্লগের ভিতরে সীমিত থেকে “অপটিমাইজেশন” করা টেকনিক গুলিকে বুঝায়।

এবং, সত্যি কথা বললে, ব্লগিং এর ক্ষেত্রে off page SEO থেকে on-page SEO র গুরুত্ব অনেক বেশি।

এটা আমি আমার নিজের অভিজ্ঞতার থেকে আপনাদের বলছি।

কারণ, গুগল এর অনুসারে “content এর quality” কিন্তু সব থেকে জরুরি বিষয়।

যদি আপনার লেখা কনটেন্ট গুলি অনেক ভালো মানের থেকে, লোকেরা পড়ে ভালো পাচ্ছেন এবং তাদের কাজে আসছে, ভিসিটর্স রা অনেক সময় নিয়ে আপনার আর্টিকেল পড়ছেন, তাহলে Google search engine এ আপনার ব্লগের ranking এমনিতেই ভালো থাকবে।

তাছাড়া, আপনার ব্লগের আর্টিকেলের টপিক (topic) বা keywords গুলির বিষয়ে google search bots গুলিকে ভালো করে বুঝিয়ে দেয়ার জন্য আমাদের “On-page SEO” র সঠিক ব্যবহার করতেই হবে।

এখন, যদি সবটাই অন পেজ এসইও (on-page seo) করে এবং quality content লিখেই হয়ে যাচ্ছে, তাহলে off-page seo র কাজ কি ?

কাকে বলে অফ পেজ এসইও ?

অফ পেজ এসইও মানে হলো, নিজের ওয়েবসাইটকে এমন কিছু টেকনিক ব্যবহার করে “সার্চ ইঞ্জিনের জন্য অপটিমাইজেশন” করা, যেখানে সোজা ভাবে ওয়েবসাইটের ভেতরে কাজ করতে হয়না।

মানে, এই মাধ্যমে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করার জন্য, আপনার সম্পূর্ণ ভাবে ওয়েবসাইটের বাইরে গিয়ে কিছু এসইও টেকনিক (seo technique) ব্যবহার করতে হবে।

অফ পেজ এসইও টেকনিক ব্যবহার করে, আমরা ইন্টারনেটে আমাদের ওয়েবসাইটের ব্র্যান্ডিং (branding) করে ওয়েবসাইটের ভালো reputation তৈরি করতে পারি।

এখন, যদি আপনার ব্লগের কনটেন্ট সেরা এবং ভালো হওয়ার সাথে সাথে, ইন্টারনেটে ব্লগটির একটি ভালো রেপুটেশন (reputation) থাকে, ব্লগটি জনপ্রিয় থাকে তাহলে Google search engine থেকে আরো বেশি traffic পাওয়ার সুযোগ হয়ে দাঁড়াবে।

কারণ, জনপ্রিয় এবং ভালো reputation থাকা ওয়েবসাইট গুলি, গুগল অধিক পছন্দ করে।

নিজের ওয়েবসাইটির branding করার জন্য বা ব্লগের ভালো reputation তৈরি করার জন্য, ভালো ভালো quality content লিখা ছাড়াও বাকি যা যা মাধ্যম ব্যবহার করতে পারবেন, সেগুলিকেই বলা হয় “off-page SEO techniques“.

তাই, অন পেজ এসইও টেকনিক গুলিতে যতটাই ধ্যান দিচ্ছেন, কিছু পরিমানে ধ্যান অফ পেজ এসইও র প্রক্রিয়া গুলিতেও দিতে হবে।

এখন হয়তো আপনারা ভালো করে বুঝে গেছে যে, “অফ পেজ এসইও কি“. (About off-page SEO in Bangla)

অফ পেজ এসইও কিভাবে করতে হয় ?

চলুন এখন নিচে আমরা জেনেনেই, “off-page seo কিভাবে করতে হয়”.

মানে, সেরা কিছু অফ পেজ এসইও টেকনিক (off-page seo techniques) গুলি কি কি, সেটা জেনেনেই।

১. Backlink তৈরি করুন 

যদি ভালো করে দেখা যায়, তাহলে অফ পেজ এসইও বললে কিন্তু “ব্যাকলিংক তৈরি” করাটাই বোঝায়।

একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইটের জন্য backlinks তৈরি করার বিভিন্ন মাধ্যম রয়েছে।

ব্যাকলিংক মানে হলো, যেকোনো অন্য ওয়েবসাইট বা ব্লগে, আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগের লিংক (URL address) থাকা।

যতটা বেশি ভালো ভালো এবং high quality ও high DA / PA ওয়েবসাইট গুলির থেকে নিজের ওয়েবসাইটে ব্যাকলিংক পাবেন, গুগলের নজরে আপনার ওয়েবসাইট ততটাই জনপ্রিয় এবং reputed থাকবে।

ব্যাকলিংক তৈরি করাটা, অফ পেজ সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেসনের সব থেকে জরুরি অংশ।

ভালো ভালো অধিক বেশি ডোমেইন অথরিটি (domain authority) থাকা ওয়েবসাইট গুলির থেকে নিজের ওয়েবসাইটে ব্যাকলিংক নিতে পারলে, আপনার ওয়েবসাইটের “domain authority” এবং “search engine ranking” অধিক বৃদ্ধি পাবে।

২. Social media engagement 

প্রত্যেক social media profile গুলির থেকে যতটা বেশি ট্রাফিক বা ভিসিটর্স আপনার ওয়েবসাইটে আসবে, গুগল সার্চ (Google search) আপনার ওয়েবসাইটকে ততটাই বেশি ভালো পাবে।

ব্লগে social media engage বজায় রাখাটা, একটি major off page SEO technique হিসেবে ধরা হয়।

তাই, নিজের ব্লগ এবং ব্লগের কনটেন্ট গুলি নিয়ে social media account গুলিতে আপনার সক্রিয় (active) থাকতে হবে।

মানে, Facebook.com, Twitter.com, Instagram.com, linkedin.com, pinterest.com এবং আরো কিছু জনপ্রিয় high DA/PA social media platform গুলিতে নিজের ওয়েবসাইটের একটি page বা profile তৈরি করতে হবে।

তারপর, তৈরি করা নিজের ওয়েবসাইটের social profile গুলিতে রেগুলার (regular) ব্লগের কনটেন্ট ও আর্টিকেল শেয়ার (share) করুন।

এতে, আপনার ব্লগ ও ওয়েবসাইটের নাম হবে, জনপ্রিয়তা বাড়বে এবং সোশ্যাল মিডিয়া ব্যাকলিংক তৈরি হতে থাকবে।

সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল গুলিতে শেয়ার করা আপনার ব্লগের আর্টিকলে গুলি যখন কেও ক্লিক করে আপনার ব্লগে আসবে, তখন একটি valid social traffic আপনি পাবেন।

এবং, যা আমি আগেই বলেছি, প্রত্যেকটি social media traffic আপনার ব্লগের off-page SEO র জন্য অনেক জরুরি।

কারণ, social media traffic এর মাধ্যমে google search আপনার ওয়েবসাইটের জনপ্রিয়তা এবং reputation এর অনুমান করতে পারে।

Social media traffic এর মাধ্যমে গুগল বুঝতে পারে যে, ইন্টারনেটে আপনার লিখা কনটেন্ট গুলি লোকেদের মধ্যে অনেক প্রচলিত।

তাই, গুগল দ্বারা সার্চ ইঞ্জিনেও আপনার ব্লগের কনটেন্ট গুলি ভালো ভাবে রাংক হওয়ার সুযোগ হয়ে দাঁড়ায়।

তাহলে মনে রাখবেন, নিজের ওয়েবসাইটে কিছু পরিমানে হলেও, সোশ্যাল মিডিয়া গুলির থেকে ট্রাফিক আনার চেষ্টা অবশই রাখবেন।

৩. Social bookmarking sites 

সোশ্যাল বুকমার্কিং ওয়েবসাইট, হলো এমন একটি অনলাইন সার্ভিস যেখানে user রা যেকোনো website বা web pages বা links গুলিকে bookmark হিসেবে সেভ (save) করে রাখতে পারেন এবং অন্যদের সাথে সেই links গুলি শেয়ার করতে পারেন।

নিজের ওয়েবসাইট বা ব্লগ গুলিকে অনলাইন promote এবং marketing করার জন্য, এই ধরণের social bookmarking websites অনেক কাজে আসবে।

যখন আপনারা ওয়েবসাইটের যেকোনো একটি পেজ (page), এই সোশ্যাল বুকমারিং সাইট গুলিতে bookmark করবেন, তখন সেই পেজে কিছু ফ্রি direct traffic পাওয়ার সাথে সাথে আপনি backlinks ও পেয়ে যাবেন।

তাছাড়া, অন্যান্য লোকেরা আপনার bookmark করা website link এর মাধ্যমে, আপনার ব্লগের ব্যাপারে জানবেন।

এইটা, আপনার ব্লগের brand তৈরির ক্ষেত্রে অনেক লাভজনক হবে।

কিছু free এবং popular social bookmarking website গুলির নাম হলো –

  • Scoop.it
  • Reddit.com
  • Stumbleupon.com
  • tumblr.com
  • pinterest.com
  • digg.com
  • delicious.com
  • technorati.com

এই social bookmarking website গুলিতে গিয়ে একাউন্ট তৈরি করে সহজে নিজের ব্লগের লিংক (blog link) বুকমার্ক করতে পারবেন।

৪. Forum Submission

ইন্টারনেটে এরকম অনেক high DA do-follow forum websites রয়েছে, যেগুলিতে গিয়ে লোকেদের সমস্যার সমাধান এবং প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবেন।

হে, অবশই এরকম forum website গুলিতে যোগদান দিতে হবে, যেগুলি আপনার ব্লগের topic, niche বা subject এর সাথে রিলেটেড থাকে।

সমস্যার সমাধান বা প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার সময়, উত্তরের সাথে জড়িত আপনার ব্লগের আর্টিকেল গুলির লিংক অবশই দিয়ে দিতে পারবেন।

এতে, আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের জন্য ভালো ভালো do-follow ব্যাকলিংক তৈরি হওয়ার সুযোগ থাকবে।

কিছু সেরা do-follow forum submission website এর নাম হলো –

  • http://www.addthis.com/forum
  • https://bbpress.org/forums
  • https://www.flickr.com/help/forum/en-us/
  • https://www.warriorforum.com/
  • https://www.digitalocean.com/community
  • http://www.siteownersforums.com/
  • https://moz.com/community/q

আরো অনেক ফোরাম ওয়েবসাইট গুলির নাম আপনারা ইন্টারনেটে অবশই পেয়েযাবেন।

এভাবে আপনারা নিজের ব্লগের জন্য ভালো ভালো কোয়ালিটি ব্যাকলিংক (quality backlinks) তৈরি করতে পারবেন।

৫. Blog directory submission 

ভালো ভালো এবং high quality backlinks তৈরি করার জন্য, directory submission websites গুলি সব সময় একটি ভালো এবং কার্যকর উপায় ছিল।

আপনার কেবল কিছু ভালো high DA এবং do-follow ব্লগিং ডিরেক্টরি ওয়েবসাইটে গিয়ে রেজিস্টার করতে হবে।

রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়াতে আপনি আপনার ব্লগের / ওয়েবসাইটের লিংক জমা করতে হবে।

তারপর, directory তে থাকা বিভিন্ন ক্যাটাগরি (category) গুলির মধ্যে নিজের ব্লগের সাথে জড়িত একটি ক্যাটাগরির বাচাই করে নিন।

এই মাধ্যমে নিজের ব্লগের URL link জমা করার ফলে, আপনি সেই ডিরেক্টরি ওয়েবসাইট থেকে ব্যাকলিংক (backlink) পাবেন।

হে, ফলাফল আসতে অল্প সময় লাগতে পারে যদিও, যখন ফলাফল পাবেন তখন সেটা অনেক বেশি সময়ের জন্য আপনার ওয়েবসাইটের কাজে আসবে।

কিছু popular এবং সেরা high DA/PA directory submission websites হলো –

  • https://www.indiblogger.in/
  • https://www.blogadda.com/
  • https://boingboing.net/
  • https://www.thewebdirectory.org/
  • https://www.siteswebdirectory.com/
  • https://10directory.com/

ইন্টারনেটে আরো অনেক ডিরেক্টরি ওয়েবসাইট আপনারা পেয়ে যাবেন।

৬. Question and Answer Sites

Answers.yahoo.com এবং quora.com এর মতো কিছু জনপ্রিয় এবং high DA থাকা প্রশ্ন উত্তর (question & answer) ওয়েবসাইট গুলির থেকে ভালো পরিমানে direct traffic এবং quality backlinks পেতে পারবেন।

লোকেরা এই ধরণের question & answer ওয়েবসাইট গুলিতে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে প্রশ্ন করেন।

আপনার কেবল, নিজের ব্লগের আর্টিকেলের বিষয়ের সাথে জড়িত প্রশ্ন খুঁজে সেই প্রশ্ন গুলির উত্তর দিতে হবে।

এবং, উত্তরের সাথে নিজের ব্লগের আর্টিকেলের URL link দিতে ভুলবেননা।

এতে, এই high quality প্রশ্ন উত্তর ওয়েবসাইট গুলির থেকে ট্রাফিক পাওয়ার সাথে সাথে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য কিছু quality backlinks ও তৈরি হতে থাকবে।

তাছাড়া, এভাবে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের ভালো reputation এবং brand তৈরি করতে পারবেন।

কারণ এভাবে অনেক লোকেরা আপনার ওয়েবসাইটের ব্যাপারে জেনে যেতে পারবেন।

৭. Guest posting করে

Guest posting কে guest blogging বলেও বলা যেতে পারে।

গেস্ট পোস্টিং এর মানে হলো, একটি আর্টিকেল লিখে অন্য ব্যাক্তির ব্লগ বা ওয়েবসাইটে পাবলিশ (publish) করা।

এখন আপনি হয়তো ভাবছেন, আমি এতো কষ্ট করে আর্টিকেল লিখে অন্য একজনের ব্লগে সেটা কেন পাবলিশ করবো ?

দেখুন, গেস্ট পোস্টিং হলো এমন একটি প্রক্রিয়া, যার মাধ্যমে আমি অসংখক high quality backlink এবং নিজের ব্লগের জন্য direct referral traffic নিয়ে আসছে পারবেন।

এবং high quality backlink মানেই হলো ব্লগের SEO তে ভালো প্রভাব।

এখানে আপনার কি করতে হবে ?

সবচে আগেই, আপনার নিজের ব্লগের বিষয় বা niche এর সাথে রিলেটেড ও মেল্ থাকা ৪ থেকে ৫ টি ব্লগ খুজুন।

তারপর, ব্লগ থেকে ব্লগের মালিকের ইমেইল আইডি নিয়ে তাদের ইমেইল করুন।

ইমেইলে আপনি লিখুন যে আপনি তাদের ব্লগের জন্য একটি আর্টিকেল লিখতে চান। মানে, গেস্ট পোস্ট করতে চাচ্ছেন।

অনেক ব্লগের ক্ষেত্রে, গেস্ট পোস্টিং করার জন্য একটি option অবশই দেওয়া থাকে।

এবার, যদি ব্লগের মালিক আপনাকে guest করার জন্য অনুমতি দেয়, তাহলে একটি আকর্ষণীয় এবং high quality article লিখুন।

আর্টিকেলের যেকোনো একটি বিশেষ জায়গায়, নিজের ব্লগের একটি মাত্র লিংক (link) দিয়ে দিন।

এখন, আপনার ব্লগের লিংক সহ আর্টিকেলটি যখন সেই অন্য ব্লগে ব্লগের মালিকের দ্বারা পাবলিশ করা হবে, তখন তার ব্লগের থেকে আপনার দুই রকমে লাভ হবে।

  1. আপনি আর্টিকেলটিতে দেওয়া, নিজের ব্লগের লিংকের দ্বারা সেই ব্লগটির থেকে direct traffic পাবেন।
  2. যিহেতু আপনার ব্লগের লিংক আর্টিকেলটিতে থাকবে, তাই আপনার ব্লগের জন্য high quality backlink তৈরি হবে।

তাই, guest blogging ভালো ভালো এবং high quality backlink তৈরি করার সব থেকে সেরা মাধ্যম।

তবে, যেগুলি ব্লগে guest post করার সিদ্ধান্ত নিবেন, সেই ব্লগ গুলির DA (domain authority) যাতে ৩০ থেকে বেশি থাকে, সেটা ভালো করে দেখে নিবেন।

কারণ, high DA থাকা ওয়েবসাইট গুলির থেকে আশা ব্যাকলিংক এর গুরুত্ব গুগলের কাছে অনেক বেশি।

Note: যেকোনো ওয়েবসাইটের DA চেক করার জন্য আপনারা “websiteseocheker” ওয়েবসাইটটি ব্যবহার করতে পারবেন।

৮. YouTube এর মাধ্যমে 

YouTube, যেকোনো product, service বা content এর প্রমোশন (promotion) বা মার্কেটিং করার সেরা উপায় হিসেবে বলা যেতে পারে।

এর কারণ হলো, গুগলের পরেই ইউটিউব হলো সব থেকে বেশি ব্যবহার হওয়া video search engine.

তাই, আপনিও ইউটিউবে একটি চ্যানেল তৈরি করে নিজের ব্লগের কন্টেন্ট গুলিকে ভিডিও কন্টেন্ট হিসেবে আবার তৈরি করে পাবলিশ করতে পারবেন।

এতে, আপনি নিজের ব্লগ বা ব্লগের আর্টিকেল গুলি লোকেদের কাছে ভিডিওর মাধ্যমে প্রচার করতে পারবেন।

ব্লগের branding এবং ভালো reputation তৈরি করার জন্য video content তৈরি করে YouTube এ আপলোড করা শুরু করুন।

তাছাড়া, ইউটিউবে প্রত্যেক ভিডিও আপলোড করার সময়, description option এ, নিজের ব্লগের লিংক (links) দিয়ে ইউটিউবের থেকে high quality backlinks পেয়ে যেতে পারবেন।

৯. Image submission websites 

ইন্টারনেটে বিভিন্ন ভালো ভালো “ইমেজ সাবমিশন ওয়েবসাইট” রয়েছে, যেগুলিতে আপনারা ছবি (images) জমা দিয়ে নিজের ওয়েবসাইটের জন্য quality backlinks তৈরি করতে পারবেন।

প্রত্যেকটি ছবি জমা দেয়ার আগেই, ছবি গুলিকে ভালো করে optimize অবশই করে নিবেন।

আপলোড করার সময় ছবিতে সঠিক title tags এবং ওয়েবসাইটের লিংক ব্যবহার করবেন।

কিছু high DA / PA image submission websites গুলি হলো –

  • https://www.mediafire.com/
  • https://in.pinterest.com/
  • https://instagram.com/
  • https://www.flickr.com/
  • https://imgur.com/
  • https://picasa.google.com/

ইন্টারনেটে আরো এরকম অনেক image submission websites রয়েছে।

যদি আপনারা অফ পেজ এসইও (off page SEO) নিয়ে আমার এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়েছেন, তাহলে অবশই বুঝতে পারছেন যে, অফ পেজ এসইও র ক্ষেত্রে আমরা বিভিন্ন মাধ্যমে অন্যান্য ওয়েবসাইট গুলির থেকে ব্যাকলিংক (backlink) পাওয়ার চেষ্টা করি।

মনে রাখবেন, আপনার ব্লগের domain authority এবং আর্টিকেল পেজ গুলির page authority বৃদ্ধি পাবে কেবল high quality backlinks এর ফলে।

এবং, ওয়েবসাইটের domain authority যত বেশি থাকবে, গুগল সার্চ ইঞ্জিনে, আপনার ব্লগের কনটেন্ট গুলি অন্য ব্লগের তুলনায় ভালো ভাবে রাংক করার প্রচুর সুযোগ থাকবে।

ওপরে দেয়া অফ পেজ এসইও টেকনিক গুলি যদি আপনারা ভালো করে বুঝে বাস্তবায়ন (implement) করেন, তাহলে অবশই আপনার ব্লগের SEO ক্ষেত্রে অনেক লাভ পাবেন।

 

আমাদের শেষ কথা,

মনে রাখবেন, সঠিক on-page seo এবং off page seo techniques এর ব্যবহার করে নিজের ওয়েবসাইটকে search engine এর জন্য optimize করতে পারলে, search engine result page (SERP) এ আপনার ওয়েবসাইটের ভালো position থাকবে।

তাই, অন পেজ এসইও একটি ওয়েবসাইটের SEO র জন্য যতটা জরুরি, ঠিক সেরকম ভাবেই অফ পেজ এসইও কিন্তু জরুরি।

তাহলে, আশা করছি “অফ পেজ এসইও কি” (what is off page seo in Bangla) এবং “কিভাবে অফ পেজ এসইও করতে হয়”, দুটো বিষয় নিয়ে আপনারা ভালো করে বুঝে নিতে পেরেছেন।

SEO নিয়ে অন্য কোনো পরামর্শ বা প্রশ্ন থাকলে, আমাকে নিচে কমেন্টের মাধ্যমে জিগেশ করতে পারবেন।

Related Contents:

BanglaTech

5 thoughts on “অফ পেজ এসইও (off page SEO) কি ? কিভাবে করবেন”

  1. ধন্যবাদ আপনাকে এতো ভালো একটা আর্টিকেল আমাদের কে দেওয়ার জন্য

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top