কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে ? জানুন পদ্ধতি উদাহরণ সহ

কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে বা কম্পিউটারের কাজ করার পদ্ধতি কি, আজকের এই আর্টিকেলে আমরা এই বিষয়ে কথা বলবো।

How does computer functions in Bangla

আজ প্রত্যেকের ঘরেই একটি কম্পিউটার অবশই রয়েছে।

কেননা, বর্তমানে যেকোনো কাজের ক্ষেত্রে একটি computer এর প্রয়োজন আমাদের অবশই হয়ে থাকে।

Word processing, entertainment, school project, office work ইত্যাদি বিভিন্ন কাজের উদ্দেশ্যে আমরা আমাদের ঘরে কম্পিউটারের ব্যবহার করে থাকি।

তবে, আপনি কি কখনো ভেবেছেন এই এতটা শক্তিশালী ডিভাইসটি কাজ কিভাবে করে ? (how does computer works in Bangla).

কম্পিউটার কোন পদ্ধতিতে কাজ করে এবং কি কি প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে একটি কম্পিউটার আমাদের প্রত্যেকটি সমস্যার সমাধান গুলো দিয়ে থাকে, এবিষয়ে হয়তো অনেকেই জানেননা।

আসলে কম্পিউটার হলো, বিভিন্ন হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার উপাদান গুলোর মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত একটি মেশিন।

এখন প্রশ্ন হলো, এই মেশিন কাজ কিভাবে করে ? তাই তো ?

দেখুন, কম্পিউটারের কাজ করার প্রক্রিয়া মূলত একটাই

সেটা হলো,

প্রথমে, ইউসার দ্বারা ইনপুট ইউনিট এর মাধ্যমে কম্পিউটারকে নির্দেশ বা ডাটা প্রদান করা হয়।

এর পর, ইনপুট ইউনিট এর মাধ্যমে গ্রহণ করা ডাটা বা নির্দেশ গুলোকে প্রসেস করে আউটপুট ইউনিট এর মাধ্যমে ইউসার কে সমাধান বা আউটপুট প্রদান করা

তবে, এই ইনপুট ডিভাইস ও আউটপুট ডিভাইস এর সাহায্যে এই সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি হয় কিভাবে, সেটাই হলো আমাদের মূল প্রশ্ন।

তবে, আমাদের আগেই কম্পিউটারের মূল উপাদান গুলোর বিষয়ে জেনেনিতে হবে। তাহলেই আমরা ভালো করে বুঝতে পারবো যে “কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে থাকে”.

কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে ?

কম্পিউটার কোন পদ্ধতিতে কাজ করে
কম্পিউটার কিসের মাধ্যমে কাজ করে ?

মূলত ৩ টি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কম্পিউটার নিজের কাজ গুলোকে সম্পন্ন করে থাকে।

  • Input 
  • Process 
  • Output 

ইউসার এর দ্বারা ইনপুট করা ডাটা গুলো প্রসেস করে সেগুলোর সমাধান আমাদের আউটপুট হিসেবে দিয়ে দেয় কম্পিউটার।

সাধারণ ভাবে, কম্পিউটারকে ইনপুট ডাটা বা নির্দেশ দিয়ে দেওয়ার জন্য আমরা keyboard এবং mouse ব্যবহার করে থাকি।

এবং, ইনপুট ডাটা প্রসেস হয়ে আউটপুট পাওয়ার জন্য আমাদের কাছে থাকে, মনিটর (monitor), প্রিন্টার, স্পিকার, প্রজেক্টর ইত্যাদি।

এখন হয়তো আপনি ভাবছেন যে,

কম্পিউটারের কাজ করার পদ্ধতি হলো, “ইনপুট ডাটা গ্রহণ করে সেগুলোকে প্রসেস করে ইউসারকে আউটপুট বা সমাধান প্রদান করা”,

তবে, এই সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হচ্ছে কিভাবে

দেখুন, কম্পিউটারের মধ্যে বিভিন্ন প্রয়োজনীয় উপাদান (components) সমূহ থাকে, যেগুলোর কিছু নিজস্ব এবং গুরুত্বপূর্ণ কাজ রয়েছে।

কম্পিউটার ডিভাইস এর ভেতরে থাকা প্রত্যেকটি উপাদানের সঠিক ও নির্ভুল প্রক্রিয়ার ফলেই একটি কম্পিউটার কাজ করতে পারে।

তাই কম্পিউটারের মূল অংশ বা উপাদান এবং তাদের কাজ গুলোর বিষয়ে জেনেনিলে, আপনারা এর কাজ করার পদ্ধতি অনেকটা বুঝে নিতে পারবেন।

কম্পিউটারের মূল উপাদান গুলো কি কি ?

  • CPU 
  • RAM 
  • HDD / SSD 
  • Motherboard 
  • Video card 
  • Sound card 
  • Network adapter 
  • Power supply unit 

চলুন কম্পিউটারের মূল অংশ কয়টির বিষয়ে আরো জেনেনি।

CPU – ( Central Processing Unit )

CPU বা central processing unit হলো একটি কম্পিউটারের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রধান উপাদান (component)।

একে কম্পিউটারের ব্রেন (brain of the computer) বলে বলা হয়।

যখন ইনপুট ইউনিট এর মাধ্যমে কোনো ইউসার কম্পিউটারকে নির্দেশ দিয়ে থাকে,

তখন CPU, সেই নির্দেশ এর সাথে জড়িত datainformation গুলোকে কম্পিউটারের RAM memory থেকে সংগ্রহ করে,

এবার, সংগ্রহ করা ডাটা গুলোকে সিপিইউ দ্বারা প্রসেস করে ইউসার কে আউটপুট প্রদান করা হয়।

এক্ষেত্রে, প্রয়োজন হিসেবে CPU অন্যান্য কম্পিউটার হার্ডওয়্যার উপাদান গুলোকে নির্দেশ ও সিগন্যাল (signal) অবশই দিয়ে থাকে।

সোজা ভাবে বললে, কম্পিউটারের মধ্যে হওয়া যেকোনো কাজ CPU দ্বারা প্রসেস করা হয়।

CPU, কম্পিউটারের motherboard এর সাথে সংযুক্ত হয়ে থাকে।

RAM – ( Random access memory )

রেম (RAM) হলো কম্পিউটারের অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি হার্ডওয়্যার উপাদান যেটাকে computer এর memory device বলে বলা হয়।

এখানে, ইউসার এর নির্দেশ এর সাথে জড়িত ডাটা গুলো অস্থায়ী ভাবে জমা হয়ে থাকে।

যেমন, operating system এবং software application গুলোর দ্বারা ব্যবহার হওয়া data এবং information গুলো এই রেম মেমোরিতে (RAM memory) জমা থাকে।

এর ফলে, কম্পিউটারের সিপিইউ (CPU) অনেক তাড়াতাড়ি ডাটা গুলোকে রেম মেমরি থেকে সংগ্রহ করে, সেগুলোকে প্রসেস করে আউটপুট প্রদান করতে পারে

মনে রাখবেন, র্যাম এর মধ্যে থাকা ডাটা গুলো অস্থায়ী ভাবে সেখানে জমা থাকে,

তাই কম্পিউটার বন্ধ করে দেওয়ার সাথে সাথে সেই data বা information গুলো RAM memory থেকে মুছে যায়।

HDD / SSD

HDD (hard disk drive) বা SSD (solid state drive), হলো কম্পিউটারের হার্ডওয়্যার উপাদান যেগুলোকে স্টোরেজ ডিভাইস বলেও বলা হয়।

এই স্টোরেজ ডিভাইস গুলোতে আমরা বিভিন্ন software, data, file, video, games ইত্যাদি স্থায়ী ভাবে জমা রাখতে পারি

কম্পিউটার বন্ধ করে দিলেও, এখানে রাখা ডাটা গুলো মুছে বা ডিলিট হয়ে যাবেনা।

যেকোনো সময়, আমরা আমাদের storage device (HDD / SSD) গুলোর মধ্যে গিয়ে সেখানে থাকা data বা file গুলোকে access করতে পারি।

একটি হার্ড ডিস্ক এর মধ্যে কতটা data / file রাখা যাবে, সেটা নির্ভর করবে হার্ড ডিস্ক এর সাইজ এর ওপরে।

500 GB, 1TB, 2TB ইত্যাদি বিভিন্ন size এর থাকতে পারে একটি HDD বা SSD.

তাহলে, হার্ড ডিস্ক কি, সেটা বুঝলেন তো ?

Motherboard

একটি motherboard ছাড়া কোনো ভাবেই কম্পিউটার কাজ করতে পারবেনা।

এভাবেও বলা যেতে পারে যে, motherboard ছাড়া কম্পিউটার এর কল্পনা করাও সম্ভব না।

এটা হলো computer এর “main printed circuit board“, যার সাথে কম্পিউটারের অন্যান্য হার্ডওয়্যার উপাদান গুলো সংযুক্ত হয়ে থাকে।

আর motherboard এর মাধ্যমেই প্রত্যেকটি হার্ডওয়্যার উপাদান গুলোতে বিদ্যুৎ সরবরাহ (power supply) হয়ে থাকে।

তাছাড়া, motherboard এর মাধ্যমেই একটি হার্ডওয়্যার আরেকটি হার্ডওয়্যার এর সাথে পরস্পরে যোগাযোক স্থাপন করতে পারে

Video card

Video card এর মাধ্যমে আমরা আমাদের কম্পিউটারের মনিটরে visual output গুলো দেখতে পারি।

যেমন, ছবি, ভিডিও, গ্রাফিক্স ইত্যাদি।

একটি ভিডিও কার্ড ছাড়া কম্পিউটার ব্যবহার করাটা কিন্তু সম্ভব না।

কেননা, এর অবিহনে আমাদের কম্পিউটারের মনিটরে কেবল blank screen দেখানো হবে

ফলে, ডিসপ্লে ছাড়া কম্পিউটারের সাথে যোগাযোক স্থাপন করাটা অসম্ভব কাজ হয়ে দাঁড়াবে

Sound card

Sound card এর ফলে আমরা কম্পিউটার থেকে শব্দের আউটপুট পেয়ে যাই।

মানে, কম্পিউটার যখন sound বা voice এর মাধ্যমে আমাদের আউটপুট প্রদান করতে চায়,

তখন আমরা সেগুলোকে কিছু output device যেকোন speaker এর মাধ্যমে শুনে নিতে পারি

তবে, এই sound card ছাড়া আমরা speaker এর মাধ্যমে sound শুনতে পারবোনা।

Network adapter

বর্তমান সময়ে, ইন্টারনেট ছাড়া কম্পিউটারে কোনো ধরণের কাজ সম্ভব না সেই কথা আপনিও জানেন।

তবে, কম্পিউটারের সাথে ইন্টারনেট সংযোগ করা মানেই একটি “external computer network” এর সাথে কম্পিউটার কে সংযোগ করা।

আর, কম্পিউটার কে বাইরের যেকোনো নেটওয়ার্ক কানেকশন এর সাথে সংযুক্ত করার ক্ষেত্রে এই network adapter কাজ করে থাকে।

এটাও কম্পিউটারের একটি জরুরি হার্ডওয়্যার উপাদান।

Power supply unit (PSU)

Power supply unit (PSU) কে, কম্পিউটারের একটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভাগ হিসেবে বলা যেতে পারে।

কারণ, PSU এর মাধ্যমেই সম্পূর্ণ motherboard এবং motherboard সাথে জড়িত হার্ডওয়্যার উপাদান গুলোতে বিদ্যুৎ সরবরাহ (power supply) করা হয়।

যখন আমরা কম্পিউটার এর সুইচ অন করে থাকি,

তখন সবচে প্রথমে,

PSU (power supply unit), কম্পিউটারের বিভিন্ন অভ্যন্তরীণ অংশ গুলোর ক্ষেত্রে, মূল AC power টিকে low-voltage regulated DC power হিসেবে কনভার্ট করে থাকে।

তারপর, motherboard এর মধ্যে power supply চালু করে দেয় যার ফলে কম্পিউটার শুরু হয়ে যায়।

 

তাহলে বুঝলেন তো, কম্পিউটারের মূল উপাদান কি কি এবং তাদের কাজ গুলো কি ?

এবার হয়তো আপনারা কিছু হলেও বুঝতে পেরেছেন যে, “কম্পিউটার কোন পদ্ধতিতে কাজ করে“.

আমরা অবশই ওপরে বুঝতে পারলাম যে, কম্পিউটারের মূল অংশ গুলো কি এবং এরা কিভাবে কাজ করে।

তবে, একজন user হিসেবে যখন আমরা computer কে কাজ দিয়ে থাকি,

তখন, computer কি হিসেবে কাজ করে আমাদের সমাধান বা আউটপুট প্রদান করে, সেই প্রক্রিয়ার বিষয়ে চলুন নিচে জেনেনেই।

কম্পিউটারের কাজ করার পদ্ধতি – (উদাহরণ সহ)

চলুন এখন আমরা সরাসরি ভাবে জেনেনি, একটি কম্পিউটার সিস্টেম কাজ করে কিভাবে।

  • প্রথমে, বিভিন্ন ইনপুট ডিভাইস যেমন, keyboard, mouse, scanner, ইত্যাদির ব্যবহার করে আমরা আমাদের নির্দেশ বা ইনপুট ডাটা গুলোকে কম্পিউটারের কাছে প্রেরণ করে থাকি।
  • সাথে সাথে আমাদের দেওয়া নির্দেশ এর সাথে জড়িত program data এবং information গুলো কম্পিউটারের RAM মেমরিতে জমা হয়ে যায়।
  • ইউসার এর ইনপুট / নির্দেশ অনুযায়ী, রেম মেমরিতে (RAM memory) থাকা ডাটা গুলো এবার motherboard এর মধ্যে সংযুক্ত সিপিইউর (CPU) দ্বারা সংগ্রহ করা হয়।
  • এখন, সংগ্রহ করা data গুলো CPU প্রসেস করবে এবং প্রয়োজনীয় hardware / software গুলোকে কাজ করার জন্য নির্দেশ দিবে।
  • শেষে, যখন CPU এবং কিছু hardware / software এর মাধ্যমে আমাদের দিয়ে দেওয়া কাজ কম্পিউটার করে নিবে, তখন আউটপুট ডিভাইস (monitor, printer) গুলোর মাধ্যমে আমরা আমাদের সমাধান পেয়ে থাকি।
  • কম্পিউটার এর মাধ্যমে সমাধান পাওয়াকে আউটপুট (output) বলে বলা হয়।

মনে রাখবেন, বিভিন্ন ধরণের hardware components গুলোর মিশ্রনের ফলে একটি computer তৈরি হয়েছে।

এবং, আপনার দেওয়া নির্দেশ অনুযায়ী একটি কম্পিউটার সঠিক ভাবে কাজ তখনি করতে পারবে, যখন সেখানে জরুরি হার্ডওয়্যার গুলো থাকবে।

শেষে চলুন একটি উদাহরণ দিয়ে কম্পিউটার এর কাজ করার নিয়ম আমরা জেনেনি।

উদাহরণ স্বরূপে,,

ধরুন আপনি নিজের কম্পিউটারের স্টোরেজ ডিভাইস (HDD / SSD) এর মধ্যে থাকা একটি movie ওপেন করার জন্য কম্পিউটার কে নির্দেশ দিলেন।

  • কম্পিউটারকে movie টি open করার জন্য আপনি অবশই keyboard / mouse ব্যবহার করেছেন।
  • তাই এক্ষেত্রে, কিছু input device এর ব্যবহার করে আপনি কম্পিউটারকে movie open করার নির্দেশ বা ইনপুট ডাটা দিলেন।

এখন, movie টি play হওয়ার জন্য প্রথমেই একটি সফটওয়্যার এপ্লিকেশন এর প্রয়োজন হবে।

তবে, movie টিতে click করার সাথে সাথেই সেটা চলার জন্য জরুরি program data, information এবং instructions আপনার কম্পিউটারের র্যাম মেমোরিতে অস্থায়ী ভাবে জমা হয়ে যাবে।

এবার, র্যাম মেমরি থেকে প্রত্যেকটি data ও information গ্রহণ করবে CPU.

CPU নিয়ে নেওয়া তথ্য এবং নির্দেশ অনুযায়ী কিছু calculations করে কাজটি প্রসেস করবে।

শেষে, movie টি চলার জন্য জরুরি software বা hardware টিকে নির্দেশ দিয়ে সিনেমাটিকে চালিয়ে দেওয়া হবে।

  • আমরা যেই সিনেমাটি দেখতে চেয়েছিলাম সেটা monitor, projector ইত্যাদি output device এর মাধ্যমে আমাদের দেখিয়ে দেওয়া হবে।
  • তাই, কম্পিউটার এক্ষেত্রেও আউটপুট/সমাধান প্রদান করার জন্য আউটপুট ডিভাইস এর ব্যবহার করলো।

এবার বুঝলেন তো, কম্পিউটার সিস্টেম কোন মাধ্যমে কাজ করে থাকে ?

  1. Input গ্রহণ করা
  2. ডাটা প্রসেস করা
  3. সমাধান বা আউটপুট প্রদান করা।

এই ৩ মাধ্যমেই করে থাকে একটি কম্পিউটার কাজ।

 

আমাদের শেষ কথা,,

তাহলে বন্ধুরা আশা করছি আজকের এই আর্টিকেল, কিভাবে কাজ করে একটি কম্পিউটার (How does computer works) আপনাদের ভালো লেগেছে।

আমার সবসময় এটাই চেষ্টা থেকেছে, আমি যাতে আপনাদের সম্পূর্ণ সঠিক ও কাজের তথ্য দিয়ে থাকতে পারি।

তাই, আজকের এই আর্টিকেল নিয়ে যদি আপনাদের মনে কোনো ধরণের প্রশ্ন মা পরামর্শ থাকে, তাহলে কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন।

তাছাড়া, computer function নিয়ে লিখা আজকের এই আর্টিকেল যদি আপনাদের পছন্দ হয়েছে, তাহলে আর্টিকেলটি শেয়ার অবশই করবেন।

 

3 thoughts on “কম্পিউটার কিভাবে কাজ করে ? জানুন পদ্ধতি উদাহরণ সহ”

  1. অনেক ধন্যবাদ ভাই, আপনার এই আর্টিকেল থেকে অনেক কিছু জানার আছে।

  2. vai amar ekta prosno chilo google analytics er jonnobki plugin use korbo? ba apni google analytics use korte ki plugin use koren?

    1. আমি কোনো প্লাগিন ব্যবহার করিনা। Header & footer প্লাগিন ব্যবহার করে analytics এর code head section এর মধ্যে past করলেই হলো।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error:
Scroll to Top
Copy link
Powered by Social Snap