এন্ড্রয়েড মোবাইলে কিভাবে অ্যাপ লুকানো যায় – (apps লুকানো apps)

মোবাইলে কিভাবে অ্যাপ লুকানো যায়: অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে অ্যাপ, ফটো ও অন্যান্য ফাইল লুকিয়ে রাখার অসংখ্য কারণ থাকতে পারে। 

কিভাবে অ্যাপ লুকানো যায়
How to hide apps in android smartphone ?

হয়তো, আপনার কাছে এমন কোনো ফাইল আছে, যা আপনি চান না অন্য কেউ দেখে ফেলুক কিংবা আপনার কাছে এমন অ্যাপ রয়েছে, যা একেবারেই শিশু-বান্ধব নয়। 

তাই, আপনার সুবিধার্থে আমরা আপনাকে সন্ধান দেব,

এমন অ্যাপ হাইডার অ্যাপস সম্পর্কে যেগুলো আপনার ব্যক্তিগত জিনিসগুলোকে গোপন রাখতে সাহায্য করবে।

তাই, আপনারা বুঝতেই পারছেন যে, আজকে আমাদের আর্টিকেলে আমরা আলোচনা করবো, apps লুকানো apps গুলোর সম্পর্কে

এই অ্যাপগুলো সব কটিই অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের জন্যেই উপযুক্ত।   

কিভাবে অ্যাপ লুকানো যায় – ৭টি সেরা অ্যাপ হাইডার অ্যাপ্লিকেশন

চলুন, তাহলে নিচে আমরা সরাসরি জেনেনি এমন কিছু android apps গুলোর বিষয়ে যেগুলোর ব্যবহার করে অন্যান্য apps বা files গুলো লুকোনো যাবে।

১. App Hider-Hide Apps and Photos:

অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসগুলোর জন্যে অন্যতম সেরা হল এই  App Hider অ্যাপটি। 

এই অ্যাপের সাহায্যে আপনি ফেইসবুক মেসেঞ্জার, হোয়াটস্যাপ ও ইন্সট্রাগ্রামের মতো সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের একাধিক প্রোফাইল একটা ফোন থেকেই ব্যবহার করতে পারবেন। 

এছাড়াও, এই অ্যাপ্লিকেশানটি আপনার ফোন ক্যালকুলেটর হিসেবে লুকিয়ে থাকে।  

ফিচার:

– অ্যাপগুলোকে ক্লোন করা সম্ভব 

– ফটো ও ভিডিও হাইড করা যায় 

– একাধিক সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট একসাথে অ্যাক্সেস করা যায়  

– হাইড করার অ্যাপটিকে হোম সিস্টেম থেকে এখানে ইম্পোর্ট করলেই তা হাইড হয়ে যায়  

২. App Hider: Hide Apps:

App Hider অ্যাপটি আপনাকে ক্যালকুলেটর অ্যাপ হিসেবে পাসওয়ার্ড-এর সুরক্ষা সমেত অ্যাপ্লিকেশনগুলোকে লুকাতে সাহায্য করে। 

এটি আপনাকে সিস্টেম অ্যাপগুলোর একটা করে কপি তৈরি করতে সাহায্য করে। 

তারপরে, আপনি অ্যাপের সঠিক নিরাপত্তার সাথে কপি অ্যাপগুলো লুকিয়ে রাখতে পারেন।

ফিচার:

– ফেক ক্যালকুলেটর ও পাসওয়ার্ড লক 

– হিডেন অ্যাপগুলো সহজেই রান করা যায়

– ক্লোন্ড অ্যাপগুলো লোকানোর উপযুক্ত জায়গা 

– একসাথে অনেকগুলো অ্যাকাউন্ট এক ডিভাইসে ব্যবহার করা যায় 

৩. App Hider Lite:

App Hider Lite হল এই তালিকার অন্যতম সেরা একটা অ্যাপ। 

বিশেষ করে, এই অ্যাপটি হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক মেসেঞ্জার ও ইন্সট্রাগ্রামের প্রোফাইল লোকানোর জন্যে খুবই দুর্দান্ত একটা মাধ্যম। 

এর অ্যাপ ক্লোনিং ফাঙ্কশনের সাহায্যে আপনি একটা ডিভাইস থেকে একাধিক অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেস করতে পারবেন। 

ফিচার:

–  সহজেই অ্যাপ ক্লোনিং করা যায়

– কোনোরকম রুট ও ভাইরাস ছাড়াই ব্যবহার করা যায়

– একটা ডিভাইসেই বিভিন্ন গেমের একাধিক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করা যায়  

– একটা ডিভাইস থেকে সোশ্যাল মিডিয়ার একাধিক অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেস করা সম্ভব

৪. Dialer Lock – AppHider:

Dialer Lock অ্যাপটি আপনাকে যেকোনো অ্যাপকে একদম সম্পূর্ণ গোপনীয়তার সাথে লুকিয়ে রাখতে সাহায্য করে। 

এই অ্যাপ্লিকেশানটি আপনার ফোনের ইন্টারফেসে লুকানো অ্যাপগুলোকে অ্যাক্সেসও করতে দেয়৷ 

এছাড়াও, ডায়ালার লক আপনাকে ফটো লোকানোর ফাংশন দিয়ে থাকে, যাতে আপনি ছাড়া কেউ আপনার গ্যালারি থেকে ছবিগুলো দেখতে না পারে। 

আপনি সুরক্ষিত ছবিগুলো Hider’s Gallery থেকে দেখতে পাবেন।

ফিচার:

– ফটো, ভিডিও ও গ্যালারিও হাইড করা যায় 

– পাসওয়ার্ড প্রোটেকশন সহ অ্যাপ হাইড করা যায় 

– হিডেন অ্যাপগুলো এই অ্যাপেই কেবলমাত্র ব্যবহার করা যাবে  

– ব্যক্তিগত ছবি তোলার জন্য Hider’s ইনবিল্ট ক্যামেরা ব্যবহার করা যায় 

৫. App Hider: smart store

কোনো একটা ডিভাইস থেকে একাধিক অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেস করার জন্য App Hider হল একটা চমৎকার অ্যাপ ক্লোনার। 

এই অ্যাপটি দুর্দান্তভাবে আপনার ফটো এবং ভিডিওগুলো নিরাপদে লুকিয়ে রাখতে পারে। 

এখন আপনি App Hider অ্যাপে পাসওয়ার্ড, প্যাটার্ন, কিংবা ফিঙ্গারপ্রিন্ট লক দিয়ে আপনার গোপনীয় অ্যাপ বা ফাইল সুরক্ষিত রাখতে পারেন। 

এটি ক্যালকুলেটর লক বা কম্পাসের আইকন হিসেবে আপনার ফোনে লুকিয়ে থাকতে পারে।

ফিচার:

– ছবি ও ভিডিওগুলো হাইড করা যায় 

– পাসওয়ার্ড সমেত অ্যাপগুলো হাইড করে   

– কম্পাস বা ক্যালকুলেটরের আইকনে লুকিয়ে থাকে

– প্যাটার্ন, ফিঙ্গারপ্রিন্ট ও পাসওয়ার্ড লক উপলব্ধ রয়েছে 

৬. Notepad Vault-AppHider:

Notepad Vault হল এমন একটা অ্যাপ, যা যেকোনো অ্যাপ গোপনীয়তার সাথে লুকিয়ে রাখতে পারে। 

আপনি নোটপ্যাড ভল্ট কিংবা আপনার ফোনের ইন্টারফেসে লুকানো অ্যাপ খুলতে পারবেন। 

এছাড়াও, এই অ্যাপের হিডেন ইমেজ ফাংশন আপনাকে আপনার ফটো ইম্পোর্ট করে সেগুলোকে সহজেই হাইড করতে দেয়। 

আর, আপনি হাইডারের গ্যালারি থেকে সুরক্ষিতভাবে ছবি ব্রাউজও করতে পারেন।

ফিচার:

– স্ট্যান্ডার্ড ক্যালকুলেটর হিসেবে এই অ্যাপ খোলা যায় 

– পাসওয়ার্ড না জানলে এই অ্যাপ অ্যাক্সেস করা যাবে না 

– অল, নম্বর কিংবা নান- তিন মোডে নোটিফিকেশন হাইড করা যায়   

– ফোন ইন্টারফেস কিংবা এই অ্যাপে সহজেই হিডেন অ্যাপগুলো ব্রাউস করা যায় 

৭. Hide Photos, Video and App Lock – Hide it Pro:

এই অ্যাপটি বেশ স্মার্টভাবে আপনার ফোন “Audio Maneger”-এর আইকন হিসেবে লুকিয়ে থাকে। 

আপনি এর মাধ্যমে প্রথমে আপনার ফোনের ভলিউমকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন। 

কিন্তু, আপনি যদি ‘অডিও ম্যানেজার’- আইকনের উপর দীর্ঘক্ষণ প্রেস করেন, তাহলে আপনি এই Hide it Pro অ্যাপটি দেখতে ও ওপেন করতে পারবেন। 

তাই, আপনি এই অ্যাপটি সাহায্যে সুরক্ষিতভাবে নিজের ফটো, ভিডিও, টেক্সট কিংবা অ্যাপ লুকোতে পারবেন। 

আপনি আপনার ব্যক্তিগত ভল্টে ফটো, ভিডিও কিংবা অন্য ফাইলও লুকিয়ে রাখতে পারেন।

ফিচার:

– ফাইলের বিনামূল্যে ক্লাউড ব্যাকআপ পাওয়া যায় 

– অডিও ম্যানেজার কিংবা ক্যালকুলেটরের আইকন হিসেবে থাকে 

– VLC ও MX Player-এর মতো ইন্টিগ্রেটেড ভিডিও প্লেয়ার আছে 

– সিক্রেট চ্যাটিং, প্রাইভেট ব্রাউসিং, প্রাইভেট মেসেজ/কল ও আরও ফিচার আছে 

 

আমাদের শেষ কথা,,

উপরে আলোচিত প্রায় সব কটি অ্যাপই মোটামুটি একই রকমের ফাঙ্কশন দিয়ে থাকে,

তাই এক্ষেত্রে আপনি আপনার পছন্দমতো যেকোনো অ্যাপকেই আপনার কাজের জন্যে ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

আমাদের আজকের ‘মোবাইলে কিভাবে অ্যাপ লুকানো যায়?’ নিয়ে লেখা আর্টিকেলটি এখানেই শেষ হল। 

লেখাটি পছন্দ হলে অবশ্যই তা কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন।  

 

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top
Copy link
Powered by Social Snap