অনলাইনে ফ্রিতে টাকা ইনকাম করার সেরা গাইড: ৭টি প্রমাণিত পদ্ধতি

Last updated on May 5th, 2024 at 09:09 pm

অনলাইনে কীভাবে বিনামূল্যে অর্থ উপার্জন করা যায় সেই বিষয়টি নিয়েই মূলত আজকের আমাদের এই আর্টিকেলটি রয়েছে। এমনিতে ইন্টারনেটে গিয়ে সামান্য ব্রাউস করে দেখলেই অনলাইনে ফ্রিতে টাকা ইনকাম করার নানান উপায় গুলো আপনারা পেয়ে যাবেন। তবে, কোন উপায় গুলি ব্যবহার করে কোনো বিনিয়োগ ছাড়া সত্যি ফ্রিতেটাকা উপার্জন করা যাবে সেটা ভালো করে জানাটাই আসল ব্যাপার।

ফ্রি টাকা ইনকাম উপায়
7 Best free online income ways you can start now.

বর্তমানে এমন নানান অনলাইন পার্ট-টাইম ইনকাম জব গুলো রয়েছে যেগুলি আপনি চাকরির পাশাপাশি নিজের খালি সময়ে করেও সম্পূর্ণ ফ্রিতে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। মনে রাখবেন, অনলাইনে দ্রুত টাকা উপার্জন করার ক্ষেত্রেও আপনাকে কেবল সেই প্রমাণিত উপায় বা মাধ্যম গুলো ব্যবহার করা উচিত যেগুলো ব্যবহার করে বিশ্বজুড়ে হাজার হাজার লোকেরা নিয়মিত অনলাইনে রোজগার করে নিতে পারছেন।

যদি অন্যান্য ব্যক্তিরা কোনো টাকা বিনিয়োগ না করে অনলাইনে সম্পূর্ণ ফ্রিতে টাকা ইনকাম করতে পারছেন, তাহলে আপনিও অবশই পারবেন। মনে রাখবেন, এমনও নানান প্রমাণিত ইনকামের উপায় গুলো রয়েছে যেগুলোর দ্বারা অনলাইনে প্রতিদিন ১০০০ টাকা পর্যন্ত আরামে ইনকাম করা সম্ভব।

আর তাই, কোনো টাকা না লাগিয়ে অনলাইন থেকে সম্পূর্ণ ফ্রিতে কিভাবে টাকা ইনকাম করতে হয় সেই বিষয়ে স্পষ্টভাবে বুঝিয়ে বলার উদ্দেশ্যে আমাদের আজকের আর্টিকেলটি লিখা হয়েছে।

অবশই পড়ুন: ঘরে বসে টাকা ইনকাম করার কি কি অনলাইন কাজ রয়েছে?

ইন্টারনেটে ফ্রিতে টাকা ইনকাম করার পদ্ধতি গুলো কি বৈধ?

July month blogging income report
Last month blogging income report (July 2023).

একজন ব্লগার হয়ে আমি নিজেই ২০২৩ সালের জুলাই মাসে আমার ব্লগ থেকে প্রায় ৭০০ ডলার অনলাইনে ইনকাম করতে পেরেছি। তাই, অনলাইন ইনকাম করার এমন উপায় অবশই রয়েছে যেগুলো সত্যি টাকা দিয়ে থাকে।

অনলাইনে কিন্তু বৈধ এবং অবৈধ উভয় কাজ বা উপায় গুলো রয়েছে।

এমন নানান ওয়েবসাইট বা প্লাটফর্ম গুলো রয়েছে যেখানে কাজ করার জন্য registration fee বা security deposit হিসেবে কিছু টাকা আপনার থেকে চাওয়া হবে।

আমার হিসেবে এই ধরণের ওয়েবসাইট থেকে আপনাকে দূরে থাকতে হবে।

এছাড়াও, ইন্টারনেটে অনলাইন টাকা ইনকাম করার এমন নানান ফ্রি ওয়েবসাইট বা অ্যাপস গুলো রয়েছে যেগুলোতে সম্পূর্ণ ফ্রিতে কাজ শুরু করা যাবে এবং ইনকামও করতে পারবেন।

কিন্তু, যখন টাকা তোলার সময় আসবে তখন আপনার একাউন্ট block বা deactivate করে দেওয়া হবে এবং ফলে কোনো টাকা আপনাকে দেওয়া হবেনা।

তাই, যেই কোম্পানির সাথে কাজ করছেন, সেই কোম্পানি কত বছর ধরে মার্কেটে রয়েছে, সেই কোম্পানিতে কাজ করা অন্যান্য ব্যক্তিরা কি বলছেন, কোম্পানির একটি ডিসেন্ট পেমেন্ট পলিসি আছে কি না এবং পেমেন্ট এর প্রুফ পাওয়া যাচ্ছে কি না, এই সমস্ত বিষয়ে নজর দিতে হবে।

আমার পরামর্শ এটাই থাকছে যে, যদি আপনি নিজের মূল্যবান সময় গুলো কোনো কাজে ইনভেস্ট করছেন, তবে সেটা এমন জায়গাতে লাগানো উচিত যেখান থেকে টাকা উপার্জনের সম্ভাবনা ১০০% থাকছে। সেটা সম্পূর্ণ ফ্রিতে ইনকাম করার উপায় হোক বা কোনো প্রফেশনাল ওয়ার্ক, ইনকামের নিশ্চয়তা থাকলেই সেই কাজটি করা উচিৎ।

তাই, কোন জিনিস, উপায়, ওয়েবসাইট বা প্লাটফর্মটি নিরাপদ বা বৈধ সেটা আপনাকে নিজেই যাচাই করে দেখতে ও বুঝতে হবে। এর জন্যে আপনি, ইনকামের পদ্ধতি গুলোর সাথে জড়িত প্রশ্ন গুলো ইন্টারনেটে সার্চ করে দেখতে পারে।

আবার নানান online user reviews গুলো পড়ার মাধমেও, সেই ফ্রি ইনকামের উপায় বা ওয়েবসাইটটি নিরাপদ এবং বৈধ কি না সেটা বুঝতে পারবেন।

অবশই পড়ুন: সেরা ১৩টি অনলাইনে টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট

এই ফ্রি অনলাইন ইনকাম পদ্ধতি গুলো কি সময় সাপেক্ষ?

দেখুন যেকোনো কাজ করার ক্ষেত্রেই আপনাকে সেই কাজে সময় দিতে হবে।

আমি মানলাম, নিচে বলে দেওয়া এই ফ্রি টাকা ইনকাম করার উপায় গুলোর জন্য আপনাকে সরাসরি কোনো ধরণের টাকা ইনভেস্ট করতে হবেনা, তবে সময় কিন্তু ইনভেস্ট করতেই হবে।

অনলাইনে কাজ করে ফ্রিতে ইনকাম করার যেই উপায় গুলোর বিষয়ে আমি বলতে চলেছি, সেগুলোর দ্বারা বর্তমান সময়ে হাজার হাজার লোকেরা প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারছেন।

তবে কাজ গুলোর বিষয়ে সম্পূর্ণ ভালো করে জ্ঞান লাভ করে কাজের ধরণ এবং প্রক্রিয়া গুলো আপনার বুঝতে হবে।

আপনি যদি একজন ছাত্র, মহিলা বা বর্তমানে ফুল-টাইম চাকরিতে জড়িত রয়েছেন, তাহলেও কোনো সমস্যা নেই। বলে দেওয়া কাজ গুলো আপনারা নিজের খালি সময়ে করতে পারবেন।

তবে হ্যা, কাজ গুলো করার জন্য আপনাকে সময় অবশই বের করতেই হবে।

প্রতিদিন অল্প অল্প কাজ করার মাধ্যমে নিজের জন্য একটি প্যাসিভ ইনকামের রাস্তা তৈরি করা যাবে। এর পর আপনি চাইলে এই কাজ গুলিকে ফুল-টাইম হিসেবে করেও ঘরে বসেই নিয়মিত অনলাইনে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

রিলেটেড: মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার দারুন উপায় গুলো

ইন্টারনেট থেকে ফ্রি টাকা ইনকাম করার লাভজনক ৭টি উপায়:

ফ্রি অনলাইন টাকা ইনকাম উপায়:মোটামোটি ইনকামের সুযোগ:সময় লাগতে পারে:
১. Blogging করে ইনকামমাসে ৮ থেকে ৪০ হাজার৬ থেকে ১২ মাস
২. কনটেন্ট/আর্টিকেল রাইটিংমাসে ৫ থেকে ২৫ হাজার১ মাসের মধ্যে ইনকাম সম্ভব
৩. Affiliate Marketingমাসে ২ থেকে ৫০ হাজার১ মাস থেকে ৩ মাস
৪. Refer করে ইনকাম করুনমাসে ১ থেকে ৫ হাজারসাথে সাথে ইনকাম সম্ভব
৫. Online Survey৫০০ থেকে ৫ হাজারসাথে সাথে ইনকাম সম্ভব
৬. অনলাইনে কোর্স কিক্রি করে৫ থেকে ৩০ হাজারসাথে সাথে ইনকাম সম্ভব
৭. অনলাইনে টিউশনি করিয়েছাত্রদের সংখ্যার ওপর নির্ভর১ মাসের মধ্যে ইনকাম সম্ভব

ওপরে আমি যেই উপায় গুলো উল্লেখ করেছি সেগুলো একেবারেই প্রমাণিত এবং বিশ্বস্ত। কেননা, এই উপায় গুলো কাজে লাগিয়ে কেবল আমাদের দেশেই নয় তবে বিশ্বজুড়ে লক্ষ লক্ষ লোকেরা কোনো টাকা ইনভেস্ট না করে সম্পূর্ণ ফ্রেটেই ইনকাম করার দারুন সুযোগ তৈরি করতে পেরেছেন।

তবে আমি ওপরে যা বলেছি, প্রতিটি ইনকামের উপায় গুলো কেবল তখনি আপনার কাজে লাগবে যখন সেগুলোর বিষয়ে ভালো করে রিসার্চ করে জ্ঞান লাভ করবেন এবং নিয়মিত সময় দিয়ে কাজের ধরণ, নিয়ম এবং প্রক্রিয়া গুলো বুঝে নিবেন।

চলুন, নিচে আমরা ওপরে বলে দেওয়া প্রতিটি বিনিয়োগ ছাড়া ইনকামের উপায় গুলোর বিষয়ে বিস্তারিত জেনেনেই।

Blogging করে ইনকাম

Blogging হলো বর্তমান সময়ের সব থেকে বিশ্বস্ত, লাভজনক এবং কোনো ধরণের বিনিয়োগ ছাড়া করার মতো একটি দারুন অনলাইন প্যাসিভ ইনকাম মডেল। ৬ মাস থেকে ১ বছর নিয়মিত সঠিক উপায় গুলি কাজে লাগিয়ে মন দিয়ে কাজ করতে পারলে মাসে ৮ থেকে ১৫ হাজার টাকা প্রতিমাসে আরামে ইনকাম করতে পারবেন। শুধুমাত্র একটি সিঙ্গেল ব্লগ দিয়েই মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করা যায়।

এছাড়া, কোনো ধরণের বিনিয়োগ না করেই সম্পূর্ণ ফ্রি মাধ্যমে ব্লগিং শুরু করে টাকা ইনকাম করা সম্ভব।

Blogging-কে একটি free passive income method বলেও বলা যেতে পারে। কারণ, ব্লগিং এর ক্ষেত্রে এমন একটি সময় চলে আসে যখন নতুন করে কোনো কাজ না করেও আগে পাবলিশ করা আপনার ব্লগ কনটেন্ট গুলোর থেকে নিয়মিত ইনকাম হতেই থাকে।

এক্ষেত্রে, আপনি একাধিক blog তৈরি করার মাধ্যমে নিজের ইনকাম অধিক বাড়িয়ে নিতে পারবেন।

Blogging করে কিভাবে ইনকাম করবেন?

  • Blogger.com-এর মাধ্যমে নিজের একটি ফ্রি ব্লগ তৈরি করে নিতে পারবেন।
  • অনলাইনে প্রচুর সার্চ হয় এমন একটি লাভজনক বিষয় সিলেক্ট করুন।
  • সিলেক্ট করা বিষয়টির ওপর নিয়মিত নতুন নতুন আর্টিকেল লিখুন এবং ব্লগে পাবলিশ করুন।
  • নিজের ব্লগ সাইটটি google search console-এর মধ্যে জমা দিন। এতে, আপনার ব্লগটি গুগল সার্চ এর মধ্যে দেখানো হবে।
  • ৩ থেকে ৪ মাস নিয়মিত আর্টিকেল পাবলিশ করার পর ব্লগে traffic/organic visitors আসতে শুরু হবে।
  • ব্লগে প্রতিদিন কমেও ৩০০ থেকে ৫০০ ভিসিটর আসতে শুরু হলে Google AdSense-এর জন্যে এপ্লাই করুন।
  • এবার, গুগল এডসেন্স থেকে দিয়ে দেওয়া বিজ্ঞাপনের কোড গুলো নিজের ব্লগে পেস্ট করুন।
  • এখন আপনার ব্লগে গুগল এডসেন্স দ্বারা বিজ্ঞাপন দেখানো হবে যেগুলোতে ক্লিক পড়লেই আপনি টাকা পাবেন।
  • ব্লগ সাইটে যত অধিক লোকেরা ভিসিট করবেন বিজ্ঞাপনে অধিক ক্লিক হওয়ার সুযোগ ততটাই বেশি থাকবে।
  • এভাবে আপনার Google AdSense account-এর মধ্যে ১০০ ডলার ইনকাম হয়ে গেলে সেই টাকা নিজের bank account-এ তুলে নিতে পারবেন।

ব্লগিং এর সাথে জড়িত আর্টিকেল:

কনটেন্ট/আর্টিকেল রাইটিং

কনটেন্ট বা আর্টিকেল রাইটিং হলো একটি দারুন ও লাভজনক অনলাইন ইনকামের পদ্ধতি যেখানে টাকা ইনকামের জন্য আপনাকে বিভিন্ন ক্লায়েন্ট বা প্লাটফর্মের জন্য আর্টিকেল গুলো লিখতে ও সেগুলিকে সময় মতো প্রদান করতে হয়।

যেই ব্যক্তিরা লিখিত তবে সহজ সরল শব্দের মাধ্যমে ধারণা, তথ্য বা গল্প গুলো প্রকাশ করার দক্ষতা রাখেন তাদের জন্য এটি একটি জনপ্রিয় ও লাভজনক ইনকামের বিকল্প হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে। লেখালেখিতে রুচি থাকা ফ্রিল্যান্স লেখকদের জন্য কোনো টাকা ইনভেস্ট না করে ফ্রিতে পার্ট-টাইম টাকা ইনকাম করার এটা সেরা উপায়।

আপনি যদি প্রতিদিন কেবল ১টি করেও আর্টিকেল লিখে থাকে, তাও কমেও ৫০০-৬০০ টাকা প্রতিদিন ইনকাম করতে পারবেন। তবে আর্টিকলেপ্রতি কত টাকা ইনকাম হবে সেটা মূলত CPW-এর ওপর নির্ভর করছে। মানে, প্রিতিটি শব্দের জন্য আপনাকে কত টাকা দেওয়া হচ্ছে।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে যদি আপনি একটি সেরা এবং ইউনিক বাংলা আর্টিকেল লিখে থাকেন, তাহলে প্রায় ৩০-৩৫ পয়সা প্রতি শব্দের জন্যে দেওয়া হয়। তাই ১৫০০ শব্দের একটি আর্টিকেল লিখতে পারলে ১৫০০*০.৩৫ = ৫২৫ টাকা। আমি নিজেই আমার কনটেন্ট রাইটার দের ৩৫ পয়সা প্রতি শব্দের জন্যে দিয়ে থাকি।

কিভাবে শুরু করবেন অনলাইনে কনটেন্ট লেখার কাজ?

  • আর্টিকেল লেখার জন্যে সাধারণ লেখালেখির অভিজ্ঞতা থাকা দরকার।
  • চাইলে YouTube থেকে বা কোর্স এর মাধ্যমে একটি পারফেক্ট আর্টিকেল লেখার কৌশল শিখে নিতে পারবেন।
  • কাজ খোঁজার জন্য বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং সাইট গুলোতে নিজের একটি একাউন্ট তৈরি করুন।
  • একাউন্ট তৈরি করার পর একজন দক্ষ কনটেন্ট রাইটারের মতো নিজের প্রোফাইল তৈরি করুন।
  • এবার এই ফ্রিল্যান্সিং সাইট গুলোতেই আর্টিকেল লেখার কাজ গুলো সরাসরি খুঁজে নিতে পারবেন।
  • চাইলে জনপ্রিয় blog/website গুলোতে গিয়ে সাইটের মালিকের সাথে যোগাযোগ করে কাজ চাইতে পারেন।
  • যদি একটি সেরা এবং SEO অপ্টিমাইজড আর্টিকেল লিখে পারেন, তাহলে নিয়মিত কাজ পেতেই থাকবেন।

Affiliate Marketing

Online income-এর নানান ফ্রি উপায় গুলোর মধ্যে এফিলিয়েট মার্কেটিং সব সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং অ্যাক্সেসযোগ্য পদ্ধতি হিসেবে বর্তমানে প্রচুর জনপ্রিয়তা লাভ করছে। অনলাইনে ফ্রি টাকা ইনকাম করার ক্ষেত্রে এই বিকল্পের মাধ্যমে হাজার হাজার লোকেরা ঘরে বসে কেবল একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপের মাধ্যমে কাজ করে লক্ষ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করার সুযোগ পাচ্ছেন।

এফিলিয়েট মার্কেটিং এর প্রক্রিয়াটি কাজে লাগিয়ে কোনো টাকা ইনভেস্ট না করে সম্পূর্ণ ফ্রি ভাবে টাকা ইনকাম করার উপায়টি অনেক সোজা। এর দ্বারা আপনি নানান products এবং services গুলো প্রচার করে সেগুলোকে সফল ভাবে রেফার করে বা বিক্রি করানোর মাধ্যমে কমিশন আয় করতে পারবেন।

Passive income-এর একটি দারুন ও কার্যকর উপায় হওয়ার কারণে, বর্তমানে নানান অনলাইন উদ্যোক্তারা affiliate marketing-এর কৌশল গুলোকে কাজে লাগিয়ে আনলিমিটেড টাকা রোজগার করে নিচ্ছেন।

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে টাকা ইনকাম করার ক্ষেত্রে আপনাকে প্রথমেই একজন affiliate marketer হিসেবে একটি affiliate program-এর সাথে যুক্ত হতে হবে। ইন্টারনেটে এমন প্রচুর পণ্যের কোম্পানি/ওয়েবসাইট গুলো রয়েছে যেগুলোর একটি ফ্রি এফিলিয়েট প্রোগ্রাম রয়েছে।

প্রোগ্রাম এর সাথে যুক্ত হওয়ার সাথে সাথেই আপনাকে একটি unique referral links বা affiliate links দিয়ে দেওয়া হবে যার দ্বারা আপনার করা প্রচারের মাধ্যমে উত্পন্ন ট্রাফিক এবং বিক্রয় গুলোকে ট্র্যাক করা যাবে।

এছাড়া, যখনি অআপনি আপনার এই unique referral links বা affiliate links গুলো blog, website, social media বা অন্যান্য online platforms গুলোতে শেয়ার করে থাকেন এবং কোনো ইউসার আপনার শেয়ার করা link-এ click করে পণ্য বা পরিষেবাটি কিনে থাকেন, তখন আপনিও সেই বিক্রির থেকে কিছু কমিশন আয় করে নিতে পারেন।

আপনাকে কত শতাংশ (%) কমিশন দেওয়া হবে সেটা আলাদা আলাদা affiliate program গুলোর ওপর নির্ভর করে আলাদা আলাদা হতে পারে।

এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনি অনলাইনে আনলিমিটেড টাকা ইনকাম করতে পারবেন এবং সব থেকে মজার বিষয়টি হলো, কত টাকা ইনভেস্ট না করেই কাজ শুরু করা যাবে।

অবশই পড়ুন: আমাজন এফিলিয়েট মার্কেটিং করে কিভাবে আয় করবেন ?

Refer করে ইনকাম করুন

কোনো টাকা ইনভেস্ট না করে সম্পূর্ণ ফ্রিতে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার আরেকটি দুর্দান্ত ও কার্যকর উপায় হলো, “রেফার করে টাকা ইনকাম করা“।

ইন্টারনেটে এমন নানান Apps এবং Website গুলো রয়েছে যেগুলো একটি refer & earn program থেকে থাকে।

এই প্রোগ্রাম এর মধ্যে মূলত আপনাকে একটি ইউনিক রেফারেল লিংক বা কোড দিয়ে দেওয়া হয়। এবার, আপনার এই রেফারেল লিংক ব্যবহার করে যখন কোনো ইউসার সেই app-টি install করবেন বা ওয়েবসাইটে একাউন্ট তৈরি করবেন, তখন আপনাকে সামান্য কিছু টাকা রেফারেল ইনকাম হিসেবে দেওয়া হয়।

যদি আপনি একটি বা দুটি ব্যক্তিদের রেফার করে থাকেন, তাহলে অবশই ইনকামের পরিমান অনেক সামান্য হওয়াটাই স্বাভাবিক।

কিন্তু যদি যেকোনো ভাবে প্রতিদিন একাধিক নতুন ইউসার দের রেফার করা যেতে পারে, এবং একাধিক নতুন ইউসার প্রতিদিন আপনার রেফারেল লিংক ব্যবহার করে app download করছেন, তাহলে প্রচুর ইনকাম করা যাবে।

এক্ষেত্রে আপনাকে, প্রতি রেফারে ভালো মানের টাকা দেয় এমন একটি সেরা refer করে ইনকাম করার app বা ওয়েবসাইট খুঁজে বের করতে হবে। এছাড়া, আপনার কাছে একটি বড় ইউসার বেস থাকতে হবে যদি প্রচুর লোকেদের একসাথে app/website রেফার করতে চাইছেন।

প্রচুর followers আছে এমন একটি blog, YouTube channel, social media profile বা এই ধরণের অনলাইন প্লাটফর্ম গুলো ব্যবহার করাটা এক্ষেত্রে পরামর্শযোগ্য।

রেফার করে ইনকাম করার সেরা কিছু ওয়েবসাইট/অ্যাপ:

  • Google Pay App – প্রতি রেফারে প্রায় ১০০ টাকা ইনকাম।
  • TaskBucks App – সর্বোচ্চ ২৫ টাকা পর্যন্ত ইনকাম।
  • ySense App/website – প্রতি referal-এর জন্য $0.10 বা $0.30 ইনকাম।
  • Swagbucks – বন্ধুর আয়ের ১০% ইনকাম।

অবশই পড়ুন: টাকা ইনকাম করার সেরা এন্ড্রয়েড অ্যাপস

Online Survey

অনলাইনে পেইড সার্ভে করে টাকা ইনকাম করাটা বিনিয়োগ ছাড়া ফ্রিতে টাকা ইনকাম করার আরেকটি কার্যকর উপায়। তবে মনে রাখবেন, অনলাইনে সার্ভে সম্পূর্ণ করার মাধ্যমে তেমন অধিক ইনকাম করা যাবেনা। এছাড়া, এই মাধ্যমে নিয়মিত ইনকাম হওয়ার সম্ভাবনাও কম। সে যাই হোক, ইন্টারনেট থেকে পার্ট-টাইম ইনকাম করার জন্যে এই উপায়টিও অনেকেই ব্যবহার করেন।

এখানে আপনাকে নানান কোম্পানি, পণ্য, পরিষেবা, ব্র্যান্ড ইত্যাদির বিষয়ে আপনার পরামর্শ, অভিজ্ঞতা ইত্যাদি নিয়ে আপনাকে প্রশ্ন করা হয়। আপনাকে কেবল প্রশ্ন গুলি বুঝে নিয়ে নিজের পরামর্শ বা অভিজ্ঞতা গুলো জমা করতে হয়।

Survey website গুলোতে গিয়ে আপনাকে নিজের জন্য একটি ফ্রি একাউন্ট তৈরি করতে হবে। এবার একাউন্ট তৈরি করার পর ওয়েবসাইটের ড্যাশবোর্ড এর মধ্যে আপনাকে নানান সার্ভে গুলো দিয়ে দেওয়া হবে। যখন যখন আপনাকে সার্ভে অফার করা হবে, সেগুলো গ্রহণ করে সম্পূর্ণ করুন এবং ইনকাম করুন।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, প্রতিটি সার্ভে সম্পূর্ণ করার জন্য আমাদের প্রায় $0.2 থেকে $5 পর্যন্ত অফার করা হয়। তবে, সার্ভে ওয়েবসাইট, সার্ভে সম্পূর্ণ সময় এবং সার্ভের ধরণের ওপর ভিত্তি করে প্রতিটি সার্ভেয়র জন্যে কম বেশি টাকা অফার করা হয়।

অনলাইন ফ্রিতে ইনকাম করার সেরা কিছু সার্ভে ওয়েবসাইট:

  • Swagbucks.com
  • Ysense.com
  • Viewpointpanel.com
  • Paidviewpoints.com
  • Neobux.com

অবশই পড়ুন: টাকা আয় করার রিয়েল বিদেশি ইনকাম সাইট

অনলাইনে কোর্স কিক্রি করে

নিজের পকেট থেকে এক টাকা ও না লাগিয়ে অনলাইন থেকে আনলিমিটেড টাকা ইনকাম করার আরেকটি ফ্রি মাধ্যম হলো, “অনলাইনে কোর্স বিক্রি করার মাধ্যমে“।

আপনি যদি ভালো করে দেখেন তাহলে পাবেন যে ইন্টারনেটে প্রায় যেকোনো বিষয়েই নানান কোর্স গুলো বিক্রি করা হচ্ছে। যেমন ধরুন blogging course, ডিজিটাল মার্কেটিং, এফিলিয়েট মার্কেটিং কোর্স ইত্যাদি। আর এই গুলো বিপুল পরিমানে বিক্রি হওয়ার কারণ হলো, কোর্সের দাম অনেক কম হওয়া। প্রায় ৫০ টাকা থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে বেশিরভাগ কোর্স গুলো অনলাইনে বিক্রি করা হয়। এটাই কারণ যার জন্যে কোর্স গুলো বিপুল সংখ্যক লোকেরা কিনে থাকেন।

তাই, আপনার মধ্যেও যদি কোনো বিশেষ বিষয়ে বিশেষ দক্ষতা বা কৌশল থেকে থাকে, তাহলে আপনিও নিজের মোবাইল দিয়ে ভিডিও কোর্স গুলো তৈরি করতে পারবেন। একবার আপনার কোর্স তৈরি হয়ে গেলে এবার আপনি এগুলিকে নানান মাধ্যমে অনলাইনে বিক্রি করতে পারবেন।

তৈরি করা নিজের কোর্স গুলো আপনি সোশ্যাল মিডিয়া, YouTube, ব্লগ ইত্যাদি নানান ফ্রি মাধ্যমে বিক্রি করিয়ে রেগুলার ইনকাম আয় করতে পারবেন।

ধরুন আপনি “computer basic to advance” ভিডিও কোর্স তৈরি করলেন। এবার কোর্সটি নানান অনলাইন চ্যানেল গুলি ব্যবহার করে প্রায় ৩০ হাজার লোকেদের বিক্রি করেছেন। ধরুন কোর্সটি ১৫০ টাকা করেই বিক্রি করলেন। তাহলে, ৩০,০০০*১৫০ = ৪৫,০০,০০০/- আপনি ইনকাম করলেন। এর থেকে ভালো ইনকামের উপায় আর কি হতে পারে বলুন।

অবশই পড়ুন: কিভাবে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করা যায়?

অনলাইনে টিউশনি করিয়ে

ভিডিও কোর্স বানিয়ে তারপর সেগুলি অনলাইনে বিক্রি করে টাকা ইনকাম করার প্রক্রিয়াতে সময় অবশই লাগবে। তবে, যদি আপনি ভাবছেন টাকা ইনকাম করার এমন একটি ফ্রি উপায়ের যেখানে প্রথম মাস থেকেই ইনকাম শুরু করা যাবে, তাহলে অনলাইনে টিউশন করানোর কাজ শুরু করুন।

তবে হ্যা, এক্ষেত্রে আপনাকে যেকোনো একটি বা একাধিক বিষয় বা সাবজেক্ট এর ওপর ভালো জ্ঞান এবং অভিজ্ঞতা রাখতে হবে। আপনি চাইলে স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী বা কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের ও পড়াতে পারবেন। এর জন্যে আপনার কাছে একটি স্মার্টফোন থাকলেও কাজ হয়ে যাবে। এছাড়া, ব্যবহার করতে হবে একটি ভালো group video calling app-এর।

ইন্টারনেট থেকে সম্পূর্ণ ফ্রি মাধ্যমে টাকা ইনকাম করার এটাও একটি অনেক দারুন উপায় যেটা বর্তমান সময়ে অনেকেই কাজে লাগিয়ে নিয়মিত ইনকাম করছেন।

ছাড়া, আপনি চাইলে YouTube-এ একটি ফ্রি চ্যানেল তৈরি করেও পড়াশোনার সাথে জড়িত রেকর্ড করা ভিডিও গুলো আপলোড করতে পারবেন। এতে, ধীরে ধীরে আপনার channel-এর subscribers এবং views বাড়বে এবং ভবিষ্যতে Google AdSense বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে ইউটিউব চ্যানেল থেকে ইনকাম করার সুযোগ পাবেন।

FAQ: অনলাইনে ফ্রিতে টাকা ইনকাম করার উপায় –

প্রশ্ন: অনলাইনে থাকা ফ্রিতে টাকা ইনকাম করার সেরা উপায় গুলো কি?

ইন্টারনেট থেকে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার ক্ষেত্রে এমন প্রচুর ফ্রি মাধ্যম গুলো রয়েছে যেগুলোতে আপনাকে কোনো টাকা বিনিয়োগ করতে হয়না। তবে, সঠিক ভাবে নিয়মিত মন দিয়ে কাজ করতে পারলে এই উপায় গুলোর দ্বারা মাসে লক্ষ টাকা ইনকাম করাও সম্ভব। এমন কিছু উপায় গুলি হলো, blogging, YouTube channel, affiliate marketing, online course selling, freelancing ইত্যাদি।

প্রশ্ন: ইন্টারনেট থেকে কি সত্যি ইনকাম করা সম্ভব?

অবশই সম্ভব। এক্ষেত্রে প্রয়োজন হবে অনলাইন ইনকামের একটি শক্তিশালী, কার্যকর ও প্রমাণিত উপায়ের। এছাড়া, নিজের কাজের ওপর বিশ্বাস রেখে সঠিক নিয়ম গুলো অনুসরণ করার মাধ্যমে একটানা ভাবে কাজ করতে হবে আপনাকে। ইন্টারনেটে এমন নানান উপায় গুলো রয়েছে যেগুলো আপনাকে এতো টাকা ইনকাম করে দিতে পারবে যে আপনি কখনো কল্পনাও করে দেখেননি। তবে এক্ষেত্রে, একটি কার্যকর এবং প্রমাণিত উপায় হলো সবথেকে অধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

আমাদের শেষ কথা,,

তাহলে বন্ধুরা, যদি আপনারা কোনো টাকা ইনভেস্ট ছাড়া সম্পূর্ণ ফ্রি মাধ্যমে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করতে চাইছেন, তাহলে উপায় অনেক রয়েছে। তবে আমি আবার বলে দিচ্ছি যে, যেকোনো কাজেই সফল হওয়ার জন্যে কিন্তু কঠোর পরিশ্রম করার প্রয়োজন। ওপরে বলে দেওয়া প্রত্যেকটি উপায় গুলো কিন্তু কার্যকর এবং প্রমাণিত। লক্ষ লক্ষ লোকেরা এই উপায় গুলি ব্যবহার করে অনলাইন থেকে নিয়মিত রোজগার করছেন। এখন এটা আপনার ওপর ছাড়লাম, আপনি কতটা কঠোর পরিশ্রম করতে পারেন এবং কতটা অধিক টাকা ওপরে বলে দেওয়া এই ফ্রি উপায় গুলোর দ্বারা ইনকাম করতে পারেন।

অবশই পড়ুন:

2 thoughts on “অনলাইনে ফ্রিতে টাকা ইনকাম করার সেরা গাইড: ৭টি প্রমাণিত পদ্ধতি”

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error:
Scroll to Top