কিভাবে টিকটকে ফলোয়ার বাড়ানো যাবে? দারুন ৭টি উপায়

টিকটকে ফলোয়ার বাড়ানোর উপায়: ২০২৪ সালের সব থেকে সেরা এবং জনপ্রিয় নানান social media platform গুলির মধ্যে একটি হলো, TikTok টিকটক। আপনাদের মধ্যে অনেকেই হয়তো টিকটক ব্যবহার করছেন এবং এখানে নানান শর্ট ভিডিও গুলি বানিয়ে আপলোড দিচ্ছেন।

এমনিতে, যেকোনো অন্য সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম এর মতোই TikTok-এর ব্যবহার করেও আপনি নানান ধরণের লাভ ও সুবিধা গুলি পেতে পারবেন। যেমন ধরুন, টিকটক থেকে টাকা আয় করা, পণ্যের প্রচার, এফিলিয়েট মার্কেটিং, স্পন্সরড পোস্ট ইত্যাদি।

তবে প্রত্যেক ক্ষেত্রেই আপনার কাছে কিন্তু একটি ভালো ফলোয়ার বেস থাকতে হবে। আর এখেত্রেই, কিভাবে টিকটকে ফলোয়ার বাড়ানো যায়, এই বিষয়ে অনেকেই ইন্টারনেটে সার্চ করে থাকেন।

চিন্তা করতে হবেনা, আজকের এই আর্টিকেলের মধ্যে আমি আপনাদের এমন ৭টি কার্যকর উপায় গুলির বিষয়ে বলবো, যেগুলিকে কাজে লাগিয়ে টিকটকে নিয়মিত এবং অনেক তাড়াতাড়ি প্রচুর ফলোয়ার্স পেতে পারবেন।

অবশই পড়ুন: আমার টিকটক ভিডিও ভাইরাল হয় না কেন?

টিকটকে ফলোয়ার বাড়ানোর উপায় গুলি কি কি? সেরা ৭টি

টিকটকে ফলোয়ার বাড়ানোর উপায়
How To Increase TikTok Followers?

আপনি যদি সত্যি টিকটকে নিজের ফলোয়ার সংখ্যা বাড়ানোর কথা ভাবছেন, সেক্ষেত্রে আপনি নানান কৌশল গুলি কাজে লাগিয়ে এই কাজ করতে পারবেন।

মনে রাখবেন, টিকটকে নিয়মিত এবং অধিক পরিমানে দোলোয়ার্স পাওয়ার জন্য আপনাকে প্রচুর দর্শকদের আকর্ষণ অর্জন করার চেষ্টা করতে হয়।

আর, দর্শক দের আকর্ষণ অর্জন করার ক্ষেত্রে আপনাকে নিয়মিত এমন ধরণের কনটেন্ট/ভিডিও গুলি তৈরি করতে হবে যেগুলি অন্যান্য ইউসারদের থেকে আপনাকে আলাদা করতে পারে।

সোজা ভাবে বললে, আপনাকে ইউনিক, ট্রেন্ডিং এবং মজার টপিক নিয়ে কনটেন্ট তৈরি করতে হবে।

এক্ষেত্রে, টিউটোরিয়াল, ফানি, নাচ, গান, ইত্যাদি যেকোনো ধরণেরই ভিডিও আপনি তৈরি করতে পারেন, তবে খানিকটা ক্রিয়েটিভ হয়ে কনটেন্ট তৈরি করার চেষ্টা করুন।

এগুলির বাইরেও, আরো নানান কৌশল এবং উপায় গুলি রয়েছে যেগুলির দ্বারা টিকটকে ফলোয়ার্স বাড়ানো যেতে পারে। সেগুলি কি? চলুন, নিচে একে একে জেনেনেই।

১. কারা আপনার শ্রোতা সেটা বুঝুন:

TikTok-এ নিতুন ফলোয়ার্স পাওয়ার জন্য আপনাকে নিজের বর্তমান ফলোয়ার্সদের বিষয়ে ভালো করে বুঝতে হবে।

আপনার পাবলিশ করা কোন ধরণের কনটেন্ট গুলি শ্রোতারা অধিক দেখছেন, পছন্দ করছেন এবং কোন কনটেন্ট থেকে সর্বাধিক ফলোয়ার্স পেয়েছেন, সবটা ভালো করে দেখুন।

বিষয়টা ভালো করে দেখলে আপনি অনেক সহজেই বুঝতে পারবেন যে, শ্রোতারা কি ধরণের কনটেন্ট/ভিডিও দেখতে চাইছেন। যেমন ধরুন, অনেকেই আছেন যারা শিক্ষামূলক ভিডিও পছন্দ করেন আবার অনেকেই ভ্লগ-স্টাইল ক্লিপ গুলি দেখতে চান।

তাই, আপনাকে নিজের ভিউস, ফলোয়ার্স, কমেন্ট, ইত্যাদি বিষয় গুলিতে নজর দিতে হবে এবং লোকেরা আপনার যেই কনটেন্ট গুলি পছন্দ করছেন, সেই ধরণের কনটেন্ট আপনাকে নিয়মিত বানাতে হবে।

২. ভিডিও কোয়ালিটি এবং সাউন্ড:

আপনি অবশই হয়তো ভাবছেন যে, ভিডিও এবং সাউন্ড কোয়ালিটি এবং ফলোয়ার্সদের মধ্যে কিসের সম্পর্ক, তাই তো?

তবে এক্ষেত্রে সম্পর্ক অবশই আছে। দেখুন, যখন শ্রোতারা টিকটকের মধ্যে কোনো ভিডিও দেখেন তখন সেই ভিডিওর, ভিডিও ও সাউন্ড কোয়ালিটি ভালো না হলে, সেটিকে কেও সম্পূর্ণ দেখবেনা।

এছাড়া, একটি লো কোয়ালিটি ভিডিও আপলোড করা টিকটক চ্যানেল/প্রোফাইল আপনি বা আমি, কেওই কখনো ফলো করবোনা। অবশই, আপনাকে একেবারে সিনেম্যাটিক ভিডিও বানাতে বলা হচ্ছেনা।

খেয়াল রাখবেন যাতে ভিডিও গুলি হাই কোয়ালিটির (HD) হয়ে থাকে এবং ভিডিওতে ব্যবহার করা সাউন্ড বা মিউজিক গুলির কোয়ালিটিও ভালো থাকে। এতে, শ্রোতাদের যদি আপনার কনটেন্ট পছন্দ হয়ে থাকে, তাহলে তারা আপনাকে ফলো করার সুযোগ প্রচুর পরিমানে থাকে।

৩. ট্রেন্ডিং গান এবং সাউন্ড:

ট্রেন্ডিং গান এবং সাউন্ড গুলি কিছু নির্দিষ্ট সময়ের জন্য প্রচুর জনপ্রিয়তা লাভ করে থাকে।

এই ধরণের ট্রেন্ডিং গান বা মিউজিক সহ তৈরি করা টিকটক ভিডিও কনটেন্ট গুলি দেখতে প্রচুর লোকেরা পছন্দ করেন এবং পাশাপাশি, টিকটক এর এলগোরিদমও ট্রেন্ডিং গান গুলি সহ তৈরি করা কনটেন্ট গুলিকে পছন্দ করে এবং প্রচুর লোকেদের কাছে পৌঁছে দেয়।

তাই, TikTok-এ অনেক তাড়াতাড়ি নতুন নতুন ফলোয়ার পাওয়ার জন্য নিয়মিত এমন নতুন নতুন গান বা মিজিক সহ কনটেন্ট তৈরি করুন যেগুলি বর্তমান সময়ে প্রচুর ট্রেন্ডিং এ রয়েছে।

মনে রাখবেন, ট্রেন্ডিং বলেই যে যেকোনো টপিক নিয়ে যেকোনো গান লাগিয়ে ভিডিও বানাবেন, সেটা করলেও কিন্তু হবেনা। আপনার টার্গেটেড শ্রোতা এবং নিয়মিত কি বিষয় নিয়ে কনটেন্ট তৈরি করেন, সেটা মাথায় রেখে ট্রেন্ডিং গান বা মিউজিক সহ ভিডিও বানাতে হবে।

আপনি চাইলে টিকটক এর discover tab থেকে সরাসরি নানান ট্রেন্ডিং সং গুলি খুঁজে পেতে পারবেন। এছাড়া, টিকটকে ভিডিও বানানোর সময় টিকটকের দ্বারা সাজেস্ট করা নানান ট্রেন্ডিং ট্র্যাক গুলিও চাইলে ব্যবহার করতে পারবেন।

৪. ট্রেন্ডিং হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করুন:

টিকটক ফলোয়ার বাড়াতে ট্রেন্ডিং গান এবং মিউজিক গুলি যেভাবে আপনার প্রচুর সাহায্য করতে পারে, ঠিক সেভাবেই নানান ট্রেন্ডিং হ্যাশট্যাগ গুলিও কিন্তু এক্ষেত্রে আপনার প্রচুর সাহায্য করবে।

বেশিরভাগ অন্য সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম গুলির মতোই, হ্যাশট্যাগ গুলি আপনার কনটেন্ট গুলিকে নতুন নতুন শ্রোতাদের কাছে ছড়িয়ে দিয়ে ও পৌঁছতে সাহায্য করে থাকে।

তবে, নিজের কনটেন্ট গুলিতে কোন হ্যাশট্যাগ গুলি ব্যবহার করবেন, যদি এই বিষয়ে আপনি ক্লিয়ার না, সেক্ষেত্রে আপনার মতো একই বিষয়ে কনটেন্ট তৈরি করা অন্যান্য ক্রিয়েটররা কি কি হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করছেন, সেটা দেখে নিতে পারেন।

এছাড়া, ভিডিওর ক্যাপশন (caption) টাইপ করার সময় সরাসরি “#” টাইপ করলেই TikTok আপনাকে নানান trending hashtags গুলি সাজেস্ট করে দিবে।

৫. অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গুলি কাজে লাগান:

শুধুমাত্র TikTok-এর উপর ভরসা করে বসে থাকলে নতুন নতুন ফলোয়ার পাওয়ার বিষয়টা কিন্তু এতটা কার্যকর নাও হতে পারে।

এক্ষেত্রে আপনি অন্যান্য নানান সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম গুলিতে থাকা আপনার profile/page গুলিকে কাজে লাগিয়ে নিজের টিকটক ভিডিও গুলিকে প্রচার করতে পারবেন।

YouTube, Instagram, Facebook, Pinterest, Reddit, ইত্যাদি এই ধরণের platform গুলিকে কাজে লাগিয়ে নিজের TikTok page/content গুলিকে শেয়ার করে নিয়মিত নতুন নতুন ফলোয়ার্স পেতে পারবেন।

আপনি যদি Instagram এর মধ্যে গিয়ে দেখেন তাহলে দেখবেন প্রচুর লোকেরা তাদের TikTok content গুলিকে Instagram Reels-এর মধ্যে শেয়ার করে থাকেন।

সেভাবে আপনিও এই ধরণের কৌশল গুলিকে কাজে লাগিয়ে নিজের টিকটক কনটেন্ট গুলির প্রচার করতে পারবেন।

৬. সঠিক সময়ে ভিডিও পাবলিশ করুন:

তাড়াতাড়ি এবং অধিক পরিমানে TikTok followers অর্জন করার একটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ ও কার্যকর উপায় হলো এটা।

আপনাকে সব সময় এমন একটি নির্দিষ্ট সময়ে নিজের কনটেন্ট গুলিকে পাবলিশ করা দরকার, যখন আপনার বেশিরভাগ শ্রোতারা অনলাইন থাকেন।

এক্ষেত্রে আপনি চাইলে, TikTok scheduling tool, ব্যবহার করার মাধ্যমে অটোমেটিক ভাবে নিজের কনটেন্ট গুলিকে পছন্দমতো সময়ে পাবলিশ করতে পারবেন।

তবে সবচে আগে, আপনাকে এটা বুঝতে হবে যে, কখন বা কোন সময়ে কনটেন্ট পাবলিশ করলে, আপনার কনটেন্ট গুলিতে সর্বাধিক ভিউস এবং এনগেজমেন্ট হচ্ছে। এবার সেই সময় হিসেবে পরের কনটেন্ট গুলি আপলোড করুন।

৭. প্রতিদিন কনটেন্ট আপলোড করুন:

টিকটক ফলোয়ার বাড়ানোর জন্য সবচে আগে আপনাকে নিজের কনটেন্ট এর ভিউ বাড়াতে হবে। এবার, আপনি যত অধিক কনটেন্ট আপলোড করবেন, আপনার কনটেন্ট গুলি ততটাই অধিক লোকেরা দেখবেন এবং ততটাই ভিউ বাড়বে।

তাই, চেষ্টা করবেন যাতে প্রতিদিন কমেও একটি ভিডিও বানিয়ে আপলোড করতে পারেন। মনে রাখবেন, নিয়মিত কনটেন্ট আপলোড করলে এনগেজমেন্ট বাড়ার পাশাপাশি আপনি আপনার ফলোয়ারদের সাথে সবসময় কানেক্টেট থাকতে পারবেন।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, টিকটক এর মধ্যে শর্ট ভিডিও গুলি বানিয়ে আপলোড করা হয়। তাই, আপনি চাইলে দিনে ১-২ টি কনটেন্ট আরামে আপলোড করতেই পারবেন।

আমাদের শেষ কথা,,

তাহলে বন্ধুরা, টিকটকে ফলোয়ার বাড়ানোর উপায় বলতে সে অনেক থাকতে পারে। তবে আশা করছি আমাদের আজকের আর্টিকেলের মধ্যে শেয়ার করা এই নানান উপায় গুলি আপনাদের কাজে অবশই লাগবে।

মনে রাখবেন, টিকটক বা যেকোনো অন্য সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে তাড়াতাড়ি প্রচুর ফলোয়ার্স অর্জন করার সব থেকে কার্যকর উপায় গুলির মধ্যে ৩টি উপায় কিন্তু সেরা।

নিয়মিয়তা বজায় রেখে প্রতিদিন কনটেন্ট পাবলিশ করা, ট্রেন্ডিং টপিক নিয়ে কনটেন্ট বানানো এবং নিজের ক্রিয়েটিভিটি সহ ভালো এবং অরিজিনাল কনটেন্ট তৈরি করা।

নিয়মিত ভালো ভালো বিষয় গুলি নিয়ে কনটেন্ট তৈরি করতে থাকলে, টিকটক এর এলগোরিদম নিজেই আপনার কনটেন্ট গুলিকে প্রচুর লোকেদের সাজেস্ট করতে থাকবে।

অবশই পড়ুন: ফেসবুকে ফলোয়ার বৃদ্ধির ৯টি দুর্দান্ত উপায়

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top