কিভাবে ইউটিউব থেকে টাকা আয় করা যায় ? (অনলাইন টাকা উপার্জন)

যদি আপ্নে অনলাইন টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় খুঁজছেন, তাহলে ইউটিউব থেকে আয় করার পদ্ধতি আপনার জন্য সবছে সহজ এবং লাভদায়ক হোতে পারে। আজ, দেশ বিদেশে অনেক হাজার YouTuber রয়েছেন, জারানাকি কেবল নিজের YouTube চ্যানেল থেকে এতো টাকা উপার্জন করছেন যে তাদের অন্য কোনো কাজ বা চাকরি করার কোনো প্রয়োজন হচ্ছেনা। আর, তাছাড়া এই YouTuber গুলি নিজেদের YouTube channel কেই business হিসেবে চলিয়ে মাশে হাজার হাজার টাকা আয় করছেন। অনেকেরা তো প্রতি মাশে লক্ষ লক্ষ টাকা অব্দি ইনকাম করছে। কিন্তু, এইটা তাদের কাজ এবং কষ্টর জন্য তারা পাচ্ছেন।

ইউটিউব থেকে টাকা আয়
Kibhabe YouTube channel baniye taka kamaben ?

এখন, যদি আপ্নেও “কিভাবে ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করবেন” এই ধারণা নিয়ে আছেন, তাহলে তার জবাব বা সমাধান আমার কাছে আছে। এখানে আমি আপনাদের ইউটিউব থেকে আয় করার সহজ উপায় একেবারে সহজ ভাবে বুঝিয়ে দেব।

YouTube থেকে আয় করার পদ্ধতি এমনিতে অনেক সহজ। কিন্তু, যদি আপ্নে এই বেপারে কিছুই না জানেন তাহলে আপনার শুরুতে অসুবিধা হতে পারে। তাই, আমি আপনাকে ইউটিউব থেকে আয় করার জন্য কি কি কোরতে হবে, কিসের প্রয়োজন হবে এবং কিভাবে নিজের YouTube চ্যানেল business স্টার্ট করবেন তা শিখিয়ে দেব।

চলেন প্রথমে আমরা জেনে নেই এই আর্টিকেলে আমরা কি কি শিখবো।

  • কিভাবে ইউটিউব থেকে আয় করবেন ?
  • ইউটিউব থেকে কত টাকা আয় করা যায় ?
  • ইউটিউব কিভাবে টাকা দেয় বা ইউটুবে কামানো টাকা কিভাবে তুলবেন ?

তাহলে চলেন, এখন আমরা নিচে সব বিষয় গুলো এক এক করে ভালোকরে জেনে নেই। তাছাড়া আমি আপ্নাকে এটাও বলে দেয়, নিচে আমি যা যা বিষয়ে আপনাকে বলবো সেগুলি ভালোকরে পড়বেন। এক এক করে ভালোকরে জিনিসগুলো পড়লে আপ্নে সবটি বুঝতে পারবেন। অল্প সময় দেন, জিনিসগুলো বুঝেন আপ্নেও একদিন successful youtuber অবশই হতে পারবেন।

Also read

কিভাবে ইউটিউব থেকে টাকা আয় করা যায় ? ( YouTube theke taka income )

YouTube থেকে টাকা আয় করার একমাত্র উপায় হলো, “নিজের YouTube একাউন্ট বা চ্যানেলে video upload করে”।

হে, আপ্নে ঠিকি শুনেছেন। নিজের ইউটিউব চ্যানেল বানিয়ে তাতে ভিডিও আপলোড করে আপ্নে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আর, কেবল এক দুই টাকা নয়। লোকেরা ইউটুবে হাজার এবং লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছেন।

YouTube আসলে এমন একটি ওয়েবসাইট যেখানে আপ্নে সব রকমের Videos পাবেন। কিছু শিখতে চান যদি “টিউটোরিয়াল ভিডিওস”, সময় কাটানোর জন্য অনেক রকমের “funny videos” এবং অন্য সব রকমের ভিডিও আপ্নে এখানে দেখতে পাবেন।

কিন্তু, কথা হলো যে YouTube ওয়েবসাইটে এই video গুলি কারা দেন। কোথাথেকে এতো লক্ষ লক্ষ ভিডিও YouTube এ আসে। এর জবাব হলো, আপনার আর আমার মতো লোকেরা ইউটুবে ভিডিওস আপলোড করাতে এই লক্ষ লক্ষ video আমরা YouTube ওয়েবসাইট এ গিয়ে দেখতে পারি।

এখন কথা হলো, লোকেরা নিজের সময় নষ্ট করে কেন ভিডিও বানিয়ে বানিয়ে ইউটুবে দেন ? তাদের লাভ কি হয় ? আপ্নেও তাই ভাবছেন  তো ?

দেখেন, যারা নিজের YouTube channel বানিয়ে ভিডিও আপলোড করছেন তারা এমনেই এতো কষ্ট করছেনা। তারা নিজের আপলোড করা প্রতি ভিডিও থেকে taka income করেন।

আসলে, YouTube এর এমন একটা প্রক্রিয়া আছে জাকে “Monetization” বলা হয়। আর, এই monetization প্রক্রিয়াটা চালু করার পর আপ্নে নিজের আপলোড করা ভিডিও থেকে আয় করতে পারবেন।

আসলে, monetization প্রক্রিয়া চালু করার পর, আপনার আপলোড করা video তে YouTube এবং Google Adsense এর তরফ থেকে কিছু বিজ্ঞাপন (advertisement) দেখানো হয়। এই বিজ্ঞাপন ভিডিও শুরু হবার আগে দেখানো হয়। তাছাড়া, আজকাল ভিডিওর মাঝে মাঝেও বিজ্ঞাপন দেখানো হয়। আর, যত বার লোকেরা আপনার video দেখবে তাতে যতবার বিজ্ঞাপন দেখানো হবে ওই হিসাবে আপনার Google adsense account এ টাকা জমা হতে থাকবে।

আর, আপনার YouTube video থেকে আয় করা টাকা আপ্নে Google Adsense থেকে নিজের ব্যাঙ্ক একাউন্টে তুলে নিতে পারবেন।

Note: Google adsense গুগল এবং YouTube এর একটি ভাগ। গুগল এডসেন্স ব্লগার এবং ইউটিউবার দেড় নিজের ব্লগ বা YouTube video তে বিজ্ঞাপন লাগিয়ে টাকা আয় করার সুযোগ দেয়। গুগল এডসেন্স এর দ্বারা লোকেরা এতটা টাকা আয় করছেন যে আপনি ভাবতে ও পারবেননা। আপ্নি ইউটুবে monetization চালু কোরে নিজের এডসেন্স একাউন্ট সেখানথেকে বানিয়ে নিতে পারবেন।

চলেন এখন আমরা step by step জেনে নেই YouTube চ্যানেল বানিয়ে আমরা কিভাবে টাকা আয় করতে পারবো।

YouTube থেকে আয় করার পদ্ধতি জানুন স্টেপ বাই স্টেপ

এটা সত্যি যে YouTube এর দ্বারা video আপলোড কোরে আপনি টাকা আয় করতে পারবেন। কিন্তু, তা তখনি সম্ভব যখন আপনি ধোর্য ধরে প্রথমে নিজের YouTube চ্যানেলটি বানাবেন এবং সেট করবেন। চ্যানেল বানানোর থেকে টাকা ইনকাম করা অব্দি আপনার অনেকটা কাজ ধর্য ধরে করতে হবে। তা করতে পারলে আপনি অবশই নিজের চ্যানেল থেকে অনলাইন আয় করা আরম্ভ করতে পারবেন এবং নিজের YouTube চ্যানেল কে একটা business হিসেবে চালাতে পারবেন।

তাহলে চলেন নিচে আমরা ইউটিউব চ্যানেল দ্বারা টাকা কমানোর জন্য কি কি করতে হবে তা স্টেপ বাই স্টেপ জেনে নেই।

#১. YouTube এ নিজের একটি চ্যানেল বানান

সবেরছে প্রথম এবং দরকারি কাজটা হলো, “নিজের একটি ইউটিউব চ্যানেল বানানো“। চ্যানেল বানানোর পর আপনি তাতে নিজের মন মতো videos আপলোড করতে পারবেন। কিন্তু, এখন কথা হলো “YouTube চ্যানেল কিকরে বানাবেন ?” তাই তো।

নিজের একটি চ্যানেল বানানোর জন্য আপনার প্রথমে “ইউটিউব ওয়েবসাইটে” যেতে হবে। ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনার প্রথমে নিজের Gmail account details (আইডি এবং পাসওয়ার্ড) দিয়ে YouTube এ লগইন করতে হবে। আমি আগেই বলেছি, ইউটিউব Google এর একটি service তাই ইউটুবে লগইন করতে হোলে বা একাউন্ট বানাতে হলে আপনার কেবল জিমেইল আইডি আর পাসওয়ার্ড এর প্রয়োজন হবে।

আজকাল সবাইর একটি জিমেইল একাউন্ট আছেই আর আপনি নিজের সেই জিমেইল আইডি দিয়েই YouTube এ লগইন কোরে নিতে পারবেন। আপনার যদি Google account নেই, তাহলেও আপনি “জিমেইল এর ওয়েবসাইটে” গিয়ে বানিয়ে নিতে পারবেন।

এখন নিজের চ্যানেলে গিয়েই (লগইন কোরে) আপনি ভিডিও আপলোড করতে পারেন। আনার আলাদা চ্যানেল বানানোর কোনো সেরকম প্রয়োজন নেই। কিন্তু, যদি আপনি নিজের একটি আলাদা ইউটিউব চ্যানেল বানানে চান, তাহলে তা অবশই পারবেন।

Youtube এ চ্যানেল কিভাবে বানাবেন ?

চ্যানেল বানানোর জন্য আপনার প্রথমে যা আমি বললাম, নিজের ইউটিউব একাউন্টে গিয়ে জিমেইল আইডি দিয়ে লগইন কোরতে হবে।

YouTube এ লগইন করার পর, আপনি ঠিক উপরে দান দিকে শেসে একটি ছোট্টো “icon এর লোগো” দেখবেন। আপনাকে সেই আইকন তাকে  কোরতে হবে।

Icon টিতে ক্লিক করার পর আপনি একটি ছোট্ট মেনু দেখবেন। মেনুতে আপনার নাম ও “creator studio” বলে একটি অপসন দেখবেন। আপনি Creator studio অপসন টাতে ক্লিক করুন।

Creator studio তে যাবার পর আপনি নিজের YouTube channel dashboard দেখবেন। এখানে আপনি ওপরে নিজের চ্যানেলের নাম এবং চ্যানেলের সাথে জড়িত সবরকমের অপশনস পেয়েযাবেন।

এখন নিজের চ্যানেল চালু করতে হলে আপনার প্রথমেই একটি কাজ করতে হবে। সেই কাজটি হলো “Verify YouTube channel” . হে, আপনাকে নিজের YouTube চ্যানেলটিকে ভেরিফাই কোরতে হবে আর তারপর আপনি নিজের ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও আপলোড কোরে টাকা আয় করতে পারবেন।

চ্যানেল ভেরিফাই করার জন্য আপনি এখন, Channel dashboard এ গিয়ে বাম দিকে থাকা অপশনগুলি থেকে “Channel” এ ক্লিক করুন।

Channel অপশনে ক্লিক করার পর আপনি উপরেই “Verify” লিংক দেখবেন। আপনি verify লিংকটিতে ক্লিক করুন এবং নিজের চ্যানেলকে মোবাইল নম্বর দিয়ে ভেরিফাই করেনিন। এরপর আপনি নিজের চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করতে পারবেন আর  তাছাড়া ভিডিও তে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা আয় কোরতে পারবেন।

আপনি যদি অন্য নামের নতুন চ্যানেল বানাতে চান তাহলে ইউটুবে লগইন করে, উপরে ডানদিকে প্রোফাইল আইকনে ক্লিক করুন। তারপর creator studio অপশনের শেষে “Gear icon” ক্লিক করুন। এতে ইউটুবে Settings page খুলে যাবে যেখানথেকে আপনি “Create a new YouTube channel” অপশনটি পাবেন।

এখন “Create a new YouTube channel” লিংক টিতে ক্লিক করে নিজের মনমতো নাম দিয়ে একটি YouTube চ্যানেল বানিয়ে নিন।

তো আমি আপনাদের নিজের চ্যানেল কিভাবে বানাবেন তা বললাম। চলেন এখন চ্যানেল বানানোর পর কি করতে হবে তা জেনে নেই।

#২. নিজের YouTube চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করেন

চ্যানেল বানানোর পরেই যে আপনি নিজের ইউটিউব থেকে টাকা আয় কোরতে পারবেন তা নয়। টাকা কমানোর জন্য এখন আপনাকে অনেক কিছুই কোরতে হবে। আর, সেই গুরুত্বপূর্ণ কাজটি হলো “নিজের চ্যানেলে ইন্টারেষ্টিং ভিডিও বানিয়ে আপলোড করা”।

আমি আগেই বলেছি, ইউটুবে আপনি যা ভিডিও আপলোড কোরবেন সেগুলিতে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আপনি গুগল এডসেন্সের দ্বারা টাকা আয় করতে পারবেন। আর তাই, আপনি কি ভিডিও আপলোড করছেন তা অনেকটাই গুরুত্বপূর্ণ কথা।

যদি আপনি ইউটিউব থেকে সত্যি taka income কোরতে চান, তাহলে একটা কথা অবশ্যই মনে রাখবেন। আপনি নিজের চ্যানেলে অন্য কারোর ভিডিও আপলোড করবেননা। কেবল নিজে বানানো ইন্টারেষ্টিং এবং যা ভিডিও দেখে লোকেদের কামে আসবে সেরকম ভিডিও বানাবেন এবং আপলোড করবেন।

এতে, লোকেরা আপনার ভিডিও বেশিকরে দেখবে এবং তার ফলে বিজ্ঞাপন ও বেশিকরে আপনার ভিডিওগুলিতে দেখানো হবে আর আপনার ইনকাম ও বেশিকরে হবে।

মনেরাখবেন, যদি আপ্নে নিজে এমন জিনিসের ভিডিও বানান যেগুলি লোকেরা জানতেচায়, শিখতে চায় বা দেখে আনন্দ পায় তাহলে আস্তে আস্তে আপনার YouTube চ্যানেলে ভিসিটর, subscribers এবং ভিউ বাড়বে এবং আপনাকে success হতে কেও থামাতে পারবেনা।

ইউটিউবে কিরকম ভিডিও আপলোড করবো ? চ্যানেলের topic কি হবে ?

দেখেন,  আগেই যা আমি বলেছি, আপনাকে নিজের ইউটিউব চ্যানেল এমন টপিক নিয়ে বানাতে হবে যা আজকাল লোকেরা ইন্টারনেটে অনেক সার্চ করেন। তাই YouTube channel এমন বিষয়ে বানাবেন যে বিষয়ে আজকাল মানুষের অনেক রুচি। এতে আপনার বানানো ভিডিও অনেক লোকেরা দেখার সুযোগ হবে আর আপনার টাকা ইনকাম করার সুযোগ ও বেশি হবে।

তাছাড়া, আপনাকে এটাও মনে রাখতে হবে যে কেবল লোকের রুচি থাকা টপিক বা বিষয়ে চ্যানেল বানিয়ে ভিডিও আপলোড করলেই হবেনা। আপনার সেই বিষিয়ে জ্ঞান থাকতে হবে যেই বিষিয়ে আপনি ভিডিও বানাবেন। তাই এইটা অবশই মনে রাখবেন, YouTube চ্যানেল business এ success হতে হলে আপনাকে এমন বিষয়ে ভিডিও বানাতে হবে যেই বিষয়ে ইউটুবে অনেক সার্চ হয় এবং যেই বিষয়ে আপনার অনেক জ্ঞান ও আছে।

আমি নিচে আপনাকে কয়েকটি এমন বিষয় বা টপিক বলেদিচ্ছি যেইগুলি ইউটুবে অনেক সার্চ হয় এবং আপনি সহজে এ বিষয়ে ভিডিও বানিয়ে নিতে পারবেন।

YouTube চ্যানেল বানানোর জন্য ৫ টি চ্যানেল আইডিয়া (চ্যানেল কি বিষয়ে বানাবেন)

  1. Technology (টেকনোলজি ) – আজ ইন্টারনেটে ব্লগ বলুন কি ইউটিউব এ ভিডিও সবখানেই টেকনোলজি আর টেকনোলজি নিয়ে লোকেরা ইন্টারনেটে পোস্ট করছেন। এর কারণ, টেকনোলজি আজ সবথেকে লোকপ্রিয় বিষয় আর যে বিষয়ে আজকাল সবাই জানে। তাই এবিষয়ে ভিডিও বানালে আপনার ভিডিও অনেকেই দেখবে এবং ইনকাম ও অনেক হবে
  2. App review চ্যানেল – আজকাল android apps করা ব্যবহার না কোরে আছে। আমি আর আপনি সবাই নতুন নতুন apps মোবাইলে ইনস্টল কোরে মজা নেই। কিন্তু, সব apps এর কথা আমরা জানিনা আর তাই ইন্টারনেটে লোকেরা নতুন এবং ইন্টারেষ্টিং apps এর কথা জেনে অনেক ভালো পান। তাই, আপনি গুগল প্লে স্টোরে গিয়ে ভালো ভালো apps এর কথা জেনে তার ভিডিও বানিয়ে নিজের চ্যানেলে আপলোড করতে পারেন।
  3. মোবাইল ফোন রিভিউ – মোবাইল ফোন রিভিউ কোরে আজ অনেকেই YouTube থেকে টাকা আয় করছেন। আর আপনিও চাইলে নিজের চ্যানেলে নতুন নতুন মোবাইল রিভিউ কোরে তাদের বেপারে সব কিছু বলে ভিডিও বানাতে পারেন। আপনি যত ভালোকোরে মোবাইলের বিষয়ে সব ভেঙে বলবেন ততোটাই লোকেরা আপনার ভিডিও পছন্দ করবেন।
  4. Tutorial video বানিয়ে – আজকাল সবাই নিজেদের চ্যানেলে কিছুনা কিছু টিউটোরিয়াল ভিডিও আপলোড করে নিজের চ্যানেলকে successful করে ফেলছেন। এর কারণ হলো, টিউটোরিয়াল ভিডিওস ইন্টারনেটে সবেরথেকে বেশি লোকপ্রিয় এবং তাই বিভিন্ন রকমের টিউটোরিয়ালস লোকেরা ইউটিউবে সার্চ করতেই থাকেন। টিউটোরিয়াল ভিডিওস বলতে, এমন কোনো বিষয়ে video বানানো যেখানে আপ্নে কিছু বিষয়ে বুঝিয়ে বলছেন। মানে যেকোনো জিনিস কিভাবে করবেন, কিভাবে বানাবেন, জিনিষটা কি আদি।
  5. Food (খাবার) বানানোর video – যদি আপনি নতুন নতুন খাবার বানিয়ে ভালোপান, তাহলে আপনি নিজের food recepie র ভিডিও বানিয়ে YouTube এ success হতে পারবেন। নতুন নতুন dish নিজের থেকে বানিয়ে সেগুলো বানানোর ভিডিও বানিয়ে তার সাথে আপ্নে কিভাবে খাবারটা বানালেন তা দেখিয়ে নিজের Food video চ্যানেল চালিয়ে নিতে পারবেন।

তো, নিচে আমি আপনাদের কয়েকটি এমন YouTube চ্যানেল বানানোর আইডিয়া দিলাম যেগুলি আজকাল অনেক লোকপ্রিয় এবং যেগুলি চ্যানেল বানিয়ে তাতে ভিডিও আপলোড কোরে লোকেরা লক্ষ লক্ষ টাকা কমিয়ে নিয়েছে। তাই, আপনিও চাইলে এই বিষয়গুলিতে চ্যানেল বানাতে পারেন।

আমরা ওপরে , ইউটিউবে টাকা আয় করার জন্য চ্যানেল কিভাবে বানাবো, কিরকম ভিডিও আপলোড করবো তা জানলাম। এখন চলেন, আমরা সবথেকে জরুরি এবং YouTube theke taka আয় করার দরকারি স্টেপটি জেনেনি যেটাকে বলে “Monetization” .

#৩. ইউটিউবে monetization চালু করেন

নিজের ইউটুবে চ্যানেল বানানোর পর তাতে regular ভালো ভালো ভিডিও আপলোড করার পর আপনার চ্যানেলে subscribers এবং views বাড়বে। কিছুদিন পর যখন আপনি নিজের চ্যানেলে ১০০০ subscribers বা তা থেকে বেশি পেয়েযাবেন তখন আপনি YouTube monetization এর জন্য apply করবেন। Monetization apply কোরে active করার পর আপনার YouTube video তে বিজ্ঞাপন দেখানো হবে Google adsense এর তরফথেকে। আর, এতেই আপনি টাকা কামানো আরম্ভ কোরতে পারবেন।

নিজের চ্যানেলে monetization চালু করার জন্য প্রথমে আপনার কিছু জিনিসের ধ্যান রাখতে হবে। সেই জিনিষগুলি হলো  –

  • আপনার YouTube চ্যানেলে total ১০০০ subscriber থাকতে হবে।
  • ৪০০০ টোটাল ঘন্টা ভিডিও ভিউ সময় থাকতে হবে। মানে, আপনার সব ভিডিও গুলি মিলিয়ে টোটাল ৪০০০ ঘন্টা ভিউ থাকতে হবে।

ওপরে দেবা পয়েন্ট গুলি আপনি পুরা করার পর monetization এর জন্য YouTube এ apply করতে পারবেন এবং YouTube team যদি আপনার চ্যানেলকে approve করে তাহলে আপনিও নিজের আপলোড করা video দ্বারা advertisement লাগিয়ে অনলাইন টাকা আয় কোরতে পারবেন।

YouTube এ monetization চালু কিভাবে কোরবো ?

YouTube এ monetization চালু করার জন্য আপনি নিজের YouTube account থেকে “channel icon > creator studio > channel > monetization” এ যান।

এখন monetization পেজে আপনি নিজের চ্যানেলে monetization চালু করার জন্য ৪ টি অপসন দেখবেন। বাস, সেই অপসন গুলি ভালোকোরে পোরে এক এক করে পুরা করেন।

অপশনের ২ নম্বর স্টেপে আপনাকে গুগল এডসেন্সের জন্য একাউন্ট বানাতে হবে। তাই ভালোকরে নিজের এডসেন্স একাউন্ট বানিয়ে নিজের YouTube চ্যানেলকে তাতে connect কোরে ফেলুন। মনে রাখবেন আপনার ভিডিও তে এই এডসেন্স একাউন্টের তরফথেকে বিজ্ঞাপন দেখানো হবে এবং আপনার কামানো টাকা এডসেন্স এই জমা হবে যেটা আপনি নিজের ব্যাঙ্ক একাউন্ট এ তুলে নিতে পারবেন ১০০ ডলার হবার পর।

Monetization চালু করার সব স্টেপস গুলি পুরা করার পর আপনাকে কিছুদিন দাঁড়াতে হবে। কারণ, apply করার পর YouTube এর official team আপনার চ্যানেলকে review করবেন। Review কোরে তারা দেখবে যে আপনার চ্যানেল আর তার ভিডিও গুলি সব দিকদিয়ে যোগ্য কি না।

সব ঠিক থাকলে আপনার চ্যানেলকে YouTube team monetization এর জন্য approve কোরে দেবে। আর, তারপর আপনি খালি ভালো ভালো ভিডিও বানিয়ে নিজের চ্যানেলে আপলোড কোরতে থাকেন আর বিজ্ঞাপনের দ্বারা টাকা ইনকাম কোরতে থাকুন।

#৪. YouTube থেকে টাকা আয় করার পর সেগুলো কিভাবে তুলবো ?

আমি আগেই বলেছি, YouTube monetization চালু করার সময় আপনাকে Google adsense একাউন্ট রেজিস্টার কোরতে হবে।আর, এই গুগল এডসেন্স থেকেই আপনার ভিডিওতে বিজ্ঞাপন (advertisement) দেখানো হবে আর আপনি অনলাইন টাকা আয় কোরতে পারবেন।

এখন এডসেন্সের বিজ্ঞাপনের দ্বারা আপনি যত টাকা কমাবেন তা আপনার বানানো গুগল এডসেন্স একাউন্টে জমা হতে থাকবে। আর, যখন আপনার এডসেন্সে ১০০ ডলার জমা হয়ে যাবে সেই ১০০ ডলার আপনাকে এডসেন্স নিজে নিজেই আপনার ব্যাঙ্ক একাউন্টে ট্রান্সফার কোরে দেবে। তারপর ২ থেকে ৩ দিনের ভিতরে আপনার টাকা আপনার ব্যাঙ্ক একাউন্টে এসেযাবে।

কিন্তু হে, এডসেন্স থেকে টাকা পাওয়ার জন্য আপনাকে প্রথমে Google adsense এর payment অপশনে গিয়ে নিজের ব্যাঙ্ক একাউন্ট details ভালো করে দিয়েদিতে হবে। এইটা অবশই মোনে রাখবেন, ভুল ব্যাঙ্ক একাউন্ট details দিলে আপনার টাকা আপনার ব্যাংকে কোনোমতেই আসবেনা। তাই, সঠিক এবং ভালোকরে নিজের ব্যাঙ্ক details গুগল এডসেন্স একাউন্টে add করবেন।

আমি আপনাদের YouTube থেকে টাকা কিভাবে আয় করা যায়, এ বেপারে সব কিছু বুঝিয়ে বললাম। আমি আপনাদের এটাও বললাম যে কিরকম ভিডিও ইউটিউবে দিলে আপনার বেশি লাভ হবে। কিন্তু, সব থেকে জরুরি কথাটা আমি এখনো আপনাদের বলিনি। সেটা হলো, “ইউটিউবে চ্যানেল দ্বারা কত টাকা আয় করা যায়” ? আপনিও এইটা জানতে চান তো ?

YouTube থেকে কত টাকা আয় করা যায় ?

ইউটিউব চ্যানেল থেকে টাকা উপার্জন আপনি থখন কোরতে পারবেন যখন আপনি নিজের চ্যানেলকে monetization এর জন্য চালু করবেন। কেবল তারপর আপনার ভিডিওতে বিজ্ঞাপন দেখানো হবে আর আপনি আয় করার সুযোক পাবেন।

এখন কথা হলো, আপনি ইউটিউবে চ্যানেল বানিয়ে এবং ভিডিও আপলোড কোরে কত টাকা আয় করতে পারবেন ? আপনার কি এতো ইনকাম হবে যে অন্য কোনো কাজ বা চাকরি না করলেও চলবে ?

দেখেন, ইউটুবে আপনি কত টাকা আয় করতে পারবেন তার সোজা জবাব কেউ আপনাকে দিতে পারবেনা। কিন্তু হে, অনেক লোকেরা ১০০০ ভিউ তে ২ থেকে ৩ ডলার অব্দি পেয়ে যায়। মানে, যদি আপনার ভিডিওতে ১০০০ লোকেরা আসেন আর আপনার ভিডিও দেখেন তাহলে তাতে দেখানো বিজ্ঞাপনের দ্বারা আপনি ২ থেকে ৩ ডলার কমিয়ে নিতে পারবেন।

তাহলে এখন ভাবেন, যদি আপনার চ্যানেলে আপলোড করা ভিডিওতে ডেইলি মোট ৫০০০ ভিউ হয়ে থাকে তাহলে আপনার প্রায় ১০ থেকে ১৫ ডলার বা তার থেকেও বেশি ইনকাম প্রতিদিন হতে পারে। আর যদি এরকম হয় তাহলে আমি মনেকরি অন্য কোনো চাকরি করার কোনো প্রয়োজন হবেনা।

আজ অনেকেই ইউটুবে ভিডিও আপলোড কোরে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা কমিয়ে নিচ্ছেন। আর তা আপনিও পারবেন কিন্তু অল্প সময় লাগবে। আপনি লক্ষ টাকা না কমাতে পারলেও একটা অনেক ভালো সংখ্যা YouTube চ্যানেল দ্বারা কামিয়ে নিতে পারবেন। কেবল ভালো ভালো ভিডিও বানিয়ে নিজের চ্যানেলে আপলোড কোরতে থাকুন। এতে আপনার ভিডিওতে আস্তে আস্তে ভিউ বাড়বে এবং YouTube সার্চ এ আপনার ভিডিও ভালো করে display হতে থাকবে।

যখন আপনি ৪০ থেকে ৫০ টি ভালো এবং নিজে বানানো মূল্যবান ভিডিও নিজের চ্যানেলে আপলোড করেফেলবেন তখন আপনার অনলাইন ভালো টাকা ইনকাম হতে থাকবে।

তাহলে সোজাসোজি যদি বলাযায়, তাহলে আপনারা চ্যানেলে থাকা ভিডিওতে যদি ডেইলি টোটাল ১০০০ থেকে ১৫০০ ভিউ হয় তাহলে আপনি ২ থেকে ৩ ডলার রোজ ইনকাম করতে পারবেন। মানে রোজ ১৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা। এবং, যদি আপনার ভিডিওতে রোজ ৫০০০ থেকে ৬০০০ ভিউ হয় তাহলে ১০ থেকে ১৫ ডলার মানে রোজ ৬০০ টাকা থেকে ৮০০ টাকা অব্দি কমিয়ে নিতে পারবেন।

এই টাকা কমানোর তালিকাটা আমি বিভিন্ন YouTuber ইনকাম দেখে আপনাকে বলেছি। তাই, আপনার ইনকাম আমি বলা মতো নাও হতে পারে। Google এডসেন্সের বিজ্ঞাপন দ্বারা টাকা কামানো অনেক কিছু জিনিসের ওপর নির্ভর করে। এই জিনিসগুলির মধ্যে, “CPC”, “CTR” এগুলো অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তাই আপনার ইনকাম আমি বলার থেকে কম বা বেশিও হতে পারে।

 

আমার শেষ কথা,

ইউটিউব থেকে আয় করার উপায় আমি আপনাদের স্টেপ বাই স্টেপ ভালো করে বুঝিয়ে দিলাম। তার সাথে, YouTube থেকে কত টাকা আয় করা যায় তা আমি আপনাদের বললাম। এখন আমি আপনাদের একটা অনেক জরুরি কথা বলেদিতে চাই। চ্যানেল বানানোর পর আপনি নিজের চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করবেন।

আর এইটা অবশই মনে রাখবেন যে আপনি চ্যানেল বানিয়েই টাকা ইনকাম করতে পারবেননা। আপনাকে প্রথমে অনেক ভালোকরে কাজ করতে হবে। ভালো ভালো ভিডিও বানাতে হবে যাতে লোকেরা আপনার ভিডিও দেখে ভালো পান।

প্রথমে টাকা আয় করার কথা একদম ভাববেননা। চ্যানেল বানিয়ে ১ থেকে ৩ ম্যাশ কেবল মন দিয়ে কাজ করুন। বাস একবার আপনার চ্যানেলে থাকা ভিডিও লোকেদের ভালো লেগেগেলে আপনার subscriber বাড়তে থাকবে আর তখন আপনি নিজের চ্যানেল দিয়ে ভালো মতো টাকা আয় কোরতে পারবেন। নিজের চ্যানেলকে আপনি একটা business হিসেবে চালিয়ে নিতে পারবেন।

এই আর্টিকেল নিয়ে মোনে কোনো প্রশ্ন থাকলে আমাকে নিচে অবশ্যই comment করবেন। ধন্যবাদ।

0 Shares

A Blogger & Author ! Rahul Das is recognized as a technology Blogger who founded "BanglaTech" & "SidhaJawab". He is passionate about blogging. ❤️

171 thoughts on “কিভাবে ইউটিউব থেকে টাকা আয় করা যায় ? (অনলাইন টাকা উপার্জন)”

  1. Md Irfan Chowdhury

    ভাইয়া আমি যদি ক্রাফট ভিডিও নিজে তৈরি করি সেইটা যদি ইউটিউবে অন্য কারো ভিডিও সাথে মিলে যায় তাহলে কি কপিরাইটের আওতায় পরবে…? বা আমি অন্য কারো ক্রাফট ভিডিও দেখে সেইটা নিজে নিজে তৈরি করি এতে কি সমস্যা হবে।
    আমার মনে হচ্ছে হবেনা কারণ আমি তো কারো ভিডিও সরাসরি ডাউনলোড করে আমার ইউটিউব আপলোড দি নাই । আমি নিজেই তৈরি করছি। আমার ধারণা কি ঠিক দয়া করে একটু জানাবেন।

      1. ভাইয়া আমি যদি টিউটোরিয়াল ভিডিও ছাড়ি আর তাতে যদি আমার কিছু শিখানোতে ভুল থাকে তাহলে কি আমি টাকা পাবো

  2. ইউটিউবে কত দিনের মধ্যে ৪০০০ ঘন্টা ভিউ থাকতে হবে জানাবেন প্লিজ

    1. ভাই এটা তো আপনার ভিডিওতে কতটা ভিউ হচ্ছে সেটার ওপরে নির্ভর করবে।
      রেগুলার ভিডিও আপলোড করলে, ৫ থেকে ৬ মাস সময় লাগবে।

  3. ভাই আমি ২ বছর আগে ইউটিউব খুলছি এবং গান আপলোড দিছি আমার সাবস্ক্রাইব ১০০০+ এবং ভিও ১৫০ হাজার। ওই আইডি তে কি এখন ও ইনকাম করা যাবে

  4. ভাই আমি যদি কার্টন দিয়ে ভালো গল্প বানিয়ে ভিডিও আপলোড করি, তাহলে কি সফল হতে পারব

  5. Md Hassan Al Banna

    বাংলাদেশে কিভাবে টাকা উঠাবো?বাংলাদেশ ইসলামি ব্যাংক এ টাকা ট্রান্সফার করা যাবে ???

    1. আপনি আপনার ব্যাঙ্ক এ গিয়ে যাচাই করুন যে তাদের swift code আছে কি না। যদি আছে, তাহলে সেই ব্যাঙ্ক ব্যবহার করে টাকা তুলতে পারবেন।

  6. আচ্ছা ব্যাঙ্ক একাউন্ট মানে কি পেপাল একাউন্ট বা অন্য অন্য একাউন্ট
    না

    1. Bank account মানে একটি nationalised bank যেখানে একটি ifsc code এবং swift code রয়েছে।

    1. আপনার একটি bank account থাকতে হবে, সেই ব্যাঙ্ক একাউন্টে টাকা নিজে নিজেই এসে যাবে। তবে, $100 একাউন্টে থাকতে হবে।

  7. ভাই আমরা যেকোনো মোবাইল দিয়ে ইউটিউবে ঢোকার পর নিজের চ্যানেলে কিভাবে যাবো..?

    1. মোবাইল থেকে ইউটিউবের চানের খোলার জন্ন্যে chrome browser ব্যবহার করুন।
      Browser এর settings এ “desktop mode” enable করে দিলে তারপর কম্পিউটারের মতোই মোবাইলে চ্যানেল খুলতে পারবেন।
      https://banglatech.info/ইউটিউব-চ্যানেল-খোলা-নিয়ম/

  8. thank you vaiya,amer cahnnel tah sober samney jatey dakha jay ,i mean youtuab on korlai jatey sober samney ashey ,satah korboh kamney

    1. চ্যানেল ট্যাব এ ক্লিক করলে দেখতেই পারবেন। আর যদি আপনি YouTube search এ আসার কথা বলছেন, তাহলে সেটার জন্য করতে হবে YouTube SEO.

  9. Md.Alamgir Kabir.

    ভাই, একটি YouTube Channel এ বিভিন্ন ধরনের ভিডিও আপলোড করা যাবে কি।যেমন-How to make , funny , game , cartun , ইত্যাদি।

    1. এমনিতে করা যাবে কোনো সমস্যা নেই। তবে, এতে আপনার subscriber রা confused হয়ে যাবে যার ফলে তারা channel unsubscribe করার সুযোগ প্রচুর।

    2. Hamlet Sorker

      বিভিন্ন বিষয়ে ক্লাসের ভিডিওতে কি এ্যাড শো করে? আমি তো কোনো এ্যাড দেখি না। আর এগুলতে ইনকাম কেমন হয়?

      1. অবশই পারবেন। যদি আপনি নিজের তৈরি করা ভিডিও দিচ্ছেন, তাহলে প্রচুর লাভ রয়েছে।

  10. ভাইয়া account kholar sate sate ki Google adsense account khulte hbe na ki monetization e apply krar por Google adsense account khulte hbe….kon ta age please blo…
    আর,
    Google adsense account theke tk ki Bangladesh er j kobo bank e neye jabe. Na ki bises kono bank account lagbe…
    Please blo vaiya.

    1. আপনার চ্যানেলে, ১ বছরের ভেতরে ৪০০০ ঘন্টার watch time এবং মোট ১০০০ subscriber থাকতে হবে। কেবল তখন, monetization এর জন্য approval পেতে পারবেন। যেকোনো ব্যাঙ্ক হলেই হবে।

  11. জুয়েল

    ভাই ডাবিং করে জাপানি ভিডিও দিলে কি কপিরাইট এ ধরবে?

    1. অন্যের কপি করা কনটেন্ট ইউটিউবে দিয়ে কোনো লাভ হবেনা। নিজের ইউনিক ভিডিও তৈরি করুন। তবে, অন্যান্য ভিডিও গুলির থেকে কিছু আইডিয়া অবশই নিতে পারবেন।

  12. ভাই ইউটিউব থেকে বিকাশের মাধ্যমে টাকা নেওয়া যায় কি?

    1. যদি সেই ব্যাঙ্ক এর swift code রয়েছে, তাহলে যাবে।

      1. আপনার সাথে ব্যাকলিঙ্ক নিয়ে কথা বলার ছিল

        1. আমার ইউটিউব চ্যানেলে যে কোন নাম দিতে পারব? পরবর্তীতে ব্যাংক একাউন্টের নামের সাথে যদি ইউটিউব চ্যানেলের নামের মিল না থাকে কোন সমস্যা হবে?
          সবকিছুর জন্য অগ্রিম ধন্যবাদ।

          1. ব্যাঙ্ক একাউন্ট এর নাম আর ইউটিউবের চ্যানেলের নামের সাথে কোনো সম্পর্ক নেই।
            তবে, ব্যাঙ্ক একাউন্ট যার নাম রয়েছে তার নাম bank details দেওয়ার সময় সঠিক ভাবে লিখে দিতে হবে।

  13. YouTube থেকে টাকা তুলতে হলে ব্যাকং অ্যাকাউন্ট লাগবে তা ছারা হবে না। পিলিস কমেন্ট এর উত্তর দিবেন

    1. না, ব্যাঙ্ক একাউন্ট ছাড়া টাকা তোলা যাবেনা।

  14. Shahadat khan

    ধন্যবাদ ভাইয়া আপনার সুন্দর পোষ্টের জন্য

  15. ভাইয়া আমি আমার চ্যানেলে আগে অন্যের দুইটা ভিডিও ছেরেছিলা, কিন্তু পরে ডিলিট দিয়েছি, এটাতে কি কোন সমস্যাহবে

  16. ভাই, ৪০০০ ঘন্টা মানে কি? আমি যদি ১ ঘন্টার ভিডিও আপ্লোড করি তার মানে ৪০০০ টা ভিডিও আপ্লোড করার পর আমি Monetization এর জন্য আপ্লাই করতে পারবো। এটাই কি? ৪০০০ ভিডিও তো অনেক।

    1. অরে না ভাই, আপনার একটি ভিডিও আপলোড করা থাকলেও চলবে। তবে, সেই ভিডিওতে টোটাল ৪০০০ ঘন্টার ভিউ থাকতে হবে।

  17. ভাই, সবকিছু ক্লিয়ার বুঝলাম| কিন্তু ব্যাংক একাউন্ট তো সবার থাকে না| সে ক্ষেত্রে কিছের প্রযজ্য?

    1. ভাই ধন্যবাদ কমেন্ট করার জন্য। তবে, এই ক্ষেত্রে ব্যাঙ্ক একাউন্ট থাকতেই হবে।

      1. কেমন বাংক একাউন্ট থাকতে হবে বিকাসের মত কুনু একাউন্ট হবে নাকি

        1. আপনার ব্যাঙ্ক একাউন্টে swift code থাকতেই হবে।

          1. এটা হলো ব্যাংকার এক ধরণের কোড যেটা international transaction এর ক্ষেত্রে প্রয়োজন হয়। আপনি আপনার ব্যাংকে গিয়ে খবর নিলেই বুঝে যাবেন।

          2. (10×400=4000) মনে করেন ১০ মিনিটের একটি ভিডিও ৪০০ জন দেখলো তাহলেই কি ৪০০০হাজার ঘন্টা কম্পিলিট হয়ে যাবে?

          3. হে, তবে সম্পূর্ণ ১০ মিনিট করে প্রত্যেকেই দেখতে হবে, তাহলেই হবে।

  18. ভাই আমাকে একটু বুঝিয়ে বলেন 4000 hour time মানে 4000 মিনিট? নাকি ১ ঘন্টা ২ ঘন্টা ৩ ঘন্টা এইভাবে 4000 হাজার ঘন্টা watch time? আমার মাথায় ডুকতেছেনা একটু খুলে বলেন ধন্যবাদ

    1. এক বছরের ভেতরে ৪০০০ ঘন্টা watch time. ১ ঘন্টা ২ ঘন্টা করে ৪০০০ ঘন্টা।

      1. হে, তবে ভালো ভালো video upload করতে থাকলে এই সংখ্যা কিছুই না।

  19. আমি একটা নতুন ইউটিউব আইডি খুলছি কিন্তু সাবস্কাইব অপশনটাতে ক্লিক করা যায় না,

  20. ধন্যবাদ ভাই। আমি monetization এ click করার পর লেখা আসলো- The YouTube Partner Program is not available in your current location Bangladesh. If this is mistake, please update location

    1. সেটা তো হতে লাগেনা। কারণ, আপনার সেখানে তো YouTube monetization রয়েছে।

  21. Vaiya mne kren ami bivinno phn review.Simple vlog.Camerar samne bivinno topics niye alochona kora etc krte parbo..Video edit besi vlo pari na.Tbe edit chesta krle hye jbe..Tahle ki ami youtube sofol hte parbo..Arekta ktha mne kren amr subcriber 5k..Video views hy avarage 1.5 k tahle kirokom earn asbe amr monthly..2 topics er ans Plz blben

    1. সবচে আগেই বলে দেয়, ইউটিউবের থেকে আয় করার জন্য টাকার প্রয়োজন নেই। আপনার ভিডিও বা কনটেন্ট গুলি সেরা এবং মজার হতে হবে। হে, আপনি যেই বিষয় নিয়ে কাজ করার কথা ভাবছেন, সেই বিষয়টিতে সফলতা পাওয়ার সুযোগ অনেক। তবে, রেগুলার ভালো ভালো রিভিউ ভিডিও আপলোড করতে হবে।

    1. এক টাকাও লাগবেনা। সব কাজ মোবাইল থেকেই করতে পারবেন।

  22. অনেক ধন্যবাদ ভাই।
    তবে ভাই একটা প্রশ্ন ছিল!!!
    ভাই এক একটা এক অ্যাড প্রতি কত টাকা???

    1. দেখুন সেটা বলা সহজ না। তবে প্রত্যেক ১০০০ ad views এ প্রায় ২ থেকে ৪ ডলারের ভেতরে পাবেন।

  23. ভাইয়া এড্সেন্স এপ্লাই পরার পর পোঃঅঃ এ কি কোনো চিঠি আসবে?

    1. অবশই আসবে। এবং এই বিষয় নিয়েই আজ আমি আর্টিকেল লিখছি। অবশই পোড়ে দেখবেন।

  24. Bank Account এ কি কি details থাকে । YouTube এর টাকা Account এ নেওয়ার জন্য ।আমাকে বলে দেন Please.

    1. ব্যাঙ্ক একাউন্টের একাউন্ট নম্বর, swift code এবং ifsc code আপনার দিতে হবে। তবে, আপনি নিজের bank এ গিয়ে সেখানে employee দেড় জিগেশ করে নিতে পারবেন।

  25. ভাই চেনেল খুলার কতদিনের ভিতর ৪ হাজার ঘন্টা আর ১ হাজার সাবস্ক্রাইব লাগবে…আমার একটা চেনেল আছে অনেক পুরনো অইটায় কি করতে পারব???

    1. অবশই করতে পারবেন। তবে, আপনার চ্যানেলে কত জলদি সাবস্ক্রাইবার ও ভিউস হবে, সেটা আপনার ওপরে নির্ভর করবে। কিছু না ভেবেই, ভালো ভালো ভিডিও বানিয়ে আপলোড দিতে থাকুন। দেখবেন, অনেক জলদি আপনার সাবস্ক্রাইবার ও ভিউ হয়ে যাবে। তবে, সপ্তাহে ৪ থেকে ৫ টি ভিডিও দিয়ে ভালো ভাবে কাজ করলে,৫ থেকে ৬ মাসেই হয়ে যাবে।

  26. ব্লগ টা আরো ছোট কতে লিখতে পারতেন,,, বাডতি কথা কোন দরকার চিলনা,,,,

    1. ক্ষমা করবেন, অবশই ভবিষ্যতের আর্টিকেল গুলি ছোট করে লিখার চেষ্টা করবো। কিন্তু, আমি চাই আমার আর্টিকেল পড়া লোকেরা article এর topic এর বিষয়ে সবটাই জেনেনিক। তাই, ডিটেলস সহ লিখতে হয়। এবং, যেটা আপনার জানার দরকার নেই, সেটা হয়তো অন্যদের জানাটা অনেক জরুরি। ভেবেদেখুন।

    1. ধন্যবাদ ভাই. Facebook ID চুল তবে এখন নেই. আমি আমার নতুন আইডি বানিয়ে কিছু দিনের মধ্যেই লিংক ব্লগে দিয়ে দিবো। আবার বলি, ধন্যবাদ

    1. ধন্যবাদ, আবার আসবেন নতুন নতুন কিছু জানার জন্য।

  27. দাদা অনেক ভাল লাগ্লু অনেক সুন্দর করে বুজানের চেস্টা করসেন,আমি একদম নতুন, তাও কিছু হলেও মাথায় ঢুকিয়েছেন, আপনাকে অনেক অনেক দন্ন্যবাদ, বিষয়টা হলু আমার দুইটা I’d আছে একটা দুইটা দুইনামে জেমন-gmail একনাম,you tube আরেক নাম তাতে কনু সমসা হবে কি জানাবেন

    1. ধন্যবাদ,না আপনার কোনো সমস্যা হবেনা। আপনি যেকোনো জিমেইল একাউন্ট থেকেই ইউটিউব ব্যবহার করতে পারবেন।

  28. ফারুক

    আপনাকে ধন্যবাদ সুন্দর ভাবে বুঝিয়ে বলার জন্য।

  29. ভাই আমার যদি 400 ঘন্টার ভিডিও তে 1000 হাজার ভিউয়ার এবং আমি আমার ফ্রেন্ডদের সাহয্যে তা সফল করি মানে কয়েকটি আইটতে থেকে বেশি করে রিভিউ করি তাহলে কি আমি কাজ করতে পারব?

    1. আপনার কথাটা ঠিক বুঝতে পারলামনা যদিও এটা মনে রাখবেন, ৪০০০ ঘন্টার ভিউ এবং ১০০০ subscriber কিন্তু আলাদা আলাদা লোকের হতে হবে। একই লোক বা মানুষের বার বার করা ভিউ ধরা হবেনা।

  30. এই আর্টিকেলটি পড়ে ইউটিউব সম্পর্কে আমি অনেক কিছু জানতে পারলাম। আসা করি সামনে এরকম আরেকটি ভালো আর্টিকেল দিবেন আমাদের জন্য।
    Thank You So Much Brother.

  31. এম ফয়সাল

    আসা করি ভালো আছেন। আমি ফয়সাল খুলনায় থাকি, অনেকদিনের সপ্ন ইউটিউবার হব। আমার ইউটিউব মনিটাইজেশন এনাবল হয়েছে, এখন ইউটিউবে ভিডিও তে এডসেন্স কিভাবে চালু করবো দয়াকরে কেউ ইন্সট্রাকশন দিলে খুশি হতাম। ১১ঘন্টা আগে মনিটাইজেশন চালু হইছে, এডসেন্স কি একা একা কাজ শুরু করবে নাকি ম্যানুয়ালি কোন সিস্টেম আছে? আমি নতুন কেউ হেল্প করলে খুশি হব। অগ্রিম ধন্যবাদ

    1. আপনার প্রত্যেক ভিডিওতে এখন এডসেন্স দ্বারা বিজ্ঞাপন দেখানো হবে। নিজে নিজেই কাজ শুরু হয়ে যাবে। আপনার ভিডিওগুলিতে বিজ্ঞাপন যদি দেখাচ্ছে, তাহলে green color এর dollar sign ($) ভিডিওর পাশে দেখতে পাবেন। এবং, যখন আপনার adsense একাউন্টে ১০০ ডলার ইনকাম হয়ে যাবে, তখন এডসেন্স নিজে নিজেই আপনার দেয়া ব্যাঙ্ক একাউন্টে টাকা পাঠিয়ে দিবে।

    1. সব শিখে নিজে কাজ শুরু করুন, অনেক জলদি সফল হবেন।

  32. Tariful islam

    আমি এর উপরে কোর্স করতে চাই ভাইয়া। কোথায় যেতে হবে।আর কত টাকা লাগবে। ভালো হতো বললে

    1. এবেপারতে সেরকম কোনো course নেই বলে আমি ভাবি। এমনিতে ইউটিউবে ভিডিও দেখে বা ব্লগের আর্টিকেল পোড়ে youtube থেকে টাকা আয় করার বেপারটা শিখতে পারবেন।

  33. বুঝতে না পারার কারণে আমার সাথে এরকম ব্যবহার খুব কষ্ট পেলাম আপনার কাছ থেকে ছোট ভাই হিসাবে ব্যক্তিগত দিক থেকে আমাকে সাহায্য করুন

  34. ভাই আমি একজন খুব অসহায় মানুষ আমি আপনার আর্টিকেল পড়েছি আমার অনেক ভালো লেগেছে আমাকে আপনি একটু সাহায্য করেন আমি একটু প্র্যাকটিক্যালি ভাবে শিখতে চাই এভাবে আমি পারবো না প্লিজ ভাই আমাকে হেল্প করেন 01952514069 এটা আমার নাম্বার ভাই প্লিজ ভাই ছোট ভাই হিসাবে একবার একটা কল দেন

  35. Sonatan Adhikary

    brother ,আমার প্রশ্ন হল যে , আমি কি mp3 গান অথবা film-এর ভিডিও গান upload করে income করতে পারব ।

    1. খুব সহজে বললে না। তাতে আপনি এডসেন্স থেকে আয় করতে পারবেননা কারণ সেটা COPYRIGHT CONTENT এবং আমি যতটুকু জানি COPYRIGHT কনটেন্ট দিয়ে আপনার কেবল সময় নষ্ট করা হবে। ভালো হবে আপনি টিউটোরিয়াল ভিডিও বানান এতে সহজে ভিউস পাবেন। ধন্যবাদ।

    2. জাহাঙ্গীর আলম জনি

      কিভাবে বুঝবো যে, আমার চ্যানেলের ভিউ ৪০০০ ঘন্টা হয়েছে? আর মনিটাইজেশন এর আগে যেসব ভিডিও আপলোড করবো। তার কি কোনো টাকা পাবো কিনা?

      1. monetization চালু হওয়ার আগে কোনো ভিডিও থেকে টাকা পাবেননা। কতটা views বা watch hours হয়েছে সেটা ইউটিউবে গিয়ে “channel >> Monetization” অপশনে গেলেই সব দেখতে পাবেন।

    1. আমার তো ব্যাংকএকাউন্ট নেই তবে আমি আমার মায়ের টা দিতে পারবো কি না বিকাশ একাউন্টে দিলে হবে কি না একটু জানাবেন দয়া করে আমি ভালো করে বুঝতে পারিনি

      1. Youtube থেকে টাকা আয় করার জন্য আপনার একটি ব্যাঙ্ক একাউন্টের প্রয়োজন অবশই হবে। তবে, আপনি আপনার মার ব্যাঙ্ক একাউন্ট অবশই ব্যবহার করতে পারবেন।

  36. ধন্যবাদ ভাইয়া,,,
    আমি এতোদিন মোটামোটি জানতাম, ,,
    এখন পুরো ক্লিয়ারলি বুঝলাম,,,
    আচ্ছা ভাইয়া গেমিং এর ভিডিও বানিয়ে কি আয় করা যায়.?
    Clash of clans,,, PUBG আরো বিভিন্ন গেমস আছে যে, ওগুলার,,,

    1. অবশই পারবেন। অনেকেই গেমিং এর ভিডিও বানিয়ে অনেক আয় করছেন।

  37. মামুন

    অনেক বানান ভুল। এত বড় আরটিকেলে এত বানান ভুল খারাপ দেখা যায়

    1. অনেক অনেক ধন্যবাদ আমাকে জানানোর জন্য। আমি অবশই খেয়াল রাখবো।

    1. adsense একটি ওয়েবসাইট বা কোম্পানি যে আপনার কনটেন্ট, আর্টিকেল বা ভিডিওতে বিজ্ঞাপন দেখানোর বদলে আপনাকে টাকা দেন। এবং, monetization ইউটিউবের এমন একটি অপসন যার দ্বারা আমরা google adsense একাউন্টের জন্য এপলাই করতে পারবেন। আশাকরি তফাৎ টা বুঝেগেছেন।

  38. Md Younus hossain

    আমি একেবারেই নতুন। আচ্ছা ভাইয়া সব কিছুই বুজলাম।কিন্তু একটা কথা। তা হল ইউটিউব এর সাথে কি সব ব্যাংক একাউন্ট যুক্ত করা ডাবে?

    1. মনে রাখবেন, ইউটিউব আপনার ভিডিওতে বিজ্ঞাপন দেখায়না এবং তাই ইউটিউব আপনাকে টাকা দেয়না। আপনার ভিডিওতে গুগল এডসেন্স বিজ্ঞাপন দেখায় এবং এডসেন্স একাউন্ট এ আপনার টাকা জমা হয়। তাই আপনাকে ব্যাঙ্ক একাউন্ট গুগল এডসেন্স অ্যাড করতে হবে। এবং হে,গুগল এডসেন্স যেকোনো ব্যাঙ্ক এড করা যেতে পারে। কিন্তু মনে রাখবেন আপনার কাছে যাতে ব্যাংক এর swift code অবশই থাকে। ব্যাংকের swift code ছাড়া এডসেন্স থেকে টাকা আপনি তুলতে পারবেননা।

  39. Vai onek balo laglo apnar articel ta pore, vai vdo topik ta mathay doke na, jodi eoto help korten onek opkar hoto,,ami o chennel kholte chai but bojte parchi na ki kore korbo,,,topik gola kothay pab,,, r jodi ami apanr articel ta vdo baniye boli tahole ki hobe plz Anwar deyen

    1. সবচে আগেই, এইটা ভেবেনিন যে আপনি কিরকম টপিক এ ভিডিও বানাবেন। কারণ, একটি বা দুটি ভিডিও আপলোড দিলে চলবেনা। আপনাকে সপ্তায় ৩ থেকে ৪ ভিডিও আপলোড দিতে হবে। তাই, নিজের চ্যানেলের একটি বিষয় ভাবুন আর তারপর সেই বিষয়ে ভিডিও আপলোড দিন. হে, আপনি চাইলে আমার এই আর্টিকেল থেকে আইডিয়া নিয়ে ভিডিও বানাতে পারেন , কিন্তু পুরোটা কপি করবেননা। ভালো করে ভুঝে তারপর নিজের মতো করে ভিডিও বানান।

  40. জিয়া সওদাগর

    অনেক সুন্দর কথা বললেন, একদম সম্পুর্ণ বুজিয়ে বললেন, অনেক খুশি হলাম।

  41. সাংবাদিক আপন

    wow…
    Bos tnx diye choto korte caina
    Youtube a kaj kri r na kri
    But bisoy ta apni clear kore bujai dilen

    Tnx bos….

    1. Always welcome bro,,, আমার আর্টিকেল আপনাদের কাজে আসলে আমি সফল বলে ভাববো।

  42. Mritunjoy Pandey

    Vedio gulo front page কি ভাবে আনা যায় আর google addsence কি প্রথমে register korte parbo

    1. ভিডিও গুলি front page এ দেখানোর জন্য আপনার করতে হবে ভিডিও SEO . এর ফলে যখন কেউ কিছু ইউটিউবে সার্চ করবে তখন, আপনার ভিডিও আপনি প্রথম সার্চ পেজে দেখতে পারবেন। এইটা ইউটিউবের থেকে ট্রাফিক পাওয়ার এক মাত্র লাভ জনক উপায়। অধীন জানুন – YouTube SEO কি ? কিভাবে করবেন ?

  43. “নিজের ব্যাঙ্ক একাউন্ট details ভালো করে দিয়ে দিতে হবে”- কি কি ডিটেইলস দিতে হবে সেটা আরেকটু বিস্তারিত বললে ভালো হত। আর কি ধরনের একাউন্ট হতে হবে? Visa/MasterCard এনাবেল করা একাউন্ট? নাকি ডাচ বাংলার রেগুলার একাউন্ট হলেই হবে? মোবাইল ব্যাংকিং, যেমন- বিকাশ বা রকেট দিয়েও কি করা যাবে?

    1. আমি দুঃখিত, আপনাকে ভালোকরে বুঝিয়ে বলতে পারিনাই। কিন্তু, যদি আপনি এডসেন্স থেকে টাকা নিজের ব্যাঙ্ক একাউন্টে নিয়ে নিতে চান , তাহলে আপনার ব্যাঙ্ক একাউন্ট ডিটেলস এডসেন্স একাউন্টে অ্যাড (add) করতে হবে। আপনার নিজের ব্যাঙ্ক একাউন্টের একাউন্ট নম্বর, IFSC কোড, swift কোড এবং ব্যাঙ্ক holder এর নাম দিতে হবে। আপনি নিজের ব্যাঙ্ক একাউন্টের সাথে জড়িত ifsc বা swift কোড গুগলে সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন বা bank branch এ গিয়ে জিগেশ করলেই পেয়েযাবেন। আপনি যেকোনো savings বা current ব্যাঙ্ক একাউন্ট ব্যবহার করতে পারবেন। মোবাইল ব্যাঙ্কিং, visa/debit কার্ড এগুলির কোনো প্রয়োজন নেই।

  44. কামরুজ্জামান

    কমেন্ট বেক এবং আপনার সাহজ্যপরায়নতা দেখে ভালোই লাগল। সভাবত এরকম কেউ করে নাহ। ধন্যবাদ। আপনার মোবাইল নাম্বারটা কী পেতে পারি….

    1. ব্লগ বা ইউটিউবের সাথে জড়িত যেকোনো সাহায্যের জন্য আপনি আমাকে অবশই বলবেন। আমি যা জানি যতটাই জানি আপনার সাহায্য করবো। ধন্যবাদ

    2. ধন্যবাদ ভাই। আমি পুরাই নতুন। আমি আপনার কথামত কাজ করার চেস্টা করবো।

      1. ধন্যবাদ আর্টিকেল পড়ার জন্য। ইউটিউবের seo র বেপারে একটি আর্টিকেল লিখেছি। সেটা অবশই পড়বেন। কাজে আসবে।

    1. কোন আইকন খুঁজে পাচ্ছেননা ? বলুন আমি অবশই হেল্প করবো।

    1. মানে, আপনি নিজের চ্যানেলে যা যা ভিডিও আপলোড করবেন সেগুলি লোকেরা যতক্ষণ দেখবে সেই দেখার সময়টা টোটাল ৪০০০ ঘন্টা হতে হবে। সে আপনার সব ভিডিও মিলিয়ে হতে পারে বা একটা ভিডিও তে হতে পারে।

  45. ভাইয়া টোটাল ৪০০০হাজার ঘন্টার কথাটা মাস্ট লাগবেই?

    1. হে , এবং ইউটিউবে নিয়ম আপনার মেনে চলতেই হবে।
      কিন্তু যদি আপনি রেগুলার ভালো ভালো ভিডিও নিজের চ্যানেলে আপলোড করতে থাকেন তাহলে ৪০০০ ঘন্টা এমনেই হয়ে যাবে। ভয় পাবেননা কাজ মন দিয়ে শুরু করুন।

  46. এডসেন্স বিষয়ে বিস্তারিত বললে বিষয় টা সঠিক ভাবে বুঝতে পারতাম

    1. আমি অনেক দুঃখিত যে আপনাকে ভালোকরে বুঝিয়ে বলতে পারলামনা। তবে হে, এডসেন্স শুধু এমন একটি সার্ভিস যার ব্যবহার করে আপনি ইউটিউব বা ব্লগের মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারবেন। আগে আপনার একটি ইউটিউবে চ্যানেল বানিয়ে তাতে ভালো ভালো ভিডিও আপলোড করতে হবে তারপর আপনি এডসেন্সের জন্য নিজের ইউটিউব ড্যাশবোর্ড থেকে এপলাই করতে পারবেন। কিন্তু, সেটা পরের কথা।

  47. অনেক ভালো লিখেছেন । কিন্তু অনেক বানান ভুল হয় সেই দিকে একটু খেয়াল রাখবেন।
    ধন্যবাদ

    1. ধন্যবাদ হাবিব আমার আর্টিকেল পড়ার জন্য।.. আমি অবশই বানানের দিকে ধ্যান রাখবো।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error:
Scroll to Top
Copy link
Powered by Social Snap